আল্লাহ, খোদা, ঈশ্বর, গড; ভগ, ভগবান ও দেবতা; অলাতচক্র এবং ওঙ্কার

 মোহাম্মদ আমীন
সংযোগ: https://draminbd.com/আল্লাহ-খোদা-ঈশ্বর-গড-ভগ-ভগ/
ঈশ্বর: বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানে সংস্কৃত ঈশ্বর (√ঈশ্+বর) শব্দের দুটি পৃথক ভুক্তি রয়েছে। প্রথম ভুক্তিমতে, ঈশ্বর অর্থ (বিশেষ্যে) আল্লাহ, খোদা, বিধাতা, সৃষ্টিকর্তা, স্রষ্টা, God। দ্বিতীয় ভুক্তিমতে, ঈশ্বর অর্থ (বিশেষ্যে) অধিপতি, প্রভু; প্রণয়ী, হৃদয়েশ; গুরু, দেবতার স্থান বা তীর্থক্ষেত্র জ্ঞাপক চিহ্নবিশেষ ‘ ঁ ‘ এবং (বিশেষণে) শ্রেষ্ঠ, প্রধান।
.
ভগ: সংস্কৃত (√ভজ্+অ) অর্থ (বিশেষ্যে) ছয়টি ঐশী গুণ (ঐশ্বর্য, বীর্য, যশ, শ্রী, জ্ঞান ও বৈরাগ্য); সৌভাগ্য, সৌন্দর্য, মাহাত্ম্য, ধর্ম, মোক্ষ। যোনি (ভগাঙ্কুর), মলদ্বার (ভগন্দর)। চাঁদ, সূর্য।
.
ভগবৎ: সংস্কৃত ভগবৎ (ভগ+বৎ) অর্থ (বিশেষ্যে) ভগবান, ঈশ্বর।
.
ভগবান: ঐশ্বর্য, বীর্য, যশ, শ্রী, জ্ঞান ও বৈরাগ্য নামের ছয় বা ষড়্‌গুণের অধিকারী সত্তাকে ভগাবান বলা হয়। অভিধানমতে, সংস্কৃত ভগবান (ভগ+বৎ) অর্থ (বিশেষ্যে) যিনি ষড়গুণের অধিকারী, পরমেশ্বর; (বিশেষণে) পূজ্য। স্ত্রীলিঙ্গে ভগবতী।
.
দেবতা: অভিধানমতে, সংস্কৃত দেবতা (দেব+তা) অর্থ (বিশেষ্যে) ভগবান, দেবদেবী। অর্থাৎ, দেবতা ও ভগবান সমার্থক। উভয়কে ষড়্‌গুণের অধিকারী হতে হয়।
.
অতএব, ঈশ্বর ও ভগবান এক নন। দুটি ভিন্ন সত্তা। ভগবান অনেক হতে পারেন, ঈশ্বর কিন্তু অদ্বিতীয়। তবে, ভগবান ও দেবতা সমার্থক।

অলাতচক্র এবং ওঙ্কার

অলাতচক্র: সংস্কৃত অলাতচক্র (অলাত+চক্র) অর্থ— (বিশেষ্যে) জ্বলন্ত বস্তুকে ঘোরালে চক্রাকারে যে অগ্নিবলয় দেখা যায়, বহ্নিবলয়। অনুরূপ শব্দ— অলাতশিলা।
.
অলাত অর্থ— (বিশেষ্যে) জলন্ত কয়লা বা অঙ্গার। আলাত অর্থ— (বিশেষ্যে) জ্বলন্ত অঙ্গার; (বিশেষণে) জ্বলন্ত অঙ্গারসম্বন্ধীয়।
আহমদ ছফার একটি উপন্যাসের নাম অলাতচক্র।
.
ওঙ্কার: সংস্কৃত ওঙ্কার (ওম্‌+√কৃ+অ) অর্থ— (বিশেষ্যে) ঈশ্বরবাচক ধ্বনি, বাদ্যযন্ত্রবিশেষ। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস এটি পৃথিবীর আদি শব্দ। শব্দই ব্রহ্ম। এটি ব্রহ্ম শব্দ।
হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ঈশ্বরবাচক প্রতীক হিসেবে ব্যবহৃত অ-উ-ম্ বা ওম= প্রণব=ওঙ্কার। বৈদিক সাহিত্যে মেঘের শব্দের(মেঘধ্বনি) দেবী সরস্বতী –মাধ্যমিকা বাক্ প্রভৃতিও ওঙ্কার হিসেবে চিহ্নিত।
.
error: Content is protected !!