অমাত্য আমাত্য: অমাত্য থেকে আমাত্য; জ্ঞান ও প্রজ্ঞা

ড. মোহাম্মদ আমীন
সংযোগ: https://draminbd.com/অমাত্য-আমাত্য-অমাত্য-থেক/
অমাত্য: জ্ঞানেন্দ্রমোহন দাস সম্পাদিত ‘বাঙ্গালা ভাষার অভিধান’ গ্রন্থ অনুযায়ী  সংস্কৃত ‘অমা’ ও সংস্কৃত ‘ত্য’ মিলে অমাত্য (অমা+ত্য) শব্দটি গঠিত হয়েছে। অর্থাৎ

পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

এটি সংস্কৃত শব্দ। বাংলায় যা তৎসম নামে পরিচিত। ‘অমা’ অর্থ: নিকটে সঙ্গে কাছে এবং ‘ত্য’ অর্থ বিদ্যা জ্ঞান বুদ্ধি (মান্যার্থে)। ওই অভিধান মতে, অমাত্য অর্থ (বিশেষ্যে) যে নিকটে বিদ্যমান থাকে, যিনি সততই মন্ত্রণার্থ সঙ্গে সঙ্গে গমন করেন। অর্থাৎ, যিনি নিকটে থেকে বুদ্ধি, মন্ত্রণা ও পরামর্শ  প্রদান করেন তিনিই অমাত্য। তৎকালে মন্ত্রণা দেওয়ার জন্য জ্ঞানী লোকদের নির্বাচন করা হতো।  জ্ঞানী মন্ত্রণাদাতাগণ মন্ত্রণা প্রদানের জন্য শাসকদের সঙ্গে থাকতেন সবর্দা। তাই তাঁদের অমাত্য বলা হতো। বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধান মতে, তৎসম অমাত্য (অমা+ত্য) অর্থ  (বিশেষ্যে) মন্ত্রণাদাতা, মন্ত্রী, সহচর।

আমাত্য: অমাত্য ও আমাত্য পরস্পর সমার্থক। জ্ঞানেন্দ্রমোহন দাস সম্পাদিত ‘বাঙ্গালা ভাষার অভিধান’ গ্রন্থ অনুযায়ী অমাত্য শব্দের প্রাকৃত ও বাংলা হচ্ছে আমাত্য। অর্থাৎ আমাত্য শব্দটি সংস্কৃত অমাত্য হতে উদ্ভূত খাঁটি বাংলা শব্দ। এর দুটি অর্থ। প্রথমটি হচ্ছে মন্ত্রী এবং দ্বিতীয়টি হচ্ছে:  সহচর। 
জ্ঞান ও প্রজ্ঞা: জ্ঞান(গ্যাঁন): তৎসম জ্ঞান (√জ্ঞা+অন) অর্থ (বিশেষ্যে)— বোধ, বোঝার শক্তি; শিক্ষা, বিদ্যা; বিবেচনার ক্ষমতা, অভিজ্ঞতা, চেতনা, অনুধাবন ক্ষমতা প্রভৃতি।
প্রজ্ঞা (প্রোগ্‌গাঁ): তৎসম প্রজ্ঞা [প্র+√জ্ঞা+অ+আ(টাপ)] অর্থ (বিশেষ্যে)— প্রগাঢ় জ্ঞান, তত্ত্বজ্ঞান। জ্ঞান বা বিদ্যা কিংবা বোঝার ক্ষমতা যখন নিবিড় প্রাগাঢ় এবং গভীর হয় তখন সেটি হয় প্রজ্ঞা। বিশুদ্ধ পানি একটি রঙহীন তরল পদার্থ। এর নির্দিষ্ট ওজন ও আয়তন আছে কিন্তু আকার নেই। পানি সম্পর্কে আমি আর কিছু জানি না। এটি হচ্ছে জ্ঞান। পানির রাসায়নিক গঠন, রাসয়নিক গঠনের ব্যাখ্য, বিক্রিয়া ইত্যদি জানা হচ্ছে গবেসক।
সূত্র: বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন: প্রয়োগ ও অপপ্রয়োগ,ড. মোহাম্মদ আমীন, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

আমি শুবাচ থেকে বলছি

error: Content is protected !!