কলাম্বিয়া (Colombia) নামকরণ ও ইতিহাস

ড. মোহাম্মদ আমীন
কলাম্বিয়া (Colombia)
স্প্যানিশ ভাষায় কলম্বিয়া শব্দের অর্থ ল্যান্ড অব কলম্বাস বা কলম্বাসের দেশ। কলাম্বিয়ার সরকারি নাম রিপাবলিক অব কলাম্বিয়া। এটি দক্ষিণ আমেরিকার উত্তরপশ্চিমে অবস্থিত। এর উত্তর-পশ্চিমে পানামা, পূর্বে ভেনেজুয়েলা ও ব্রাজিল, দক্ষিনে ইকুয়েডর ও পেরু অবস্থিত। দেশটির সঙ্গে কোস্টারিক, নিকারাগুয়া, হন্ডুরাস, জ্যামাইকা, ডমিনিকান রিপাবলিক ও হাইতির সামুদ্রিক সীমানা রয়েছে।
কলাম্বিয়ার মোট আয়তন ১১,৪১,৭৪৮ বর্গকিলোমিটার বা ৪,৪০,৮৩১ বর্গমাইল। জলীয় ভাগের পরিমাণ ৮.৮%। দেশটির মোট জনসংখ্যা ২০১৫ খ্রিষ্টাব্দের হিসাবমতে, ৪,৮২,১৯,৮২৭ এবং প্রতি বর্গকিলোমিটারে জনসংখ্যার ঘনত্ব ৪০.৭৪। আয়তন অনুপাতে কলাম্বিয়া পৃথিবীর ২৬-তম বৃহত্তম দেশ কিন্তু জনসংখ্যা অনুপাতে এর অবস্থান ২৭-তম। অন্যদিকে, জনসংখ্যার ঘনত্ব বিবেচনায় এটি পৃথিবীর ১৭৩-তম জনবহুল দেশ।২০১৫ খ্রিষ্টাব্দের হিসাবমতে, কলাম্বিয়ার জিডিপি (পিপিপি) ৬৮২.৯৭৭ বিলিয়ন ইউএস ডলার (২৮-তম) এবং সে হিসাবে মাথাপিছু আয় ১৪,১৬৪ ইউএস ডলার। কলাম্বিয়া ১৮১০ খ্রিষ্টাব্দে স্পেন হতে স্বাধীনতা ঘোষণা করে এবং ১৮১৯ খ্রিষ্টাব্দের ৭ আগস্ট স্বাধীনতা অর্জন করে। ১৯৯১ খ্রিষ্টাব্দের ৪ জুলাই বর্তমান সংবিধান গ্রহণ করা হয়। রাজধানী বোগোটা। কলাম্বিয়া ৩২টি প্রদেশ এবং ৫টি ভৌগোলিক অঞ্চলে বিভক্ত। জনসংখ্যার ৯০% লোক রোমান ক্যাথলিক। মোট আয়তনের এক-তৃতীয়াংশ আমাজান জঙ্গলে আবৃত।
দক্ষিণ আমেরিকার দেশসমূহের মধ্যে কলাম্বিয়ায় প্রথম গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ৯৯% কলাম্বিয়ান স্পেনিশ ভাষায় কথা বলেন। এ ছাড়া এখানে প্রায় ৭০টি ভাষায় কথা বলতে দেখা যায়। কলাম্বিয়া ও ইকুয়েডর বিষুব রেখাভুক্ত দেশ। কলাম্বিয়া দক্ষিণ আমেরিকার একমাত্র দেশ, যার ক্যারিবিয়ান সাগর ও প্রশান্ত মহাসাগর-দুটোর সঙ্গে তটরেখা রয়েছে। বিষুবরেখার আশেপাশে কোনো শীতকাল থাকে না। তাই কলাম্বিয়ায় কোনো শীতকাল নেই। শুধু গ্রীষ্মকাল আছে।
 
২০১৩ ও ২০১৪ খ্রিষ্টাব্দের বিশ্ব সুখী সূচক (ডড়ৎষফ’ং ঐধঢ়ঢ়রবংঃ ওহফবী) অনুযায়ী কলাম্বিয়া পৃথিবীর সুখী দেশের মধ্যে প্রথম। কলাম্বিয়ান মেয়েরা পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দরী। এ দেশের মেয়েরা প্রয়োজনে নিজেদের চেহারা বদলে নিতে দ্বিধা করেন না। পৃথিবীতে কস্মিক সার্জারির সংখ্যা বিচেনায় এর স্থান পঞ্চম। পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি সংখ্যক প্রজাতির পাখি পাওয়া যায় কলাম্বিয়ায়। এ পর্যন্ত কলাম্বিয়ায় ১৭৫৪ প্রজাতির পাখির সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। আমেরিকা মহাদেশে প্রথম মুক্ত শহর এখানে গড়ে ওঠেছিল। এর নাম সান ব্যাসিলো ডি প্যালেঙ্ক। শহরটি মুক্ত দাসদের দ্বারা প্রতিষ্ঠা হয়। ১৭১৩ খ্রিষ্টাব্দে রাজকীয় ডিক্রিতে শহরটিকে মুক্তশহর বলা হয়েছে। কলাম্বিয়াতে পৃথিবীর অন্য যে কোনো দেশের চেয়ে অধিক পান্না উৎপাদিত হয়। উন্নতমানের কফি উৎপাদনের জন্যও কলাম্বিয়া বিখ্যাত। নোবেল বিজয়ী সাহিত্যিক ও ওয়ান হান্ড্রেড ইয়ারস অব সলিচউড গ্রন্থের লেখক গ্যাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কুইজের জন্মস্থান কলাম্বিয়ার আরাকাটাকা শহরে।
error: Content is protected !!