//

//

ক্রিয়া : যাই না যায় কখন হবে কোনটি

একটি জানা নিয়ম: যায় বানান লিখতে চাই

এবি ছিদ্দিক

কিছু শব্দের বানান অন্ত্যে ‘হ্রস্ব-ই’ দিয়ে যেমনটি শুদ্ধ, তেমনটি ‘অন্তঃস্থ-য়’ দিয়েও শুদ্ধ। কিন্তু শব্দগুলোর বানান উভয় বর্ণ দিয়ে লেখা শুদ্ধ হলেও ব্যাবহারিক প্রয়োগে যথেষ্ট ভিন্নতা রয়েছে। এই ভিন্নতা ঠিকভাবে অনুধাবন করতে না-পেরে অনেকে ‘হ্রস্ব-ই’-এর জায়গায় ‘অন্তঃস্থ-য়’ কিংবা ‘অন্তঃস্থ-য়’-

এবি ছিদ্দিক

এর জায়গায় ‘হ্রস্ব-ই’-যুক্ত রূপ ব্যবহার করে ফেলেন। বিষয়টি একেবারেই দৃষ্টিকটু ও শ্রুতিকঠোর। এছাড়া কিছু ক্ষেত্রে একটির স্থলে অন্যটি লেখার কারণে অর্থেরও মারাত্মক বিপর্যয় ঘটতে পারে। তাই, ক্ষেত্রানুযায়ী যথাযথ রূপের ব্যবহার করাটা অত্যন্ত দরকারি। যাঁরা বাক্যভেদে ‘ই’ আর ‘য়’-যুক্ত রূপের কোনটি ব্যবহার করা উচিত, তা নিয়ে বিভ্রান্তিতে পড়ে যান, তাঁরা নিচে উল্লেখ-করা নিয়ম কটি রপ্ত করতে পারলে ভবিষ্যতে বিভ্রান্তি অনেকটা কমে যাবে বলে আমার বিশ্বাস—

১. ক্রিয়াপদের ক্ষেত্রে: যেসকল ক্রিয়াপদের বানানের শেষে ‘ই’ এবং ‘য়’ উভয় শুদ্ধ, উত্তম পুরুষের (আমি, আমরা) ক্ষেত্রে সেসকল ক্রিয়াপদের বানান হ্রস্ব-‘ই’ দিয়ে লিখতে হবে। যেমন—
ক. আমি স্কুলে যাই।
খ. আমরা ভাত খাই।
গ. আমি লাল আমটি চাই।
ঘ. আমরা ঠিকমতো খেতে পাই।
ঙ. আমি কিন্তু ছাফিয়া নই।
চ. চলো, আমরা বের হই।
অপরদিকে, যেসকল ক্রিয়াপদের বানানের শেষে ‘ই’ এবং ‘য়’ উভয়ই শুদ্ধ, নাম পুরুষের (তারা, সে, টম প্রভৃতি) ক্ষেত্রে সেসকল ক্রিয়াপদের বানান ‘য়’ দিয়ে লিখতে হবে। যেমন—
ক. সে স্কুলে যায়।
খ. তারা পড়তে চায়।
গ. টম আম খায়।
ঘ. ইশমাম সর্বদা প্রথম হয়।
ঙ. মুনতাহা বিড়াল-বিদ্বেষী নয়।
চ. ঐশী কেবল ভুলগুলোই দেখতে পায়।

২. নামপদের ক্ষেত্রে: সাধারণত নামপদের শেষে বিভক্তি হিসেবে ‘য়’ এবং ‘নিশ্চয়ার্থক’, তথা নির্দিষ্ট বিষয়কে জোর দিতে ‘ই’ যুক্ত হয়। অর্থাৎ, বাক্যে কোনো নামপদকে বিকল্পহীন হিসেবে তুলে ধরতে ওই নামপদটির ওপর জোর দেওয়ার জন্যে ‘ই’ লিখতে হবে। অন্যথা ‘য়’ লিখতে হবে। যেমন—
ক. ছাফিয়া চিড়িয়াখানায় (চিড়িয়াখানাতে) যাবে।
খ. ছাফিয়া চিড়িয়াখানাই (চিড়িয়াখানাতে বাদে অন্য কোথাও যাবে না) যাবে।
গ. কথায় (কথাতে) পাকা না-হয়ে পড়াশোনায় (পড়াশোনাতে) পাকা হওয়া উচিত।
ঘ. সে কথাই (জোর দেওয়া হচ্ছে) বলতে পারে না।
ঙ. টাকায় (টাকাতে) সবই পাওয়া যায়।
চ. টাকাই (একমাত্র টাকা হচ্ছে) সব অশান্তির মূল।
ছ. আমি আজ ঢাকায় (ঢাকাতে) যাব।
জ. আমি আজ ঢাকাই (ঢাকা ছাড়া অন্য কোথাও নয়) যাব।
ঝ. বাসায় (বাসাতে) কেউ থাকে না।
ঞ. এমন বাসাই (কেবল এরূপ বাসা) আমার দরকার।
ট. তাকে গোরুয় লাথি মেরেছে।
ঠ. তাকে গোরুই (কেবল গোরু, অন্য কোনো প্রাণী নয়) লাথি মেরেছে।

সূত্র: একটি জানা নিয়ম: যায় বানান লিখতে চাই, এবি ছিদ্দিক, শুদ্ধ বানান চর্চা (শুবাচ)।


ড. মোহাম্মদ আমীনের লেখা বইয়ের তালিকা

All Link

বাংলা সাহিত্যবিষয়ক লিংক

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক সকল গুরুত্বপূর্ণ সাধারণজ্ঞান লিংক

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/১

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/২

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন /৩

কীভাবে হলো দেশের নাম

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১

দৈনন্দিন বিজ্ঞান লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৩

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৪

কীভাবে হলো দেশের নাম

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/২

বাংলাদেশের তারিখ

Share This
Language
error: Content is protected !!