কটি সহজ নিয়ম

   এবি ছিদ্দিক

১. বর্তমান অনুজ্ঞায় (আদেশ, অনুরোধ প্রভৃতি) ‘আপনি’ সম্বোধনের ক্ষেত্রে ধাতুর সঙ্গে ‘এন’ যুক্ত না-করে ‘উন’ যুক্ত করতে হয়।
অসংগত: আপনি কাজটি তাড়াতাড়ি করেন।
সংগত: আপনি কাজটি তাড়াতাড়ি করুন।
এরকম— আপনি বসুন, আপনারা শুনুন, আপনি বলুন প্রভৃতি।
২. বাক্যে অবস্থানভেদে সম্বোধন পদের পরে কিংবা আগে কমা বসাতে হবে।
অসংগত: ভাই পরীক্ষায় পাশ করেছেন?
সংগত: ভাই, পরীক্ষায় পাশ করেছেন?
অসংগত: সহমত আপা।
সংগত: সহমত, আপা।
এরকম— ধন্যবাদ, ভাই; কেমন আছেন, স্যার; ইশমান, এখন যাও প্রভৃতি।
৩. চলিত রীতিতে ক্রিয়াপদের দ্বিতীয় বর্ণ ‘হ্রস্ব-ই’ বা ‘হ্রস্ব-ই-কার’ হলে প্রথম বর্ণের ‘এ-কার’ বদলে গিয়ে ‘ই-কার’-এ পরিণত হবে। যেমন— দে > দেই > দিই; নে > নেই > নিই।
অসংগত: আমি ছাফিয়াকে কিছুই দেইনি (চলিত রীতিতে)।
সংগত: আমি ছাফিয়াকে কিছুই দিইনি।
৪. কোনো শব্দের সঙ্গে ‘তা’, ‘ত্ব’ ও ‘য’ প্রত্যয় একই অর্থে যুক্ত হয়ে নতুন শব্দ গঠন করে। তাই, কোনো শব্দের সঙ্গে এই প্রত্যয় কটি যুক্ত করে নতুন শব্দ গঠন করতে হলে কেবল একটি যুক্ত করা যাবে। একের অধিক যুক্ত করলে বাহুল্য দোষে দুষ্ট হয়ে যাবে। যেমন—
গম্ভীর > গাম্ভীর্য বা গম্ভীরতা; গাম্ভীর্যতা নয়।
সুন্দর > সুন্দরতা বা সৌন্দর্য; সৌন্দর্যতা নয়।
বন্ধু > বন্ধুত্ব বা বন্ধুতা; বন্ধুত্বতা নয়।
বহুল > বাহুল্য বা বহুলতা; বাহুল্যতা নয়।
অসংগত: ছাফিয়ার সঙ্গে আমার দীর্ঘদিনের সখ্যতা।
সংগত: ছাফিয়ার সঙ্গে আমার দীর্ঘদিনের সখ্য।
———–
error: Content is protected !!