কারাগারে বঙ্গবন্ধু কারাজীবন তেইশ বার

বঙ্গবন্ধুর প্রথম কারাবাস

বঙ্গবন্ধু স্কুলের ছাত্র অবস্থায় ১৯৩৮ খ্রিষ্টাব্দে সর্বপ্রথম কারাগারে যান। ওই সময় তিনি সাত দিন কারাভোগ করেন। ১৯৩৮ খ্রিষ্টাব্দের ১৬ই জানুয়ারি রাতে শেখ মুজিবের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়। ১৯৩৮ খ্রিষ্টাব্দের ১৭ই জানুয়ারি শেখ মুজিবকে  হাজতে নিয়ে যাওয়া হয়। সাত দিন পর তিনি মুক্তি পান।

দ্বিতীয় কারাগার

বাংলাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যদা প্রদানের দাবিতে আন্দোলন  শুরু করলে ১৯৪৮ খ্রিষ্টাব্দের ১১ মার্চ  বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি ১৯৪৮ খ্রিষ্টাব্দের ১১ই মার্চ থেকে ১৫ মার্চ পর্যন্ত তিনি পাঁচ দিন কারাগারে ছিলেন।

তৃতীয় কারাবাস

১৯৪৮ খ্রিষ্টাব্দের ১১ই সেপ্টেম্বর বঙ্গবন্ধুকে ফরিদপুরে গ্রেফতার করে কারাগারে নিয়ে যায়। ১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের ২১ শে জানুয়ারি তাঁকে মুক্তি দেওয়া হয়। এ দফায় তিনি ১৩২ দিন কারাগারে ছিলেন।

চতুর্থ কারাবাস

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের ন্যায্য দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়ে তাদের দাবি পূরণের আন্দোলন শরু করলে আওয়ামী লীগ নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের ১৯ শে এপ্রিল  গ্রেফতার করা হয়।  ৮০ দিন কারাগারে থাকার পর ১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের ২৮ শে জুন মুক্তি তিনি পান।

পঞ্চম কারাবাস

১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের অক্টোবর মাসে আর্মানিটোলা ময়দানে জনসভাশেষে দরিদ্র মানুষের খাদ্যের দাবিতে আওয়ামী লীগ ভুখা মিছিল বের করতে গেলে  আওয়ামী লীগের সভাপতি মওলানা ভাসানী, সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক ও শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয়। এ গ্রেফতারে তাঁকে ২৭ দিন কারাগারে বন্দি রাখা হয়। 

ষষ্ঠ কারাবাস

১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের ২৫শে অক্টোবর রাতে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি ১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের ২৫ শে অক্টোবর থেকে ১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের ২৭ শে ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট ৬৩ দিন কারাগারে আটক ছিলেন।

সপ্তম কারাবাস

১৯৫০ খ্রিষ্টাব্দের ১লা জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু সপ্তম বারের মতো গ্রেফতার করা হয়। এই দফায় তিনি  ১৯৫০ খ্রিষ্টাব্দের ১লা জানুয়ারি থেকে ১৯৫২ খ্রিষ্টাব্দের ২৬ শে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত  মোট ৭৮৭ দিন কারাগারে ছিলেন।

অষ্টম কারাবাস

১৯৫৪ খ্রিষ্টাব্দের ৩০ শে মে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুক্তফ্রন্ট মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে করাচি থেকে ঢাকায় প্রত্যাবর্তন করলে পাকিস্তান সরকার তাঁকে গ্রেফতার করে কারাগারে নিয়ে যায়। ১৯৫৪ খ্রিষ্টাব্দের ২৩ শে ডিসেম্বর তিনি মুক্তি লাভ করেন।  এ দফায় বঙ্গবন্ধুকে ২০৬ দিন কারাবাস করতে হয়।

নবম কারাবাস

১৯৫৮ খ্রিষ্টাব্দে মোহাম্মদ আইয়ুব খান সামরিক শাসন জারি করেন। ওই বছর ১৯৫৮ খ্রিষ্টাব্দের ১২ই অক্টোবর বঙ্গবন্ধুকে আবার গ্রেপ্তার করা হয়। চৌদ্দ মাস বন্দি থাকার পর তাকে আবার গ্রেফতার করা হয়। তিনি ১৯৬০ খ্রিষ্টাব্দের ৭ই ডিসেম্বর হাইকোর্টে রিট আবেদন করে  মুক্তি পান। এ দফায় তাঁকে এক ১১৫৩ দিন কারাগারে কাটাতে হয়। এটিই বঙ্গবন্ধুর একটানা সবচেয়ে বেশি দিন (৩ বছরের বেশি) কারাগারা-বাস।

দশম কারাবাস

১৯৬২ খ্রিষ্টাব্দের ৬ই জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুকে জননিরাপত্ত আইনে গ্রেফতার করা হয়।  এই বার তাঁকে ১৫৮ দিন কারাগারে আটকে রেখে  ১৯৬২ খ্রিষ্টাব্দের ১৮ই জুন মুক্তি  দেওয়া হয়।

একাদশ থেকে   তেইশতম করাবাস

১৯৬৪ ও ১৯৬৫ খ্রিষ্টাব্দে বঙ্গবন্ধু ১৩ বার গ্রেফতার হন। এই তের বারো বিভিন্ন মেয়াদে তিনি মোট ৬৬৫ দিন কারাগারে বন্দি ছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর কারাজীবন

এগারো দফা

error: Content is protected !!