কুক্ষিগত ও খামচাখামচি

ড. মোহাম্মদ আমীন

কুক্ষিগত ও খামচাখামচি

কুক্ষিগত

সংস্কৃত ‘কুক্ষি’ থেকে ‘কুক্ষিগত’ শব্দের উদ্ভব। ‘কুক্ষি’— অর্থ উদর, গর্ত ইত্যাদি। সুতরাং, যা উদরে গত বা উদরে প্রবিষ্ট তাই কুক্ষিগত। এর মূল অর্থ— উদরগত, ভক্ষিত। যা খাওয়ার পরে হজম হয়ে গেছে তাই কুক্ষিগত।
তবে বাংলায় শব্দটি মূল অর্থে প্রয়োগ হয় না। অন্তর্নিহিত বা আলংকারিক অর্থে ব্যবহৃত হয়। অধুনা, ‘ক্ষমতা ও সম্পত্তি কুক্ষিগত করা’ প্রকাশে শব্দটির বহুল ব্যবহার লক্ষণীয়।

খামচাখামচি

আরবি খামশ/খামসাহ থেকে বাংলা খামচাখামচি শব্দের উদ্ভব । খামশ/খামসাহ অর্থ— পাঁচ। মানুষের একটি হাতে পাঁচটি আঙুল রয়েছে। পাঁচটি আঙুল দিয়ে আঘাত করা হলে আঘাতকারীর শরীরে পাঁচ আঙুলের দাগ স্পষ্ট হয়ে ওঠে। বস্তুত এ পাঁচ আঙুল দিয়ে আঘাত করা এবং আঘাতকারীর শরীরের পাঁচ আঙুলের দাগ হতে বাংলা খামচাখামচি শব্দের উদ্ভব। খামচাখামচি ছাড়াও বাংলায় খামচা শব্দের আরও বহুবিধ ব্যবহার রয়েছে। যেমন: এক খামচা চিনি, পেট খামচানো প্রভৃতি।
প্রসঙ্গত, পাঁচ আঙুল দিয়ে আঘাত বা খোঁচা না-দিলে তা খামচাখামচি হবে না। একজন খামচা দিল একবার আর একজন কিছুই করল না অথবা শুধু একবার খামচা দিয়ে থেমে গেল— তা কিন্তু খামচা দেওয়া হবে। খামচাখামচি হবে না। খামচাখামচি বহুবচনাত্মক শব্দ। তাই এর ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া আবশ্যক। বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, আরবি খামচাখামচি অর্থ— (বিশেষ্যে) পরস্পর নখ দিয়ে আঘাত, আঁচড়া-আঁচড়ি।
——————–
শুবাচ গ্রুপের লিংক: www.draminbd.com

error: Content is protected !!