টেলিভিশন ও টেলিফোন এর বাংলা  

ড. মোহাম্মদ আমীন

টেলিভিশন ও টেলিফোন এর বাংলা  

টেলিভিশন-এর বাংলা
টেলিভিশন এমন একটি যন্ত্র যাতে একই সঙ্গে স্থির ও চলমান ছবি দেখা যায় এবং শব্দ শোনা যায়। টেলিভিশন শব্দটি বাংলায় এসেছে ইংরেজি থেকে। তবে

ড. মোহাম্মদ আমীন

এর আদি উৎস ইংরেজি নয়। প্রাচীন গ্রিক শব্দ τῆλε (ত্যালে) এবং লাতিন Vision (ভিসিওন্‌) মিলে গঠিত হয়েছে টেলিভিশন। প্রসঙ্গত, ত্যালে অর্থ দূর এবং ভিসিওন অর্থ দর্শন। টেলিভিশন-এর বাংলা দূরদর্শন যন্ত্র। তবে এটি টেলিভিশন নামে সমধিক পরিচিত। বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, ইংরেজি টিলিভিশন অর্থ (বিশেষ্যে) বিদ্যুৎ-চুম্বকীয় তরঙ্গের মাধ্যমে প্রেরিত সবাক চিত্রের গ্রাহকযন্ত্র, দূরদর্শন যন্ত্র, television, TV.

১৮৬২ খ্রিষ্টাব্দে তারের মাধ্যমে প্রথম স্থির ছবি পাঠানোর কৌশল মানুষের আয়ত্তে আসে। ১৮৭৩ খ্রিষ্টাব্দে বিজ্ঞানী মে ও স্মিথ বেদ্যুতিক তরঙ্গের মাধ্যমে ছবি পাঠানোর পদ্ধতি আবিষ্কার করেন। ব্রিটিশ বিজ্ঞানী জন লগি বেয়ার্ড ১৯২৬ খ্রিষ্টাব্দে প্রথম টেলিভিশন আবিষ্কার করেন এবং সাদা কালো ছবি বৈদ্যুতিক সম্প্রচারে পাঠাতে সক্ষম হন। ১৯৩৬ খ্রিষ্টাব্দে রুশ বংশোদ্ভুত প্রকৌশলী আইজাক শোয়েনবারগের কুশলী কৃতিত্বে বিবিসি প্রথম টিভি সম্প্রচার শুরু করে। ১৯৪০ খ্রিষ্টাব্দে সর্বপ্রথম টেলিভিশন বাণিজ্যিক ভিত্তিতে টেলিভিশন চালু হয়।

বাংলাদেশ টেলিভিশন বা বিটিভি

বাংলাদেশ টেলিভিশন এর সংক্ষিপ্ত রূপ বিটিভি। এটি বাংলাদেশের সরকারি টেলিভিশন সংস্থা। এটি ২৫ ডিসেম্বর ১৯৬৪ খ্রিষ্টাব্দের ২৫শে ডিসেম্বর থেকে এর আনুষ্ঠানিক সম্প্রচার শুরু হয়। তখন কেবল সাদা-কালো ছবি সম্প্রচার হতো।  সে সময় সংস্থাটির নাম ছিল পাকিস্তান টেলিভিশন।

Baird

মুক্তিযুদ্ধের পর বাংলাদেশ স্বাধীন হলে এর নাম পরিবর্তন করে বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি)  রাখা হয়। ১৯৮০  খ্রিষ্টাব্দ রঙিন সম্প্রচার শুরু করে। এর প্রধান সম্প্রচার কেন্দ্র ঢাকা শহরের রামপুরায় অবস্থিত। এছাড়া চট্টগ্রাম শহরের পাহাড়তলী এলাকায় একটি স্থানীয় সম্প্রচার কেন্দ্র রয়েছে। ২০০৪ খ্রিষ্টাব্দে বিটিভি বিশ্বব্যাপী সম্প্রচারের জন্য বিটিভি ওয়ার্ল্ড নামের একটি উপগ্রহভিত্তিক চ্যানেল স্থাপন করে।

ফোন

ফোন গ্রিক শব্দ। এর বাংলা (বিশেষ্যে) তারের সাহায্যে বা বেতারে দূরবর্তী কারো সঙ্গে কথা বলার সরঞ্জাম, দূরালাপনী, দূরভাষ, টেলিফোন, দূরকথন, দূরালাপ।’টেলিফোন’ ‘স্মার্টফোন’ একসাথে লেখা হলেও ‘মোবাইল ফোন’ কেন আলাদা আলাদা? একেবারে সংক্ষেপে বললে, ‘মোবাইল’ শব্দটি অন্য কোনো

শব্দের সঙ্গে যুক্ত হয়ে যৌগিক শব্দ গঠন করে না। ‘মোবাইল’-এর সঙ্গে কেবল সাধারণ প্রত্যয় বা বিভক্তি যুক্ত করা যায়, কোনো প্রাতিপদিক নয়। যেহেতু ‘ফোন’ একটি প্রাতিপদিক বা বিভক্তিহীন শব্দ, সেহেতু সেটিকে ‘মোবাইল’-এর সঙ্গে জুড়ে দিয়ে নিরেটভাবে ‘মোবাইলফোন’ লেখা যায় না।


শুবাচ গ্রুপের লিংক: www.draminbd.com
তিনে দুয়ে দশ: শেষ পর্ব ও সমগ্র শুবাচ লিংক
এই পোস্টের ওয়েব লিংক: কিছু প্রয়োজনীয় পোস্ট
error: Content is protected !!