অপরূপ অর্থ অপয়া কদাকার

ড. মোহাম্মদ আমীন
বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানে ‘অপ’ শব্দের দুটি ভুক্তি। একটি বিশেষ্য এবং অন্যটি অব্যয়। বিশেষ্য, ‘অপ’ মানে জল। অব্যয় ‘অপ’ হচ্ছে অপকর্ষ, নিন্দা, বিরোধ, প্রতিকূল প্রভৃতিসূচক সংস্কৃত উপসর্গ। যখনই কোনো বিষয়ের সঙ্গে ‘অপ’-যুক্ত হয়েছে,

পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

তখনই বিষয়টি ভালো হলেও খারাপ হয়ে গেছে।

কর্ম স্বভাবতই ভালো, কিন্তু খারাপ হলে তা অপকর্ম। কীর্তি মহাগৌরবের, কিন্তু খারাপ হলে তা অপকীর্তি হয়ে যায়। যা ‘অপ’ দিয়ে চিহ্নিত করা হয়। ঠিক তেমিন অপচিকীর্ষু, অপব্যবহার, অপব্যয়, অপভাষা, অপভ্রষ্ট প্রভৃতি। এই শব্দগুলো বাক্যে সাধারণত নিন্দার্থে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু ‘অপরূপ’ এমন একটি শব্দ, যেটি ‘অপ’ হয়েও কৃষ্ট এবং আকর্ষণীয় অর্থ ধারণের বিরল সৌভাগ্য অর্জন করেছে। এটি ব্যবহৃত হয় প্রশংসার্থে।
‘অপরূপ’ শব্দের আদি অর্থ কদাকার। আধুনিক অভিধানেও ‘অপরূপ’ শব্দের অর্থ কদাকার রয়ে গেছে। এরূপ একটি কদাকার শব্দ দিয়ে বলা হচ্ছে, মেয়েটি অপরূপ, মানে মেয়েটি কাদাকার, মেয়েটি কুৎসিত, মেয়েটি অপয়া, মেয়েটি রূপবান, মেয়েটি রূপসি, মেয়েটি সুন্দরী। আসলে মেয়েটি কী?
বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, বাক্যে বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত সংস্কৃত অপূর্ব শব্দ হতে উদ্ভূত ‘অপরূপ’ শব্দের অর্থ অপূর্ব, অতুলনীয়, কদাকার, বেয়াড়া, অদ্ভুত, বিস্ময়কর, আশ্চর্য প্রভৃতি। কাজেই দেখা যাচ্ছে, ‘অপরূপ’ শব্দের অন্যতম অর্থ কদাকার, বেয়াড়া প্রভৃতি এখনো বহাল তবিয়তে রয়ে গেছে। এবার দেখা যাক, কদাকার ও বেয়াড়া শব্দের অর্থ কীভাবে অপূর্ব, অতুলনীয়, সুন্দরী ও রূপবান হয়ে গেল।
শারীরিক সৌন্দর্যের মতো আর্থিক সম্পদও একপ্রকার রূপ- কাজেই দুটোই লোভনীয় সম্পদ। এ দুটোর প্রতি মানুষের লোলুপ দৃষ্টি চিরন্তন। রুপসি নারীর প্রতিও ছিল এমন লোলুপ দৃষ্টি। তাই বেহাত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থেকেই যেত সবসময়। বস্তুগত সম্পদের মতো রূপসিদেরও লুকিয়ে বা নিরাপদে রাখার চেষ্টা করা হতো। তবে রূপসিদের রক্ষা করা বস্তুগত সম্পদ রক্ষার মতো অত সহজ বিজয় ছিল না। তাই অনেক মা-বাবা বা আত্মীয়-স্বজন রূপসি নারীদের নানাভাবে কদাকার করে রাখত, মুখে-হাতে কালি-কাদা মেখে কিম্ভূতকিমাকার করে দিত। এজন্য এমন মেয়ে দেখে লোকে বলত :
অপরূপ-অপরূপা, কদাকার,
সংসারটা করে দিল ছারখার।
অধিকন্তু, বর্তমান যুগের রূপসি মেয়ের পিতামাতা ও আত্মীয়-স্বজনদের মতো অতীতকালের মেয়েদের পিতামাতা ও আত্মীয়স্বজনদের আরো বেশি বিপত্তিতে পড়তে হতো, সইতে হতো অপমান আর নিন্দা। মেয়েদের রূপের জন্য নানা কলঙ্ক বয়ে বেড়াতে হতো। স্বস্তিতে ঘুমাতেও পারত না। তাই রূপবান মেয়েদের বলা হতো অপরূপ মানে অপয়া, অকল্যাণকর। এভাবে রূপ হয়ে যায় অপরূপ।
সেকালের রূপসি মেয়েদের অবস্থা কেমন ছিল তার প্রমাণ পাওয়া যায় ভুসুকুর পঙ্‌ক্তিতে- “আপনা মাঁসে হরিণা বৈরী”। এখানে ভুসুকু মেয়েদের ‘রূপ’-এর ক্ষতিকর দিকে উত্থাপন করে তা নিকৃষ্টতার বিষয়টি বর্ণনা করেছেন। এভাবে রূপসি-রূপবান ও সুন্দরী হয়ে যায় অপয়া এবং অপয়া থেকে অপরূপ-অপরূপা। যা এখনো অভিধানে রয়ে গেছে।কারণ, বর্তমানেও রূপের প্রতি লোলুপ মনোভাব আগের মতোই রয়ে গেছে। তাই ‘অপরূপ’ মানে শুধু অপূর্ব নয়, কদাকারও।
‘অপরূপ’ শব্দের অর্থ তাদের জন্যই অপূর্ব, যারা রূপকে সযত্নে রক্ষা করতে পারে । কিন্তু যারা রক্ষা করতে পারে না, তাদের জন্য রূপ আসলেই অপয়া। তাদের অপরূপ নারীরা কদাকারই।
—————

All Link

বিসিএস প্রিলি থেকে ভাইভা কৃতকার্য কৌশল

ড. মোহাম্মদ আমীনের লেখা বইয়ের তালিকা

বাংলা সাহিত্যবিষয়ক লিংক

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক সকল গুরুত্বপূর্ণ সাধারণজ্ঞান লিংক

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/১

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/২

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন /৩

কীভাবে হলো দেশের নাম

ইউরোপ মহাদেশ : ইতিহাস ও নামকরণ লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১

দৈনন্দিন বিজ্ঞান লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৩

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৪

কীভাবে হলো দেশের নাম

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/২

বাংলাদেশের তারিখ

ব্যাবহারিক বাংলা বানান সমগ্র : পাঞ্জেরী পবিলেকশন্স লি.

শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি : বানান শেখার বই

কি না  বনাম কিনা এবং না কি বনাম নাকি

মত বনাম মতো : কোথায় কোনটি এবং কেন লিখবেন

ভূ ভূমি ভূগোল ভূতল ভূলোক কিন্তু ত্রিভুবন : ত্রিভুবনের প্রিয় মোহাম্মদ

মত বনাম মতো : কোথায় কোনটি এবং কেন লিখবেন

প্রশাসনিক প্রাশাসনিক  ও সমসাময়িক ও সামসময়িক

error: Content is protected !!