চীন মালদ্বীপ শ্রীলংকা বানানে ঈ-কার কেন

ড. মোহাম্মদ আমীন
বাংলা একাডেমি প্রণীত প্রমিত বাংলা বানানবিধি অনুসারে বিদেশি শব্দের বানানে ‘ঈ-কার’ বসে না। অনেকের প্রশ্ন: মালদ্বীপ শ্রীলংকা  চীন বিদেশি শব্দ। তবুও বানানে ঈ-কার কেন?

শ্রীলংকা:  প্রথমে বলে রাখি, শ্রীলংকা কোনো অতৎসম  বা বিদেশি শব্দ নয়; বহুল পরিচিত তৎসম। প্রাচীন সংস্কৃত গ্রন্থ ও

ড. মোহাম্মদ আমীন

পুরাণাদিতে নামটির ব্যাপক উপস্থিতি লক্ষ করা যায়। হুনুমানের শ্রীলঙ্কা/শ্রীলংকা কাহন ভারতীয় পুরাণের অতি পরিচিত কাহিনি।  তাই সংস্কৃত বানান অনুসারে ‘শ্রীলংকা’ বানানে  ‘ঈ-কার’। ‘শ্রী’ ও ‘লংকা’ মিলে শ্রীলংকা। ‘শ্রী’ বানানে ‘ঈ-কার’। তাই ‘শ্রীলংকা’ বানানেও ‘ঈ-কার’। কিন্তু লঙ্কা নয় কেন?  লঙ্কা লিখলে কি ভুল হবে? না। তবে লংকা বানানই প্রমিত।  এখন লংকা লেখা হয়। যেমন: লংকাবাটা, লংকাফোড়ন। এমন বানান কেন? ম্ এর সঙ্গে স্পর্শ বর্ণের সন্ধি হলে ম্– এর স্থানে অনুস্বার বা বর্গের পঞ্চম বর্ণ হয়। ক খ গ ঘ- থাকায়  ক-বর্গের পঞ্চম বর্ণ ঙ দিয়ে বানান হওয়ার কথা: শ্রীলঙ্কা। তবে এখন অধিকাংশ ক্ষেত্রে অনুস্বার লেখা হয়।  যেমন: 

শম্+কর = শংকর বা শঙ্কর
প্রিয়ম্+কর= প্রিয়ংকর বা প্রিয়ঙ্কর
প্রিয়ম্+বদা = প্রিয়ংবদা বা প্রিয়ম্বদা
ভয়ম্+কর = ভয়ংকর বা ভয়ঙ্কর,
সম্+ কর = সংকর বা সঙ্কর,
সম্ +গতি = সংগতি বা সঙ্গতি,
সম্+গীত = সংগীত বা সঙ্গীত,
সম্+ কলন = সংকলন বা সঙ্কলন,
সম্ +কট = সংকট বা সঙ্কট,

অনুরূপ: লম্+কা= লংকা।

মালদ্বীপ:  মনে করা হয়, মালদ্বীপ নামটি খ্রিষ্টপূর্ব যুগের “মালে দিভেহী রাজ্য” হতে উদ্ভূত। এর অর্থ মালে অধিকৃত দ্বীপরাষ্ট্র।প্রাচীন সংস্কৃতে লক্ষদ্বীপ নামের একটি অঞ্চলের কথা উল্লেখ রয়েছে।  লাক্কাদ্বীপপুঞ্জ অথবা চাগোস দ্বীপপুঞ্জও এর অন্তর্ভুক্ত ছিল।   কেউ কেউ মনে করেন, তামিল ‘মালা তিভু’ হতে লাক্কাদ্বীপের পরিপ্রেক্ষিতে নামটির উদ্ভব। যার অর্থ দ্বীপমাল্য।  মধ্যযুগে ইবন বতুতা ও তদ্‌পরবর্তী আরব পর্যটকগণ এই অঞ্চলকে ‘মহাল দিবিয়াত’ উল্লেখ করেছেন। আরবি ভাষায় মহাল অর্থ প্রাসাদ। বর্তমানে এই নামটিই মালদ্বীপের রাষ্ট্রীয় প্রতীকে লেখা হয়।  ইংরেজিতে দেশটির নাম Maldives,  বাংলায় লেখা হয় মালদ্বীপ। এটি দেশটির অবিকল রাষ্ট্রীয় নাম নয়,  সংস্কৃত নাম। ‘মালে’ শব্দটি সংস্কৃত, আরবি না তামিল  তা নিয়ে বিতর্ক আছে। তবে ‘দ্বীপ (দ্বী+অপ্+অ)’ সংস্কৃত শব্দ এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই।  মালে শব্দের সঙ্গে সংস্কৃত দ্বীপ যুক্ত হয়ে গঠিত হয়েছে মালদ্বীপ। তাই মালদ্বীপ বানানে ঈ-কার।
চীন: অন্যদিকে, ‘চীন’ বিদেশি শব্দ হলেও বহুল প্রচলনের কারণে ব্যতিক্রম হিসেবে বাংলা একাডেমি ‘চীন’ বানানে ‘ঈ-কার’ অক্ষুণ্ন রেখেছে।
এ তো গেল আলোচনা। এবার আসি আসল কথায়। বাংলা একাডেমি বলেছে  দেশ ও জাতির নামে ই-কার হবে। তবে চীন, শ্রীলংকা, মালদ্বীপ, কাশ্মীর-এ বানানগুলো দীর্ঘ ঈ কার দিয়ে লেখা হবে । অতএব, তাই করতে হবে আমাদের। কর্তার ইচ্ছায় কর্ম।

All Link

বিসিএস প্রিলি থেকে ভাইভা কৃতকার্য কৌশল

ড. মোহাম্মদ আমীনের লেখা বইয়ের তালিকা

বাংলা সাহিত্যবিষয়ক লিংক

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক সকল গুরুত্বপূর্ণ সাধারণজ্ঞান লিংক

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/১

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/২

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন /৩

কীভাবে হলো দেশের নাম

ইউরোপ মহাদেশ : ইতিহাস ও নামকরণ লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১

দৈনন্দিন বিজ্ঞান লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৩

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৪

কীভাবে হলো দেশের নাম

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/২

বাংলাদেশের তারিখ

ব্যাবহারিক বাংলা বানান সমগ্র : পাঞ্জেরী পবিলেকশন্স লি.

শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি : বানান শেখার বই

কি না  বনাম কিনা এবং না কি বনাম নাকি

মত বনাম মতো : কোথায় কোনটি এবং কেন লিখবেন

ভূ ভূমি ভূগোল ভূতল ভূলোক কিন্তু ত্রিভুবন : ত্রিভুবনের প্রিয় মোহাম্মদ

মত বনাম মতো : কোথায় কোনটি এবং কেন লিখবেন

প্রশাসনিক প্রাশাসনিক  ও সমসাময়িক ও সামসময়িক

বিবিধ এবং হযবরল : জ্ঞান কোষ

সেবা কিন্তু পরিষেবা কেন

ভাষা নদীর মতো নয় প্রকৃতির মতো

এককথায় প্রকাশ

শব্দের বানানে অভিধানের ভূমিকা

error: Content is protected !!