জনক : ক্যারোলাস নিলিয়াস : শ্রেণিবিন্যাসবিদ্যার জনক

ক্যারোলাস নিলিয়াস : শ্রেণিবিন্যাসবিদ্যার জনক
সুয়েডীয় উদ্ভিদবিজ্ঞানী, চিকিৎসক ও প্রাণীবিজ্ঞানী এবং দ্বি-পদ নামকরণের প্রবর্তক শ্রেণিবিদ্যার জনক সুইডিস বিজ্ঞানী ক্যারোলাস নিলিয়াস (সুয়েডীয় :Carl Linnaeus; লাতিন : Carolus Linnaeus, ক্যারোলাস লিনিয়াস) (১৩ই মে, ১৭০৭ – ১০ই জানুয়ারি, ১৭৭৮) আধুনিক দ্বিপদী নামকরণের ভিত্তি স্থাপন করেন। ক্যারোলাস লিনিয়াসই প্রথম জীবজগৎকে উদ্ভিদ ও প্রাণিকুলে শ্রেণিভাগ করেন। তাই তাকে আধুনিক শ্রেণিবিন্যাসবিদ্যার জনক বলা হয়। তিনি উদ্ভিদ ও প্রাণী প্রজাতির নামকরণের নৈরাজ্য দূর করে দ্বিপদী নামকরণ চালু করেন। এজন্য তাকে জীবের নামকরণ বিদ্যার জনক বলা হয়। এছাড়া তিনি আধুনিক বাস্তুবিজ্ঞানের জনকদের মধ্যেও অন্যতম। ফরাসি দার্শনিক জঁ-জাক রুশো তাকে একটি বার্তা লিখেছিলেন, “তাকে বলো আমি পৃথিবীতে তার চেয়ে মহান কোনো ব্যক্তিকে চিনি না।” জার্মান দার্শনিক ইয়োহান ভোলফগাং ফন গোটে লিখেছিলেন: “শেক্সপিয়ার ও স্পিনোজাকে বাদ দিলে পৃথিবীতে এ পর্যন্ত বাস করে যাওয়া সকল মানুষের মধ্যে আমার উপর লিনিয়াসের প্রভাবই ছিল সবচেয়ে বেশি।” তিনি ৭ হাজার ৭০০ প্রজাতির উদ্ভিদ ও ৪ হাজার ৪০০ প্রাণীর নামকরণ ছাড়াও স্পিসিস প্লান্টারাম (১৭৫৩), জেনেরা প্লান্টারাম (১৭৫৪) ও সিস্টেমা ন্যাচারই (১৭৫৮) বইয়ের লেখক।
 হোমো স্যাপিয়েন্স নামের প্রবক্তা
সুইডিস বিজ্ঞানী ক্যারোলাস নিলিয়াস সর্বপ্রথম মানুষ প্রজাতির নাম রাখেন হোমো স্যাপিয়েন্স। তিনি ভিন্নার্থে এটি ব্যবহার করেছিলেন। হোমো স্যাপিয়েন্স হলো, হোমো ‘নসে তে ইপসাম’। অর্থাৎ ম্যান নো দাইসেলফ, অর্থাৎ মানুষ নিজেকে জানো। এ নামকরণের আগেও মানুষ ছিল হোমো ইরেকটাস, হোমো হ্যাবিলিস, হোমো নিয়ানডারথেলেনসিস ইত্যাদি। তারা লোপ পেয়ে গেছে।
error: Content is protected !!