চিত্রিত বিচিত্র বাণী: বাংলা ভাষা সিলেটে আহত চট্টগ্রামে নিহত

মৌটুসকি

চিত্রিত বিচিত্র বাণী: বাংলা ভাষা সিলেটে আহত চট্টগ্রামে নিহত

ড. মোহাম্মদ আমীনের বাচনভঙ্গি ও শব্দচয়ন অনন্য। তাতে তাঁর লেখা কোনো বই লেখকের নাম ঊহ্য অবস্থায় থাকলেও ভাষার মধুরতা ও বিশুদ্ধতার রেশ ধরে হাজার গ্রন্থের মধ্য থেকে বেছে নেওয়া যায়। ‘বাংলা ভাষা সিলেটে আহত চট্টগ্রামে নিহত’ বইটি তেমনই এক সৃষ্টি। বইটি পড়তে বসে মনে উদিত হয়েছে বিচিত্র অনুভূতি। নিদারুণ বাস্তবতার আফসোস দিয়ে পাঠ শুরু হলেও সামগ্রিক পাঠ শেষে মনে হলো— এত হাসা বোধ হয় আর কোন বই পড়ে হাসিনি। বইটির বিশেষত্ব বিশেষণের ভূষণে বিবৃত করার বিড়ম্বনায় না-গিয়ে যদি মোদ্দা কথায় বলি— এ বই পাঠকের মনের খোরাক যোগাবে, সাহিত্যের নিখাদ আনন্দ দেবে; পাঠ শেষে পাঠক পাবে বইয়ের নামবাক্যের নেপথ্যে এক সুন্দর ও দূরদর্শী মতবাদ। সে মতবাদ তথ্যে ভরপুর, রসে পরিপূর্ণ। এটি এমন এক গ্রন্থ, যার পাঠ শেষেও হবে না শেষ, পাঠক বয়ে বেড়াবে এক দারুণ রেশ। পাঠ শেষে তেমনই কিছু রেশ নিয়ে আমার এ আয়োজন। এবার তবে তাদের পরখ করা যাক—
‘বাঙালিরা কোনো বিষয় বেশিক্ষণ মনে রাখতে পারে না। বাঙালির স্মৃতি বাঙালির শরীরের চেয়েও ক্ষীণ।’
‘বেত যেখানে সচকিত, আগ্রহ সেখানে শঙ্কিত। শাস্তি যেখানে উলঙ্গ, স্মরণশক্তি সেখানে কাতর বিহঙ্গ। বিদ্যায় যদি ভয় ঢোকে তাহলে লেখাপড়া আহত পাখির মতো মাটিতে মুখ থুবড়ে পড়ে থাকে।’
‘আপনি করে বললে কেউ আপন হয় না। আপন হতে হলে মনে মনে হতে হয়।’
‘আমকে পচার জন্য পচা আমের সঙ্গে রাখতে হয় না। পচা আম তো আর গাছে ধরে না, গাছে ধরার পর বড়ো হয়ে তারপর পচে। এজন্য আম দায়ী নয়। সময়ই দায়ী। সময় সবকিছুকে পচিয়ে দেয়।’
‘খাদ্য পেটে না গেলে যেমন পুষ্টি হয় না, তেমনি বিদ্যা মাথায় না ঢুকলে জ্ঞান হয় না।’
‘জোর করে খাওয়ানোর ফল স্বাস্থ্য নয়, বমি। বমি মানে পতন। মলদ্বারের জিনিস মুখ দিয়ে বের হওয়া শুধু কষ্টের নয়, লজ্জারও।’
‘ব্যর্থ পিতামাতা সন্তানদের দিয়ে তাদের অপূর্ণ আশা পূরণ করতে চায়। এসব পিতামাতা সন্তানদের হালের বলদ মনে করে। নিজেদের মনে করে চাষা।’
‘তুমি কী সেটা বড়ো কথা নয়। তুমি কী জান সেটাও বড়ো কথা নয়। তুমি কী কর বা কী করতে পার সেটাও বড়ো কথা নয়। তুমি কী করেছ সেটাও বড়ো কথা নয়। বর্তমানটাই তোমার মান, বর্তমানটাই তোমার সম্মান কিংবা অসম্মান।’
‘মা তার সন্তানের জন্য সব করতে পারে। অন্যের সন্তানকে খুন করতেও দ্বিধা করে না।’
‘বিশ্বাসে মেলায় বস্তুু, সত্য বহুদূর। তাই বিশ্বাস ছুড়ে দাও, জ্ঞানই হোক অঙ্কুর।’
‘হাঁটু আর হাঁটা বানানে চন্দ্রবিন্দু দিতে হয়, কিন্তু দৌড় বানানে দিতে নেই। কারণ দৌড়তে গেলে মাথা থেকে চন্দ্রবিন্দু পড়ে যায়।’
‘বিশ্বাস প্রবল হলে জ্ঞান দুর্বল হয়ে যায়।’
‘হাসি ভালো জিনিস, কিন্তু অধিকাংশ হাসি ভালো নয়, উপহাস। তাই বিজ্ঞরা কম হাসে। যারা বেশি হাসে, তারা বেশি ভাসে।’
‘হতাশার মাঝেও প্রত্যাশার আলো দেখতে পায় সবুজ (মানুষ)। প্রত্যাশার ওই আলোটাই জীবন। ওই আলোটা যে দেখতে পায় না তাকে বলে মৃত।’
‘ভয় যেখানে সরব, শ্রদ্ধা সেখান লাশ। শ্রদ্ধা যেখানে লাশ, ভালোবাসা সেখানে অভিশাপ। এটাকে বলে বিনয়হীন শ্রদ্ধা।’
‘অতিশাসন অতি প্রশ্রয় দুটোই শিশুদের জন্য বিষবৎ। দুটোই শ্রদ্ধাকে বিনাশ করে দেয়।’
‘কোনো ভালো মুখ থেকে গালি বের হয় না। মানুষ যখন অমানুষ হয়ে যায় তখনই গালি দেয়। গালি পচা মাংসের মতো। মাংস পচার আগে দুর্গন্ধ থাকে না।’
‘বিপদে পড়লে মানুষ খড়কেও বর হিসেবে আঁকড়ে ধরতে যায়। যদি মেলে রেহাই!’
‘শিক্ষকগণ শক্তের ভক্ত, নরমের যম। তাই মাঝে মাঝে তাদের মেরুদণ্ডহীন সরীসৃপ মনে হয়। সরীসৃপ আর শিক্ষকের কোনো মেরুদণ্ড নেই।’
‘মচকে যাওয়ার চেয়ে ভেঙে যাওয়া ভালো। একবার মচকালে বারবার মচকাতে হয়, কিন্তু একবার মরে গেলে আর কখনো মরতে হয় না।’
‘ভোট চুরি করা কি অপরাধ নয়?
অপরাধ, কিন্তু ভোট চুরি করে জয়ী হলে ওই অপরাধী হয়ে যায় বিচারক। সে তখন যাদের ভোট চুরি করেছে তাদের ন্যায়পাল আর দণ্ডমুণ্ডের কর্তা হয়ে যায়।’
‘জীবনটাই একটা ভুল।
কীভাবে?
আদি পিতা আদম হাওয়ার ভুলের শাস্তি এই পৃথিবী। তুমি এখানে যদি শুদ্ধ খুঁজতে যাও তাহলে, তুমি তোমাকেও খুঁজে পাবে না।’
‘প্রত্যেক নামের একটা ঐতিহাসিক গুরুত্ব থাকে। যারা অকারণে নাম পরিবর্তন করে তারা যেন ইতিহাসকে ধ্বংস করে। যারা ঈর্ষাবশত অন্যের নাম পরিবর্তন করে নিজের পছন্দের নাম বসায়, তারা প্রকৃতপক্ষে টুডে অর টুমোরো তার রাখা ওই নামটাও পরিবর্তন করাকে অনিবার্য করে তোলার সনদ দিয়ে যায়।’
‘ছোটোদের ছোটো ছোটো ভুলও জঘন্য অপরাধ হয়ে যায়। নইলে একশ টাকা চুরি করে শাস্তি আর একশ কোটি টাকা চুরি করে প্রশস্তি পেত না।’
‘বলদের শক্তি থাকে, সামর্থ্য থাকে না। সে নড়তে পারে, কিন্তু প্রতিকার করতে পারে না। সে শ্রম দেয়, ভোগ করতে পারে না। তার জামায় পকেট থাকে, কিন্তু পকেটে হাত দিতে পারে না।’
‘ঘটনাচক্রের কথা কেউ বলতে পারে না। ঘটনা শিশুর মতো চঞ্চল এবং অবোধ—কখন কী করে বোঝা যায় না। তাই, ঘটনা নিয়ে এত রটনা।’
‘গরিবের নামও গালি, ধনীর মলও টাকার জোরে নির্মল হয়ে যায়।’
‘প্রত্যেকের মাতৃভাষা প্রত্যেকের কাছে মায়ের মতো, কিন্তু আঞ্চলিক ভাষা শিশু সন্তানের মায়ের মতো। শিশুদের জন্য মা শুধু মা নয়; কোল, দুগ্ধ আর নিরাপদ আশ্রয়ের ত্রয়ী স্রোত।’
আঞ্চলিক ভাষা মাতৃদুগ্ধ, প্রমিত ভাষা কৌটার
বিদেশি ভাষা ফলফলারি, প্রয়োজন আছে সবটার।’
‘রাজার মল, আম্র ফল, স্বাদে গন্ধে টলমল। রাজার লাথি, রাজার চড়, মহাদেবের দুধের সর।’

গ্রন্থ: বাংলা ভাষা সিলেটে আহত চট্টগ্রামে নিহত
লেখক: ড. মোহাম্মদ আমীন
প্রকাশনী: মাদার্স পাবলিকেশন্স
মুদ্রিত মূল্য: ১৭৫ টাকা
জানা অজানা অনেক মজার বিষয়: https://draminbd.com/?s=অজানা+অনেক+মজার+বিষয়
শুবাচ গ্রুপের সংযোগ: www.draminbd.com
শুবাচ যযাতি/পোস্ট সংযোগ: http://subachbd.com/
আমি শুবাচ থেকে বলছি
Language
error: Content is protected !!