জাতীয় সংগীত ও বঙ্গবন্ধু

ড. মোহাম্মদ আমীন

জাতীয় সংগীত ও বঙ্গবন্ধু
‘আমার সোনার বাংলা, গানটি বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত। এ গানের রচয়িতা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। ১৯০৫ খ্রিষ্টাব্দে বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে গানটি রচিত হয়েছিল। ১৯৭২ খ্রিষ্টাব্দের ১৩ই জানুয়ারি বাংলাদেশের মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকে গানটির প্রথম দশ লাইন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জাতীয় সঙ্গীত হিসেবে নির্বাচিত হয়।

যেভাবে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত হলো
১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের ১লা মার্চ গঠিত হয় স্বাধীন বাংলার কেন্দ্রীয় সংগ্রাম পরিষদ। ১৯৭১ খ্রিষ্টাব্দের ৩রা মার্চ তারিখে পল্টন ময়দানে অনুষ্ঠিত জনসভা শেষে ঘোষিত ইশতেহারে বঙ্গবন্ধুর প্রস্তাবক্রমে এই গানকে জাতীয় সঙ্গীত হিসাবে ঘোষণা করা হয়। ১৯৭১ খ্রিষ্টাব্দের ১৭ই এপ্রিল মুজিবনগরে স্বাধীন বাংলাদেশের সরকারের শপথ অনুষ্ঠানে এই গানটি প্রথম জাতীয় সঙ্গীত হিসাবে গাওয়া হয়।
জাতীয় সংগীতের বিশ্ব রেকর্ড
২০১৪ খ্রিষ্টাব্দের ২৬ শে মার্চ, ঢাকার জাতীয় প্যারেড ময়দান একসঙ্গে ২,৫৪,৫৩৭ জন লোক একসঙ্গে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার মাধ্যমে গিনেস বিশ্ব রেকর্ড করে।
আমার সোনার বাংলা গানের জনপ্রিয়তা
স্রােতাদের পছন্দানুসারে বিবিসি বাংলার তৈরি সেরা বিশটি বাংলা গানের তালিকায় এই গানটি প্রথম স্থান দখল করে।

আমার সোনার বাংলা গান রচনা
১৯০৫ খ্রিষ্টাব্দের বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে বঙ্গভঙ্গ আন্দোলন রদ করার লক্ষ্যে “আমার সোনার বাংলা” গানটি রচিত হয়েছিল। গানটির পা-ুলিপি পাওয়া যায়নি, তাই এর সঠিক রচনাকাল জানা যায় না।

আমার সোনার বাংলা গান প্রথম গীত
সত্যেন রায়ের মতে, ১৯০৫ খ্রিষ্টাব্দের ৭ই অগাস্ট কলকাতার টাউন হলে আয়োজিত একটি প্রতিবাদ সভায় এই গানটি প্রথম গীত হয়। তবে বিশিষ্ট রবীন্দ্রজীবনীকার প্রশান্তকুমার পালের মতে, আমার সোনার বাংলা ১৯০৫ খ্রিষ্টাব্দের ২৫ শে অগাস্ট কলকাতার টাউন হলে ‘অবস্থা ও ব্যবস্থা’ প্রবন্ধ পাঠের আসরে গানটি প্রথম গীত হয়েছিল।

আমার সোনার বাংলা গানের প্রথম প্রকাশ
১৯০৫ খ্রিষ্টাব্দের ৭ই সেপ্টেম্বর (১৩১২ বঙ্গাব্দের ২২ ভাদ্র) সঞ্জীবনী পত্রিকায় রবীন্দ্রনাথের স্বাক্ষরে গানটি মুদ্রিত হয়। একই বছর ১৯০৫ খ্রিষ্টাব্দ মোতাবেক ১৩১২ বঙ্গাব্দের ‘বঙ্গদর্শন’ পত্রিকার আশ্বিন সংখ্যাতেও গানটি মুদ্রিত হয়েছিল।

আমার সোনার বাংলার সুর
আমার সোনার বাংলা গানটি রচিত হয়েছিল শিলাইদহের ডাক-পিয়ন গগন হরকরা রচিত আমি কোথায় পাব তারে আমার মনের মানুষ যে রে গানটির সুরের অণুষঙ্গে।

সূত্র : একনজরে বঙ্গবন্ধু, ড. মোহাম্মদ আমীন, আগামী প্রকাশনী, বাংলাবাজার, ঢাকা।

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা প্রথম কবিতা

 একনজরে বঙ্গবন্ধু/১

একনজরে বঙ্গবন্ধু/২

error: Content is protected !!