অটোকারেক্ট বিড়ম্বনা

মুশাররফ খান
মুশাররফ খান
তখনও মাইক্রোসফট ওয়ার্ড (Microsoft Word) আবিষ্কৃত হয়নি। Word Processing-এর জন্য ব্যবহৃত হতো তখনকার বিখ্যাত কোরেল কোম্পানির ওয়ার্ড প্রসেসিং প্রোগ্রাম ‘ওয়ার্ড পারফেক্ট (Word Perfect)’। ওয়ার্ড পারফেক্ট প্রোগ্রামে একটি অটোকারেক্ট ফিচার ছিল। যা ভুল বানান স্বয়ংক্রিয়ভাবে শুদ্ধ করে দিত। আমি তখন ফিনিক্সের গ্লেনডেলে Thunderbird School of Global Management-এ MIM-এর ছাত্র। প্রফেসর ড. উইলিয়াম বসার্টের কাছে International Marketing বিষয়ে কোর্স করি। এই সময় একদিন মার্কেটিং কোর্সের একটি টার্ম পেপার Dr. William Bossert-এর অফিসে জমা দিই। পরের দিন তাঁর সেক্রেটারি ফোন করে জানান Dr. Bossert আমাকে জরুরি ভিত্তিতে তাঁর সাথে দেখা করতে বলেছেন।
আমার তো মাথার সব চুল দাঁড়িয়ে গেল। ফাইনাল সেমিস্টারের টার্ম পেপার! নিশ্চয়ই কোথাও কোনো মারাত্মক ভুল হয়েছে, নইলে স্যার এভাবে কেন ডেকে পাঠাবেন? পরের দিন দুরুদুরু বুকে স্যারের সাথে দেখা করতে গেলাম। দরজায় দাঁড়াতেই Dr. Bossert হেসে হেসে বললেন “কাম অন ইন মি. খান! কেমন আছেন? বসুন। কফি খাবেন?” Dr. Bossert এর এহেন আপ্যায়নের মুড দেখে ভাবলাম নিশ্চয়ই টার্ম পেপারটা খুব ভালো হয়েছে। তাই স্যার সেটা প্রশংসা করার জন্য আমাকে ডেকে পাঠিয়েছেন। আমার যেন ঘাম দিয়ে জ্বর ছেড়ে গেল। বেশ চাঙ্গা হয়ে উঠলাম। মজা করার জন্য বললাম, “হ্যাঁ, ড. বসার্ট, কফি দারুণ শোনাচ্ছে (coffee sounds great)। শরীরটা আজ কেমন যেন ম্যাজ ম্যাজ করছে!”
“শরীর নয় হে খান সাহেব। পাকস্থলী তোমার এক্ষুনি কেমন মোচর দিয়ে উঠে দ্যাখো,” বলেই ড্রয়ারের ভেতর থেকে আমার টার্ম পেপারটা বের করে আমার দিকে ঠেলে দিয়ে বললেন, “দ্যাখো কী লিখেছ!”
আমি তখন ফ্যাল ফ্যাল চোখে Dr. Bossert এর মুখের দিকে তাকিয়ে। আমার সামনে টার্ম পেপারের মলাটে গোটা গোটা অক্ষরে লেখা “Presented to: Dr. William Bastard”! চেয়ে দেখি Dr. Bossert তাঁর চিকন চশমার ফাঁকে একটা চোখ সরু করে আমার দিকে তাকিয়ে। বদন জুড়ে তাঁর টম বিড়ালের ক্রূর হাসি! মনে মনে প্রমাদ গুনছি। লাস্ট সেমিস্টার, গ্রাজুয়েশনটা বুঝি ঝুলেই গ্যালো!
বুঝতে পারলাম Word Perfect-এর অটোকারেক্ট ফিচারই আগ বাড়িয়ে এই আকামটি করেছে। আমার অসাবধানতাই আমার প্রিয় স্যার Dr. Bossert-কে Dr. Bastard বানিয়ে দিয়েছে। স্যারের দিকে চেয়ে মুখটা যথাসম্ভব কাচুমাচু করে বললাম, “এখন আমার কী হবে স্যার?”
Dr. Bossert হেসে বললেন, “যা হবার তাই হবে। তুমি বাড়ি যাও। রিপোর্ট তোমার দারুণ হয়েছে!”
এরপর দেখলাম তিনি একা একা গজ গজ করে চলেছেন, “এই ওয়ার্ড পারফেক্ট শালারা আমার পিছু লেগেছে! ইনাফ ইজ ইনাফ! মামলা করব আমি ওদের নামে!”
জানা অজানা অনেক মজার বিষয়: https://draminbd.com/?s=অজানা+অনেক+মজার+বিষয়
শুবাচ গ্রুপের সংযোগ: www.draminbd.com
শুবাচ যযাতি/পোস্ট সংযোগ: http://subachbd.com/
আমি শুবাচ থেকে বলছি
error: Content is protected !!