ঝরনা ঝরণা ঝর্ণা কোনটি লিখব এবং কেন লিখব

ড. মোহাম্মদ আমীন
ঝরন বাংলা শব্দ। বাক্যে বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত ঝরন’ শব্দের অর্থ অবিরল ধারায় পতন। এ ‘ঝরন’ শব্দ থেকে ঝরনা’ শব্দের উদ্ভব। এটি সংস্কৃত বা তৎসম শব্দ নয়। তাই ঝরণা বা ঝর্ণা’ লেখা অনুচিত। কিন্তু সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত লিখেছেন ঝর্ণাতিনি তাঁর বিখ্যাত ঝর্ণা কবিতায় লিখেছেন :
“ঝর্ণা! ঝর্ণা! সুন্দরী ঝর্ণা!
তরলিত চন্দ্রিকা! চন্দন-বর্ণা।”
সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের কবিতার প্রভাবে অনেকে লিখে থাকেন ‘ঝর্ণা। তিনি ঝর্ণা লিখলেও আমরা ‘ঝরনা’ লিখব। অনেকে মনে করেন, তাঁর কবিতার ‘ঝর্ণা’ একজন নির্দিষ্ট বালিকার নাম। সে যাই হোক— কবিতার কথা আলাদা, আর সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত হলে তো কথাই নেই। রবীন্দ্রনাথ, কিন্তু কোথাও ‘ঝরণা’ বা ‘ঝর্ণা’ লিখেননি, ‘ঝরনা’ লিখেছেন।
আসলে, ‘ঝরনা’ শব্দের অর্থ পাহাড় থেকে পতনশীল জলধারা, নির্ঝর, ফোয়ারা প্রভৃতি। সাধারণভাবে যার জল ঝরে পড়ে তা-ই ঝরনা। ঠিক সেভাবে ঝরনাকলম, ঝরনাতলা, ঝরনাধারা প্রভৃতি। প্রচুর কাব্যিক উপমা এবং কবিতা রয়েছে ঝরনা নিয়ে। রবীন্দ্রনাথ লিখেছেন  :
ঝরনা যেমন বাহিরে যায়, জানে না সে কাহারে চায়,
তেমনি করে ধেয়ে এলেম জীবনধারা বেয়ে–।”
ঝরনাতলা নিয়ে রবীন্দ্রনাথ লিখেছেন :
“তোমারি ঝরনাতলার নির্জনে
মাটির এই কলস আমার ছাপিয়ে গেল কোন্‌ ক্ষণে।”
কবি বিষ্ণু দে (১৮ই জুলাই ১৯০৯- ৩রা ডিসেম্বর ১৯৮২) লিখেছেন :
“ সোনালি হাসির ঝরনা তোমার ওষ্ঠাধরে।
প্রাণকুরঙ্গ অঙ্গে ছড়ায় চপল মায়া
মুখের সে-গান ভেঙে গেল আজ। স্তব্ধ তমাল
হালকা হাসির জীবনে কি এল ফসলের কাল?”
বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানেও ‘ঝরনা’ শব্দকে প্রমিত নির্দেশ করা হয়েছে। অতএব, আমরা ‘ঝরনা’ লিখব।
—————————————————————————————————————————————

গুরুত্বপূর্ণ বাংলা বানান ও হসন্ত বিধি

উদ্দেশ বনাম উদ্দেশ্য : বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/২

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/১

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন

কীভাবে হলো দেশের নাম

শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি : বানান শেখার বই

বাংলা ভাষার মজা, ড. মোহাম্মদ আমীন, পাঞ্জেরী পাবিলিকেশন্স লি.।

error: Content is protected !!