আত্মহত্যা: অভিনেতা অভিনেত্রী ও অন্যান্য

ড. মোহাম্মদ আমীন

আত্মহত্যা: অভিনেতা অভিনেত্রী ও অন্যান্য

বাংলা গানের জগতে অসংখ্য হৃদয়গ্রাহী গানের  স্রষ্টা, পুলক বন্দ্যোপাধ্যায় ১৯৯৯ খ্রিষ্টাব্দের ৭ই সেপ্টেম্বর ৬৪ বছর বয়সে  হুগলী নদীতে লঞ্চ থেকে লাফিয়ে আত্মহত্যা করেন। স্প্যালডিং গ্রে ছিলেন খ্যাতিমান কমেডিয়ান এবং লেখক। তিনি বাইপোলার

ড. মোহাম্মদ আমীন

ডিসঅর্ডারে ভুগছিলেন। ২০০৪ খ্রিষ্টাব্দের ১১ই জানুয়ারি ৬২ বছর বয়সে তিনি  নিখোঁজ হন। পুলিশ  নদী থেকে তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার করে। পুলক বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো তিনি ফেরি থেকে মাঝ নদীতে ঝাঁপ  আত্মহত্যা করেছিলেন। 

পুলক বন্দোপাধ্যায় কেন আত্মহত্যা করেছেন তা ঠিকভাবে জানা না গেলেও অনেকে বলেন, ষাটের পর তিনি আগের মতো লিখতে পারতেন না। যা তাঁকে হতাশ করে দিয়েছিল। আবার অনেকে মনে করেন, আগে যারা তার গানের জন্য অনেক প্রশংসা করতেন সবাই এড়িয়ে চলতে শরু করে।

এরূপ  শিল্প পরিমণ্ডলে জড়িত অনেকে আত্মহত্যা করেছেন। ১৯৯৬ খ্রিষ্টাব্দের ৬ই সেপ্টেম্বর ২৫ বছর বয়সে  সফল নায়ক সালমান শাহ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। আত্মহত্যা করেছিলেন বাংলাদেশের টিভি ও চলচ্চিত্রের প্রতিভাবান অভিনেত্রী ডলি আনোয়ার(ইব্রাহীম)। ড. নীলিমা ইব্রাহীম ও ড. ইব্রাহীমের মতো প্রতিথযশা দম্পতির কন্যা ডলি ইব্রাহীম ১৯৯১ খ্রিষ্টাব্দের ৩রা জুলাই  ৪৩ বছর বয়সে ঘুমের ওষুধ অথবা বিষ পানে আত্মহত্যা করেন।
২০১৩ খ্রিষ্টাব্দের ১লা জুলাই আত্মহত্যা করেন টিভি অভিনেত্রী, উপস্থাপক ও  জনপ্রিয় মডেল মিতা নূর। ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দের  ২২শে মার্চ আত্মহত্যা করেছিলেন মডেল ও অভিনেত্রী সুমাইয়া আজগর রাহা।  ‘দাদার কীর্তি’, ‘কপাল কুণ্ডলা’সহ অনেক ব্যবসাসফল সিনেমার নায়িকা কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী মহুয়া রায় চৌধুরী ১৯৮৬ খ্রিষ্টাব্দের ২২শে জুলাই নিজের দেহে আগুন দিয়ে আত্মহত্যা করেন।  ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দের ৩রা জুন  ২৫ বছর বয়সে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলিউডের অভিনেত্রী জিয়া খান।

১৯৯৩ খ্রিষ্টাব্দের ৫ই এপ্রিল  ১৯ বছর বয়সে বিয়ের এক বছর পর বহুতল ভবনের জানালা থেকে লাফিয়ে  পড়ে ভারতীয় নায়িকা দিব্যা ভারতী আত্মহত্যা করেন।  ৪৫০টি ছবির এই খ্যাতিমান শিল্পী দক্ষিণ ভারতীয় অভিনেত্রী সিল্ক স্মিতা ১৯৯৬ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর ৩৫ বছর বয়সে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। চেন্নাইয়ে তার অ্যাপার্টমেন্ট থেকে ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ক্যারিয়ারের মন্দগতি, অ্যালকোহল এবং সবশেষে প্রেমে ব্যর্থতাই  ছিল মৃত্যুর কারণ। আত্মহত্যা করেছিলেন দক্ষিণ ভারতের আরেক সফল অভিনেতা শ্রীনাথ। ২০১০ খ্রিষ্টাব্দের ২২শে জুলাই ৫৩ বছর বয়সে তিনি আত্মহত্যা করেন।

বলিউডের জনপ্রিয় ফ্যাশন মডেল ভিভেকা বাবাজিও ২০১০ খ্রিষ্টাব্দের ২৫শে জুন আত্মহত্যা করেন। কামসূত্রের বিজ্ঞাপনে  খ্যাতি পাওয়া এই মডেল  ক্যারিয়ারের ধীরগতি, আর্থিক সংকট ও প্রেমে ব্যর্থতার কারণে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। মডেল এবং টিভি অভিনেত্রী কুলজিত রানধোয়া ২০০৬  খ্রিষ্টাব্দের ৮ই ফেব্রুয়ারি জুহুতে তার নিজের অ্যাপার্টমেন্টে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। তিনি ক্যাটস সিরিজের জনপ্রিয় অভিনেত্রী ছিলেন। ওই একই সিরিজের আরেক অভিনেত্রী এবং কুলজিতের ঘনিষ্ট বান্ধবী নাফিসা জোসেফ ২০০৪ খ্রিষ্টাব্দের ২৯ জুলাই ২৬ বছর বয়সে একইভাবে আত্মহত্যা করেন।

বলিউডের  খ্যাতিমান অভিনেত্রী ছিলেন পারভীন ববি।  তিনি নিঃসঙ্গ জীবন যাপন করতেন। মৃত্যু হয় ২০০৫ খ্রিষ্টাব্দে তিনি মারা যান। মৃত্যুর কয়েকদিন পর পুলিশ তার মৃতদেহ উদ্ধার করে। সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত ববি মদ ও মাদকে আসক্ত ছিলেন। ধারণা করা হয় তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন। 

খ্যাতিমান চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিচালক মনমোহন দেশাই  ৫৭ বছর বয়সে  ১৯৯৪ খ্রিষ্টাব্দের ১লা মার্চ আত্মহত্যা করেন । ‘নাসিব’, ‘কুলি’, ‘মার্দ’, ‘অমর আকবর অ্যান্থোনি’র মতো ব্যবসাসফল ছবির পরিচালক মনমোহন দেশাই তার ফ্ল্যাটের ব্যালকনি থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেন।  হিন্দি সিনেমার স্বর্ণযুগের অভিনেতা, পরিচালক, প্রযোজক গুরু দত্ত ১৯৬৪ খ্রিষ্টাব্দের ১০ই অক্টোবর অ্যালকোহলের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ পান ৩৯ বছর বয়সে আত্মহত‍্য্যা তিনি। এর আগেও দুবার আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছিলেন তিনি।

হলিউডে খ্যাতি পাওয়া ল্যাটিন মেক্সিকান অভিনেত্রী লুপে ভেলেজ ।অভিনেত্রী  লুপে ভেলেজ বিয়ের আগে গর্ভবতী হয়ে পড়েছিলেন। প্রেমক হ্যারল্ড মারেশ  বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানালে অন্তঃস্বত্তা লুপে ভেলেজ ১৯৪৪ খ্রিষ্টাব্দের ১৩ই ডিসেম্বর ৩৬ বছর বয়সে আত্মহত্যা করেন মেক্সিকান অভিনেত্রী লুপে ভেলেজ। হলিউডের আরেক খ্যাতিমান অভিনেত্রী ডায়ানা ব্যারিমোর। তিনি অ্যালকোহলের সঙ্গে মাত্রাতিরিক্ত ঘুমের বড়ি গ্রহণ করে ১৯৬০ খ্রিষ্টাব্দের  ২৫শে জানুয়ারি ৩৮ বছর বয়সে মারা যান। নব্বইয়ের দশকের খ্যাতিমান টিনএজ অভিনেতা জোনাথন ব্র্যানডিস  ২০০৩ খ্রিষ্টাব্দের ১২ই নভেম্বর ২৭ বছর বয়সে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। 

বিখ্যাত অভিনেতা ক্যারল ও’কনরের দত্তকপুত্র সুদর্শন তরুণ অভিনেতা হিউ ও’কনর আত্মহত্যা করেন ১৯৯৫ সালে। কিশোর বয়সে ক্যান্সারে আক্রান্ত হন তিনি। চিকিৎসায় ক্যান্সার থেকে মুক্তি পেলেও ব্যথানিরোধক ঔষধের ওপর নির্ভরশীল ছিলেন তিনি। তিনি নিজে বলে যান যে আসক্তির সঙ্গে সংগ্রামে ক্লান্ত হয়ে তিনি চিরমুক্তির পথ বেছে নিচ্ছেন।

হলিউডের আরেক খ্যাতিমান কমেডি অভিনেতা ফ্রেডি প্রিনজ ১৯৭৭ খ্রিষ্টাব্দে মাত্র ২২ বছর বয়সে নিজের মাথায় পিস্তল দিয়ে গুলি করে আত্মহত্যা করেন। আত্মহত্যার কারণ ছিল মাদকাসক্তি।  সর্বকালের সেরা আবেদনময়ী অভিনেত্রী মেরিলিন মনরোর  ১৯৬১ খ্রিষ্টাব্দে তাঁর তৃতীয় স্বামী লেখক আর্থার মিলারের সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটে।  ১৯৬২ খ্রিষ্টাব্দের ৫ই অগাস্ট মাত্রাতিরিক্ত বারবিচুরেট সেবনের ফলে মৃত্যু তাঁর মৃত্যু হয়।

কিছু প্রয়োজনীয় পোস্ট

শুবাচ গ্রুপের লিংক: www.draminbd.com
তিনে দুয়ে দশ: শেষ পর্ব ও সমগ্র শুবাচ লিংক
এই পোস্টের ওয়েব লিংক: কিছু প্রয়োজনীয় পোস্ট

error: Content is protected !!