কুচ, স্তন, স্তনের বোঁটা, স্তনের তটরেখা, কুচকাওয়াজ, গৃহবলিভুক, গেঁতো: কখন অ-কার এবং কখন আ-কার

ড. মোহাম্মদ আমীন
সংযোগ: https://draminbd.com/কুচ-স্তন-স্তনের-বোঁটা-স্ত/
কুচ কুচ কুচ: অভিধানে কুচ শব্দের তিনটি পৃথক অর্থ দেখা যায়। প্রথম: তৎসম কুচ, দ্বিতীয়: ধ্বন্যাত্মক কুচ এবং তৃতীয়: ফারসি কুচ। বাংলায় ফারসি কুচ শব্দের স্বাধীন ব্যবহার বিরল। তবে কুচকাওয়াজ শব্দটি বহুল ব্যবহৃত। 
তৎসম কুচ: তৎসম (√কুচ্+অ) অর্থ (বিশেষ্যে) স্তন, পয়োধর। উচ্চারণ: কুচ্‌। এই কুচ থেকে এসেছে কুচতট (উচ্চারণ: কুচোতট্‌) এবং কুচাগ্র (উচ্চারণ: কুচাগ্‌গ্র)। তৎসম কুচতট অর্থ (বিশেষ্যে) স্তনের তটরেখা (তোমার কুচতটে আমার শিহরিত তরি বারবার থেমে যায় . . .), contour, বিশাল কুচ। কুচাগ্র অর্থ (বিশেষ্যে) স্তনের অগ্রভাব বা বোঁটা।
ধ্বন্যাত্মক কুচ:  ধ্বন্যাত্মক কুচ অর্থ (অব্যয় ও বিশেষ্যে) ধারালো অস্ত্রের সাহায্যে নরম জিনিস কাটার অনুকার শব্দ। দিদির তরকারি কাটার কুচ শব্দে মমতার পরশ।
ফারসি কুচ: ফারসি উৎসের কুচ অর্থ (বিশেষ্যে) সৈন্যদের যুদ্ধযাত্রা বা দলবদ্ধভাবে একস্থান থেকে অন্যস্থানে গমন। ফারসি কুচ আর আরবি কাওয়াজ মিলে কুচকাওয়াজ। অর্থ (বিশেষ্যে) সৈন্যদের দলবদ্ধ ব্যায়াম ও রণকৌশলাদি অনুশীলন।
গৃহবলিভুক: যেসব পাখি গৃহ বা গৃহের কাছাকাছি থেকে গৃহের ওপর নির্ভর করে জীবনধারণ করে সেসব পাখিকে এককথায় প্রকাশ করার মতো কোনো শব্দ বাংলায় আছে কী? আছে। যেসব পাখি গৃহ বা গৃহের কাছাকাছি থেকে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে গৃহ হতে প্রাপ্ত খাদ্য খেয়ে জীবনধারণ করে সেসব পাখিকে এককথায় গৃহবলিভুক বলা হয়। যেমন: কাক কবুতর চড়ুইপাখি প্রভৃতি গৃহবলিভুক
গেঁতো: অলস কথার একটি উপহাসমূলক প্রতিশব্দ কী হতে পারে? অলস কথার একটি উপহাসমূলক প্রতিশব্দ হতে পারে গেঁতো। এটি দেশি শব্দ। অর্থ (বিশেষণে) অলস। এরূপ প্রতিশব্দ আরও থাকতে পারে।

কখন অ-কার এবং কখন আ-কার: “কিছু বানান করতে যেয়ে প্রায়ই দ্বিধান্বিত হয়ে যাই যেমন- তথ্যনুসারে নাকি তথ্যানুসারে শর্তনুযায়ী নাকি শর্তানুযায়ী নয়নভিরাম নাকি নয়নাভিরাম আসলে দুটি শব্দ যোগ করার সময় কখন মাঝখানে া- কার দিতে হয় আর কখন দিতে হবে না সেটা বুঝতে সমস্যা।” অ/আ-এর পর অ বা আ থাকলে উভয়ে মিলে আ হয় এবং ওই আ প্রথম পদের শেষ বর্ণে যুক্ত হয়। যেমন:

বিদ্যা+আলয়= বিদ্যালয়
হিম+আচল= হিমাচল
তথ্য+অনুসারে= তথ্যানুসারে
তথ্য+অনুসন্ধান= তথ্যানুসান্ধান
তথ্য+অভিজ্ঞ= তথ্যাভিজ্ঞ
শর্ত+অনুযায়ী= শর্তানুযায়ী
নয়ন+অভিরাম= নয়নাভিরাম।
প্রথম পদের শেষে অ উচ্চারিত না হলে বা হলন্ত উচ্চারণ হলে অ-কার হবে।
যেমন: দুর্‌+অবস্থা। প্রথম পদে অ নেই। তাই কেবল অবস্থা শব্দের অ থেকে গেছে। অনুরূপ:
তদ্+অতিরিক্তি= তদতিরিক্ত।
তদ্‌+অনুপাত= তদনুপাত।
এক্ষেত্রে শেষ পদের প্রথম বর্ণে যে স্বার থাকে তা প্রথম পদের শেষ বর্ণে যুক্ত হবে। যেমন:
পুনর্‌+আবৃত্তি= পুনরাবৃত্তি।
পুনর্‌+উত্থান= পুনরুত্থান।
পুনর্‌+নির্মাণ= পুনর্নির্মাণ।
—  —  —  —  —  —  — —  —  —  —  —  —  — —  —  —  —  —  —  — —  —  —  —  —  —  — —  —  —  —  —  — 
জানা অজানা অনেক মজার বিষয়: https://draminbd.com/?s=অজানা+অনেক+মজার+বিষয়
শুবাচ গ্রুপের সংযোগ: www.draminbd.com
শুবাচ যযাতি/পোস্ট সংযোগ: http://subachbd.com/
আমি শুবাচ থেকে বলছি
Language
error: Content is protected !!