এল স্যালভেডর (El Salvador) : ইতিহাস ও নামকরণ

কীভাবে হলো দেশের নাম ( উত্তর আমেরিকা)

ড. মোহাম্মদ আমীন

এল স্যালভেডর (El Salvador)

এল সালভাদর মধ্য আমেরিকাতে প্রশান্ত মহাসাগরের উপকূলে অবস্থিত একটি প্রজাতান্ত্রিক রাষ্ট্র। এর উত্তরে হন্ডুরাস, পশ্চিমে গুয়েতেমালা এবং বাকি তিনদিকে প্রশান্ত মহাসাগর। জনসংখ্যার বিচারে মধ আমেরিকার  দেশগুলির মধ্যে গুয়াতেমালার পরে এর অবস্থান। দুই আমেরিকার মহাদেশের সবচেয়ে

প্রকাশক: পুথিনিলয়। উত্তর আমেরিক।

ঘনবসতিপূর্ণ দেশগুলোর মধ্যে এটি দ্বিতীয়।  দেশের জনসংখ্যার প্রায় এক-তৃতীয়াংশ সান সালভাদর মট্রোপলিটান এলাকায় বাস করেন। এল সালভাদরের আয়তন ২১,০৪৪ বর্গকিলোমিটার বা ৮,১২৪ বর্গমাইল। তন্মধ্যে জলীয় ভাগের পরিমাণ ১.৪ ভাগ। ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দের  হিসাবমতে মোট জনসংখ্যা ৬২,৯০,৪২০ এবং প্রতি বর্গকিলোমিটারে জনসংখ্যা ৩৪১.৫ জন। আয়তন বিবেচনায় এটি পৃথিবীর ১৫৩-তম বৃহত্তম দেশ কিন্তু মোট জনসংখ্যা বিবেচনায় ৯৯-তম। তবে জনসংখ্যার ঘনত্ব বিবেচনায় এটি পৃথিবীর ৪৭-তম জনবহুল দেশ।

স্পেনিশ ভাষায় এল সালভ্যাদর শব্দের অর্থ খ্রিস্ট বা ত্রাণকর্তা (The Savior)। খ্রিস্টান বিশ্বে ত্রাণকর্তা বলতে যিশু খ্রিস্টকে বুঝান হত। বিজেতা পেড্রো ডি আলভারাডো (Pedro de Alvarado) যিশু ক্রিস্টের নামানুসারে নতুন পাওয়া ভূখণ্ডটির নাম রাখেন এল সালভেদর। এর পূর্ণ নাম ছিল প্রভিন্সিয়াল ডে নুয়েস্ট্রো সেনর জেসাস ক্রিস্টো, এল সালভেদর ডেল মুনডো (Provincia De Nuestro Señor Jesus Cristo, El Salvador Del Mundo)। যার বাংলা আমাদের প্রভু যিশু খ্রিস্টের প্রদেশ, ত্রাণকর্তা, বিশ্বের ত্রাণকর্তা। যা সংক্ষেপে লেখা হয় এল সালভেদর (ত্রাণকর্তা বা যিশু)। তখন নামায়িত এ এলাকাটি ছিল স্পেনিশ কিংডম অব গুয়েতেমালা। এটি গঞ্জালো ডি আলভারাডো ১৫২৫ খ্রিষ্টাব্দের  ১ এপ্রিল মাসে প্রতিষ্ঠা করেন। প্রতিষ্ঠা করা হয়।

দেশটির ভূপ্রকৃতির অধিকাংশই আগ্নেয় পর্বতসারি নিয়ে গঠিত। ফলে এখানে কফি চাষ খুবই সুবিধাজনক। বিগত এক শতক কফি রপ্তানি করে প্রাপ্ত বৈদেশিক মুদ্রা দেশটির অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি। কফি-ভিত্তিক অর্থনীতির ফলে দেশে একটি ক্ষুদ্র, ধনী শাসক শ্রেণি এবং বৃহত্তর, দরিদ্র  শ্রমিক শ্রেণির সৃষ্টি হয়েছে। ১৯৮০-র দশকের পুরোটা জুড়ে দেশটিতে একটি গৃহযুদ্ধ চলে এবং দেশের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। কিন্তু ১৯৯০-এর দশকে দেশটি ধীরে ধীরে সামাজিক, রাজনীতিক ও আর্থনীতিক ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে শুরু করে। সান সালভাদর দেশটির রাজধানী ও বৃহত্তম শহর।

এল সালভাদর ১৮২১ খ্রিষ্টাব্দের  ১৫ সেপ্টেম্বর স্পেন হতে স্বাধীনতা ঘোষণা করে। ১৮২৩ খ্রিষ্টাব্দের  ১ জুলাই প্রথম মেক্সিকান সাম্রাজ্য হতে স্বাধীনতা

প্রকাশক: পুথিনিলয়। দক্ষিণ আমেরিকা।

ঘোষণা করে।  ১৮৪১ খ্রিষ্টাব্দের  ১৮ ফেব্রুয়ারি স্বাধীনতা লাভ করে। ২০১৫ খ্রিষ্টাব্দের  হিসাবমতে দেশের মোট জিডিপি (পিপিপি) ৫২.৬৬৬ বিলিয়ন ইউএস ডলার এবং মাথাপিছু আয়  ৮,৬৬৭.৮৭ ইউএস ডলার। অন্যদিকে, জিডিপি (নমিনাল) ২৮.৯৮৬ বিলিয়ন ইউএস ডলার এবং সে হিসাবে মাথাপিছু আয় ৪,৭৭৬.১২ ইউএস ডলার। মুদ্রার নাম ইউএস ডলার। রাজধানী সান সালভাদর। দেশের নাগরিকদের সালভাদোরান বলা হয়। সরকারি ভাষা স্পেন।

কোস্টারিকা ও পানামার পর এটি মধ্য আমেরিকা অঞ্চলের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ। মে হতে অক্টোবর বৃষ্টিপাত হয়। এ সময়কে বলে শীতকাল। যদিও এ সময়কে উত্তর গোলার্ধে গ্রীষ্মকাল। ২০টি অধিক আগ্নেয়গিরি রয়েছে এখানে। তাই এটাকে আগ্নেয়দ্বীপ বলা হয়। এটি আমেরিকার সবচেয়ে বেশি জনঘনত্ববহুল দেশ। তবে আয়তনের দিকে মধ্য আমেরিকার সবচেয়ে ছোট দেশ এবং এর ক্যারিবিয়ান তটরেখাহীন একমাত্র ক্যারিবীয় দেশ। মধ্য আমেরিকার সবচেয়ে বড় শপিং মল ও সবচেয়ে বড় বিমান বন্দর এখানে অবস্থিত। দেশের জনগণ খুবই বন্ধুত্বভাবাপন্ন এবং অকৃত্রিম আন্তরিকতায় সবসময় উদ্বেল থাকে। জনগণের ৬৪% শহরে বাস করে। ২০% লোক ১.২৫ ইউএস ডলার আয় নিয়ে জীবনযাপন করে। মোবাইল ফোন ব্যবহারের হার ১২৫%। মধ্য আমেরিকায় এটিই একমাত্র দেশ, যেখানে দৃশ্যত কোনো আফ্রিকান বংশোদ্ভুদ নাগরিক দেখা যায় না। কারণ এখানে উপনিবেশ আমল থেকে আইন দ্বারা আফ্রিকান বংশোদ্ভুদ লোকদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা ছিল।


উত্তর আমেরিকা (North America) : ইতিহাস ও নামকরণ

এন্টিগুয়া এন্ড বারবুডা (Antigua and Barbuda) : ইতিহাস ও নামকরণ

 দি বাহামাস (Bahamas) : ইতিহাস ও নামকরণ

বার্বাডোস (Barbados ) : ইতিহাস ও নামকরণ

বেলিজ (Belize) : ইতিহাস ও নামকরণ

কানাডা (Canada) : ইতিহাস ও নামকরণ

কোস্টারিকা (Costa Rica) : ইতিহাস ও নামকরণ

কিউবা ( Cuba) : ইতিহাস ও নামকরণ

ডোমিনকা (Dominica) : ইতিহাস ও নামকরণ

 ডোমিনিকান রিপাবলিক (Dominican Republic) : ইতিহাস ও নামকরণ

সূত্র:  কীভাবে হলো দেশের নাম, ড. মোহাম্মদ আমীন, পুথিনিলয়, বাংলাবাজার, ঢাকা।

All Link

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র

Knowledge Link

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক সকল গুরুত্বপূর্ণ সাধারণজ্ঞান লিংক

আফ্রিকা মহাদেশ : ইতিহাস ও নামকরণ লিংক

ইউরোপ মহাদেশ : ইতিহাস ও নামকরণ লিংক

এশিয়া মহাদেশ : ইতিহাস ও নামকরণ লিংক

error: Content is protected !!