অতিকায়

অতিকায়
‘অতিকায়’ শব্দটির প্রায়োগিক অর্থ— বিশাল, প্রচণ্ড, বিকট প্রভৃতি।ভারতীয় পুরাণ হতে বাংলায় ‘অতিকায়’ শব্দটির আগমন। বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, সংস্কৃত ‘অতিকায়’ শব্দের অর্থ বিশেষ্যে— রামায়ণে বর্ণিত রাবণের অন্যতম পুত্র এবং বিশেষণে— প্রকাণ্ড দেহধারী। ‘অতি’‘কায়’ মিলিত হয়ে গঠন করেছে ‘অতিকায়’। সংস্কৃত ‘কায়’ শব্দের অর্থ শরীর, তনু প্রভৃতি। প্রসঙ্গত, সংস্কৃত ‘কায়’ শব্দ থেকে বাংলা ‘কায়া’ শব্দের উদ্ভব। যার অর্থও শরীর, তনু, দেহ প্রভৃতি।
পুরাণমতে, রাবণের পুত্রগণের মধ্যে একজন ছিলেন পর্বতের মতো বিশাল দেহের অধিকারী। বিশাল দেহ বা অতি বড়ো ছিল বলে রাবণের ওই পুত্রকে ‘অতিকায়’ ডাকা হতো। ভারতীয় পুরাণে বর্ণিত রাবণের সেই পুত্রের ‘অতিকায়’ ডাক নামটি ব্যক্তিনাম ত্যাগ করে প্রাত্যহিক প্রয়োজনে ব্যবহৃত শব্দ হয়ে বাংলায় এসে অভিন্ন অর্থে ভিন্ন ক্ষেত্রে প্রচণ্ড দাপটের সঙ্গে দিন গুজরান করছে।
সূত্র : বাংলা শব্দের পৌরাণিক উৎস, ড. মোহাম্মদ আমীন, পুথিনিলয়, বাংলাবাজার, ঢাকা।
error: Content is protected !!