//

//

শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি : বানান শেখার বই

শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি
ড. মোহাম্মদ আমীন
অধ্যাপক হায়াৎ মামুদ ও অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হকের পর্যবেক্ষণ, পরিশীলন ও তত্ত্বাবধানে রচিত ‘শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি’ বইটি শুদ্ধ বানান চর্চা গোষ্ঠীর সদস্যবৃন্দকে উৎসর্গ করা হয়েছে। এখানে শুবাচ থেকে গৃহীত অনেক তথ্য রয়েছে।বইটির প্রকাশক অনুভব, মূল্য: ২৫০ টাকা। তবে শুবাচিগণের জন্য প্রকাশক ৩০% কমিশন দিতে রাজি হয়েছেন। যোগাযোগ করতে পারেন: ০১৭৪৭-৬৭০৫০২
নিচে বইটির সূচি
 
প্রথম অধ্যায়
প্রমিত বাংলা বানানবিধি ॥ ১৩
‘ও’ বর্ণের ফাঁক-অফাঁক ॥ ১৩
ক্রিয়াপদে ‘ও-কার’ ॥ ১৩
‘দু’ এবং ‘দূ’ ॥ ১৪
‘আস্ত-ত’ ও ‘খণ্ড-ৎ’ ॥ ১৪
বিশেষণ পদ লেখার নিয়ম ॥ ১৪
বিদেশি শব্দে দন্ত্য-স ॥ ১৪
পদের শেষে ‘-জীবী’ ও ‘-জীব’ শব্দের বানান ॥ ১৪
বহুবচন-বাচক ‘-বলি’ ॥ ১৫
পূর্ণ ও পুন ॥ ১৫
‘স্ত’ ও ‘স্থ’ ॥ ১৫
‘কে’ এর ফাঁক-অফাঁক ॥ ১৫
ক্রিয়াপদে ‘না’ অব্যয় ॥ ১৫
বিদেশি শব্দে ঈ ণ ছ ষ ॥ ১৬
অ্যা-এ ॥ ১৬
ইংরেজি বর্ণ ঝ-এর প্রতিবর্ণ ॥ ১৬
আরবি বর্ণের প্রতিবর্ণিকরণ ॥ ১৬
ণত্ববিধি ॥ ১৬
সমাসবদ্ধ পদে ফাঁক থাকবে না ॥ ১৬
হ্রস্ব ই-কার ও হ্রস্ব উ-কার ব্যবহার ॥ ১৭
বিদেশি শব্দে ‘দীর্ঘ ঈ-কার’ বর্জিত ॥ ১৮
বাংলা শব্দে হ্রস্ব ই-কার ॥ ১৮
ঙ ঞ ও বিসর্গ ॥ ১৮
ক্রিয়াপদে ও-কার ॥ ১৯
আলি ও অঞ্জলি ॥ ১৯
ভূত-অদ্ভুত ॥ ১৯
হীরা ও নীল ॥ ১৯
নাই নেই নি ॥ ১৯
ব্যঞ্জনবর্ণের দ্বিত্ব নিষিদ্ধ ॥ ২০
ইন্্-ভাগান্ত শব্দ ও সমাস ॥ ২০
ভাষা ও জাতি-সমূহের বানান হ্রস্ব ই-কার ॥ ২১
-কারী ও -কারি ॥ ২১
বহুবচনবাচক পদ ও বানান পরিবর্তন ॥ ২১
প্রত্যয়ান্ত হ্রস্ব ই-কার ॥ ২১
ঈ ঈয় অনীয় প্রত্যয়ের প্রভাব ॥ ২২
খণ্ড-ৎ ও স্বরচিহ্ন ॥ ২২
ইক-প্রত্যয়ের প্রভাব ॥ ২২
প্রশাসনিক না প্রাশাসনিক ॥ ২২
আর্ষপ্রয়োগ ॥ ২২
‘টি’ ‘টা’- কোনটি কখন ॥ ২৩
উনি এবং তিনি ॥ ২৩
বর্গীয়-ব অন্তঃস্থ ব ॥ ২৩
বিশেষ্য থেকে বিশেষণ ॥ ২৪
মত এবং মতো ॥ ২৪
-এর (ঢ়ড়ংংবংংরাব/মবহরঃরাব পধংব)/ ব্যবহার ॥ ২৪
স স্ব, সার্থ স্বার্থ, সাক্ষর স্বাক্ষর ॥ ২৫
চলিত ভাষায় কোমলরূপ ॥ ২৬
শব্দের শেষে বিসর্গ বিধেয় নয় ॥ ২৬
তৃচ প্রত্যয়ান্ত তা-তৃ ॥ ২৬
তৃচপ্রত্যয়ের প্রভাব ॥ ২৬
অবিকৃত ও বিকৃত ‘এ’ ॥ ২৭
ত্ব-প্রত্যয়যুক্ত শব্দের মধ্যাংশ ॥ ২৭
প্রায় প্রধান বহুল বিশেষ ॥ ২৭
য-প্রত্যয় ॥ ২৮
তৎসম স্ত্রীবাচক শব্দ ॥ ২৮
ব্যক্তি বা পুরুষ প্রকাশে তৎসম শব্দে দীর্ঘ ঈ-কার ॥ ২৮
নির্দেশক পদের অবস্থান ॥ ২৮
বিশেষণ থেকে বিশেষ্য করার কৌশল ॥ ২৮
আ-কার লোপ-কাহিনি ॥ ২৮
হস্ চিহ্ন বর্জন ॥ ২৯
হস্ চিহ্ন দেওয়ার কারণ ॥ ২৯
লেখ লেখা লেখনী ও লেখসামগ্রী ॥ ২৯
কি বনাম কী ॥ ৩০
সংক্ষেপিত শব্দে ষষ্ঠী বিভক্তির (র/এর) ব্যবহার ॥ ৩১
শ্রীমান, আয়ুষ্মান্ ॥ ৩১
সরণি স্মরণী ও স্বরনি ॥ ৩২
বান-মান ॥ ৩২
ঊ-কার যদি উ-কার হয় ॥ ৩৩
অকারণ স্ত্রীলিঙ্গ ॥ ৩৩
অনূদিত ভুল কিন্তু প্রচলিত প্রয়োগ ॥ ৩৪
ক্রিয়াপদের সূচনায় উ এবং ও ॥ ৩৪
শব্দের আদিতে/ ব্য/ ও /ব্যা/এর প্রয়োগ ॥ ৩৫
শহিদ মিনার শহীদ মিনার নয় ॥ ৩৫
বাংলা ভাষা ও উচ্চারণগত দীর্ঘস্বর ॥ ৩৬
বাংলা ভাষা পরিবর্তনশীলতা ও শুবাচ ॥ ৩৬
দ্বিতীয় অধ্যায়
‘ণত্ববিধান’ ॥ ৩৭
তৃতীয় অধ্যায়
ষত্ববিধান ॥ ৪১
চতুর্থ অধ্যায়
চন্দ্রবিন্দুর আগমন ও ব্যবহার ॥ ৪৪
পঞ্চম অধ্যায়
সমাস ॥ ৪৭
 
ষষ্ঠ অধ্যায়
বহুবচন পদের ব্যবহার নির্দেশনায় শুবাচ ॥ ৪৯
 
সপ্তম অধ্যায়
অসাধু শব্দ ॥ ৫১
 
অষ্টম অধ্যায়
কয়েকটি পরিবর্তিত ও কুশলী বানান ॥ ৫৩
 
নবম অধ্যায়
ধাতু ও ধাতুরূপ ॥ ৫৫
 
দশম অধ্যায়
ভুল এবং সংশোধন ॥ ৬০
একাদশ অধ্যায়
কী লিখবেন এবং কী লিখবেন না ॥ ৬৪
 
দ্বাদশ অধ্যায়
একাধিক বানান শুদ্ধ হলে যেটি লিখবেন ॥ ৬৮
 
ত্রয়োদশ অধ্যায়
Share This
Language
error: Content is protected !!