উত্তরীয় উত্তরি: ডেঙ্গু ডেঙ্গি (dengue): বাঁশবনে ডোম কানা: হিঞ্জির জিঞ্জির: নিরপেক্ষ

ড. মোহাম্মদ আমীন
 
 
সংযোগ: https://draminbd.com/উত্তরীয়-উত্তরি-ডেঙ্গু-ডে/
উত্তরীয় উত্তরি
 
সংস্কৃত উত্তরীয়(উত্তর+ঈয়) অর্থ— (বিশেষ্যে) উড়ানি, চাদর, উপবীতের মতো পরিহিত বস্ত্র;  অতিথিবৃন্দের সম্মানে প্রদেয় চাদর বা মাফলার। উত্তরীয় তৎসম শব্দ।
উত্তরীয় শব্দের সমার্থক— উত্তরি। উত্তরি, উত্তরীয় হতে উদ্ভূত খাঁটি বাংলা শব্দ। তাই উত্তরি বানানে ই-কার। শীতে সাধারণ লোকের বহুল ব্যবহৃত মাফলারকে, চাদর বা উত্তরীয় কথার সমার্থক বলা যায়।
মৌসুমী বায়ু বা সূর্যতাপের কারণে উত্তর দিক প্রভাবিত পোশাক পরিধানের অভ্যাস কিংবা আবশ্যকতা থেকে চাদর বা উড়ানি অর্থদ্যোতক উত্তরীয় শব্দের উদ্ভব। আসলে এটি চাদর শব্দের মঞ্জুভাষ।  
শীতের বাতাস উত্তর দিক থেকে প্রবাহিত হয়ে বঙ্গদেশে আসে। তার সঙ্গে আসে শীত। তাই উত্তর হতে আগত শীত নিবারণের জন্য গায়ে চাদর জড়াতে হয়। ফলে চাদর-এর আরেক নাম হয়ে যায়: উত্তরীয় বা উত্তরি। 
তবে এখন উত্তরীয় একটি বিশেষ অর্থ ধারণ করছে। সাধারণ লোকজন উত্তরীয় বলতে চাদর বুঝে না। বুঝে চাদরজাতীয় উপহার। বিভিন্ন উৎসবে সম্মানিত অতিথিবৃন্দকে সম্মান বা উপহারস্বরূপ যে আকর্ষণীয় চাদর প্রদান করা হয় সেটিই সাধারণত উত্তরীয়।
অর্থাৎ উত্তরীয় হচ্ছে— চাদর বা উড়ানির ঔৎসবিক নাম।
সাধারণ লোকজন যা পরেন তা চাদর। নানা উৎসবে অসাধারণ লোকদের উপহারস্বরূপ যা প্রদান করা হয় সেটি উত্তরীয়।
বিভিন্ন উৎসবে সম্মানিত অতিথিবৃন্দকে সম্মান বা উপহারস্বরূপ উৎসব কর্তৃপক্ষের পরিচয়জ্ঞাপক যে আকর্ষণীয় চাদর প্রদান করা হয় সেটিই সাধারণত উত্তরীয়। অর্থাৎ উত্তরীয় হচ্ছে— চাদর বা উড়ানির ঔৎসবিক নাম। শীতে বহুল ব্যবহৃত মাফলার চাদর বা উত্তরীয় কথার আরেকটি সমার্থক শব্দ।
 
উত্তরীয় কথার শাব্দিক অর্থ— উত্তরবিষয়ক, উত্তরদিক হতে, উত্তরদিকসংক্রান্ত, উত্তরদিকের কার্যক্রম হতে সৃষ্ট প্রভৃতি। কিন্তু প্রয়োগিক অর্থ উড়ানি, চাদর প্রভৃতি।
 
ডেঙ্গু ডেঙ্গি (dengue)
স্প্যনিশ উৎসের বাংলা শব্দ ডেঙ্গু অর্থ— (বিশেষ্যে) এডিশ মশাবাহিত ভাইরাসজনিত ক্রান্তীয় অঞ্চলের প্রাণাঘাতী রোগবিশেষ যা হলে রক্তক্ষরণ-সহ গাঁট ও মাংসপেশিতে তীব্র যন্ত্রণা অনুভূত হয়। ইংরেজিতে যাকে বলা হয়: dengue. ইংরেজি ভাষায় এর উচ্চারণ ডেঙ্গি (Den-gee)) এবং স্প্যানিশ ভাষায় দেঙ্গি। তবে বাংলায় শব্দটির উচ্চারণ ডেঙ্গু। ডেঙ্গু স্প্যানিশ শব্দ নয়। স্প্যানিশ উৎসের বাংলা শব্দ।
 
বাঁশবনে ডোম কানা
‘বাঁশবনে ডোম কানা’ প্রবাদটির আক্ষরিক অর্থ— বাশঁবনে ডোম অন্ধ। এর আলংকারিক ও প্রায়োগিক অর্থ— অধিক সংখ্যক উপযুক্ত বিকল্প থাকলে যথার্থ একটি নির্বাচনে নির্বাচক দিশেহারা বা হতভম্ব হয়ে যায়। অত্যধিক সংখ্যক উপযুক্ত বিকল্প বিড়ম্বনার সৃষ্টি করে, সিদ্ধান্ত গ্রহণে সংশয় সৃষ্টি করে।  ডোম বাশ নিয়ে কাজ করে। তাই সব ধরনের বাঁশ কিংবা বাঁশের গুণাগুণ সম্পর্কে তার ভালো ধারণা সৃষ্টি হয়। কিন্তু বাঁশবিষয়ে অভিজ্ঞ ডোম যখন বাঁশ বনে যয়, তখন বহুসংখ্যক বাঁশ থেকে উপযুক্ত একটি বেঁছে নিতে গিয়ে হিমশিম খেয়ে যায়।  বহু বাঁশের মধ্যে ভালো বাঁশ বেছে নিতে গিয়ে দ্বিধায় পড়ে যায়— কোনটা ছেড়ে কোনটা নিই।  
 
হিঞ্জির কী, শব্দটির উচ্চারণ কেমন
যে শিকল বা যে মোটা দড়ি দিয়ে হাতির পা বাঁধা হয়— তাকে এককথায় হিঞ্জির বলা হয়। হিঞ্জির খাঁটি বাংলা শব্দ। সংষ্কৃত হিণ্ডীর থেকে শব্দটির উদ্ভব। হিঞ্জির বাক্যে সাধারণত বিশেষ্যে হিসেবে ব্যবহৃত হয়। উচ্চারণ: হিন্‌জির। তুল্য শব্দ জিঞ্জির। এটি ফারসি উৎসের বাংলা শব্দ। অর্থ— শিকল, শৃঙ্খল, বন্ধন, কারাগার। উচ্চারণ: জিন্‌জির।
 
“দ্বারে বাজে ঝঞ্ঝার জিঞ্জীর (জিঞ্জির),
খোলো দ্বার ওঠো ওঠো বীর!” (নজরুল)
 
 
নিরপেক্ষ শব্দের বিশেষ্য
বাক্যে বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত তৎসম নিরপেক্ষ (নির+অপেক্ষা) অর্থ— পক্ষপাতদুষ্ট নয় এমন, স্বতন্ত্র (দলনিরপেক্ষ), উদাসীন (বিষয়নিরপেক্ষ)। এর বিশেষণ নৈরপেক্ষ্য (নিরপেক্ষ+য)। অর্থ— নিরপেক্ষতা।
 
 
 
শুবাচ গ্রুপের সংযোগ: www.draminbd.com
শুবাচ যযাতি/পোস্ট সংযোগ: http://subachbd.com/
আমি শুবাচ থেকে বলছি
— — — — — — — — — — — — — — — — —
প্রতিদিন খসড়া
error: Content is protected !!