গরু ও গোরু

প্রমিতা দাশ লাবণী
Cow শব্দের বাংলা ‘গরু’ না ‘গোরু’ এ নিয়ে অনেকের সংশয়। বানান নিয়ে সংশয় অমূলক নয়। কারণ ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দের আগেও লেখা হয়েছে গরু। তাহলে আবার ‘গোরু’ কেন?

প্রমিতা দাশ লাবণীবাংলা ভাষার আদি হতে বিষয়টি বিশ্লেষণ করা যায়। পঞ্চাশটি চর্যাপদের মধ্যে ‘গরু’ শব্দ নেই। মধ্যযুগের কাব্যে Cow এর বাংলা অর্থ হিসেবে ছয় রকম বানান পাওয়া যায়। সেগুলো হচ্ছে : গরু, গরুঅ, গরূ, গোরু, গোরো, গো।
১৪৫০ -১৫০০ খ্রিষ্টাব্দে বড়ু চণ্ডীদাস লিখেছেন গরু, গরূ, গোরো এবং বিদ্যাপতি লিখেছেন ‘গরুঅ’। ১৫০০ খ্রিষ্টাব্দে মালাধর বসু লিখেছেন ‘গোরু’, ১৬০০ খ্রিষ্টাব্দে মুকুন্দ দাস লিখেছেন ‘গোরু’ এবং ১৯২৭ খ্রিষ্টাব্দে নজরুল ইসলাম লিখেছেন ‘গোরু। ১৯২৯/৩০ খ্রিষ্টাব্দে রবীন্দ্রনাথের লেখাতেও ‘গোরু’ বানান দেখা যায়। যদিও পরে তিনি ‘গরু’ লিখতে শুরু করেন।পশ্চিমবঙ্গেও সে সূত্রে গরু প্রচলিত হয়ে যায়। যদিও সুনীতিবাবু লিখতেন গোরু।রবীন্দ্রনাথ ‘গরু’ লেখাতে ওই বানানটিই বহুল প্রচলিত হয়ে পড়ে।

গো (সংস্কৃত, গম+ও) / গোরু/গরু (সংস্কৃত, গরূপ) অর্থ হলো: জ্ঞান, ঐশ্বর্য, ধনু, গাভি, ষাঁড়, বৃষ, নিরেট বোকা/মূর্খ প্রভৃতি।

বাংলাদেশের বাংলা একাডেমি উচ্চারণ অভিধান ও ব্যবহারিক বাংলা অভিধানে ‘গরু’ লেখা হয়েছে। কারণ সংবৃত অ-ধ্বনির পরে ই/ঈ/উ/ঊ-কার থাকলে অ-ধ্বনি ও-ধ্বনি উচ্চারিত হয়। যেমন : গরু>গোরু। জামিল চৌধুরী সম্পাদিত ‘বাংলা একাডেমি অধুনিক বাংলা অভিধান’ (২০১৬খ্রিষ্টাব্দ) লিখেছে ‘গোরু’।

প্রয়োজনীয় লিংক : বিসিএস, গবেষণা, প্রমিত বানান শেখা, প্রাতিষ্ঠানিক অধ্যয়ন, মাতৃভাষা অধ্যয়ন, প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা- প্রভৃতির জন্য:

শুবাচ লিংক

শুবাচ লিংক/২

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২

বাংলা বানান

জঞ্জাল দিবস 

————————————————-

শব্দকল্পদ্রুম/২

শব্দকল্পদ্রুম/৩

শব্দকল্পদ্রুম/৪

শব্দকল্পদ্রুম/৫

শব্দকল্পদ্রুম/৬

শব্দকল্পদ্রুম/৭

 

error: Content is protected !!