কেলেন: কেলেন গাই, পেঁড়োর ফকির, পেঁতের বৈদ্য, পূগফল

ড. মোহাম্মদ আমীন
কেলেন:কেলেন’ শব্দটি বাক্যে বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু ‘কেলেন গাই’ কথাটি বিশেষ্য। “যে গাই বা গাভি বছরবিয়ানি নয়, কিন্তু দুধ দেয়” তাকে এককথায় কেলেন গাই বলা হয়। কেলেন গাই অন্যান্য সাধারণ গাইয়ের তুলনায় অধিক মূল্যের হয়।
“গোয়ালে তার কেলেন গাই, তাই কোনদিন দুধের অভাব হয় না।” বিশ্বনাথ জোয়ারদার, অচলন্তিকা
পেঁড়োর ফকির: ভারতের পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশের হুগলি জেলার পাণ্ডুয়া স্টেশনের কাছে পেঁড়ো নামক স্থানে অবস্থিত মুসলমানদের ধর্মীয় স্থানের ফকিরদের পেঁড়োর ফকির বলা হয়।
“কখনও হও সত্যপীর, কখনও পেঁড়োর ফকির।” — গোপাল উড়ের গান, গোপাল উড়ে
.
পেঁতের বৈদ্য: চিকিৎসা সম্বন্ধে জ্ঞানহী বাক্‌সর্বস্ব বৈদ্য। এরা চিকিৎসাবিষয়ক কোনো জ্ঞান নেই, কিন্তু যে-কোনো রোগের চিকিৎসা করে রোগীকে সুস্থ করতে পারার দাবি করে তাদের পেঁতের বৈদ্য বলা হয়। এরা অনেকটা হাতুড়ে ডাক্তারের মতো।
… যে সকল কবিরাজ থলী হাতে করিয়া রাস্তায়২ বেড়ায় তাহারাই গরীব দুঃখিরদিগকে দেখিতে আইসে। কোন বৈদ্য রোগ নিরূপণ করিলেক কিন্তু ঔষধির ব্যবস্থা করিতে পারে না কেহ বা ঔষধি করিতে জানে নাড়ী জ্ঞান নাই কাহারোবা শাস্ত্রজ্ঞান নাই কেবল পেঁতের বৈদ্য. . .।” সমাচার দর্পণ, ১লা সেপ্টেম্বর ১৮২১।
পেটপোড়া: গর্ভনিরোধক ওষুধ।  এই ওষুধ তৈরিতে সেকালে চিতের ডাল, ইশের মূল ইত্যাদি ব্যবহার হতো। তখনকার দিনে আধুনিক গর্ভনিরোধক ওষুধ ছিল না। পেটপোড়া খেয়ে গর্ভনিরোধের ব্যবস্থা করা হতো। 
“পোড়া দেশে পোড়া হাটে,
পেটপোড়া কি মেলে না।।” গোপাল উড়ে
“পেটপোড়া কে দেবে তারে বন্ধ করতে ছেলে।” তাজ্জব ব্যাপার, অমৃতলাল বসু।
পূগফল: বাক্যে বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত পূগফল অর্থ: গুয়া, গুবাক, সুপারি। প্রধানত পানের সঙ্গে চিবিয়ে খাওয়ার মুখ শুদ্ধীকরণ ফলবিশেষ বা তার গাছ, গুবাক, গুয়া, পূগফল। শব্দটির ব্যবহার এখন আর দেখা যায় না।
“হরদ দূব দধি পল্লব ফূলা ৷
পান পূগফল মংগল মূলা ৷৷
সফল পূগফল কদলি রসালা ৷
রোপে বকুল কদংব তমালা ৷” রামচরিতমানস
জানা অজানা অনেক মজার বিষয়: https://draminbd.com/?s=অজানা+অনেক+মজার+বিষয়
শুবাচ গ্রুপের সংযোগ: www.draminbd.com
শুবাচ যযাতি/পোস্ট সংযোগ: http://subachbd.com/
error: Content is protected !!