ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব কঙ্গো (Democratic Republic of the Congo) : ইতিহাস ও নামকরণ

ড. মোহাম্মদ আমীন

ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব কঙ্গো  (Democratic Republic of the Congo)

আফ্রিকা মহাদেশে কঙ্গো নামের একটি জাতি ছিল। এরা যে নদীর তীরে বাস করত সে নদীটাকে বলা হতো কঙ্গো নদী। কালক্রমে নদীটি বিখ্যাত হয়ে ওঠে, তার সঙ্গে বিখ্যাত হয়ে এ জাতি। কঙ্গো জনগোষ্ঠী নদীর তীরে বসত গড়ে তুলেছিল বলে নদীটির নাম হয় কঙ্গো। এ কঙ্গো নদী ও কঙ্গো জনগোষ্ঠীকে ঘিরে যে দেশ গড়ে ওঠে তার নাম হয় কঙ্গো। অর্থাৎ কঙ্গো নদীর তীরে বসবাসকারী জনগোষ্ঠী যে ভূখ-ে বসবাস করেন, সেটি কালক্রমে কঙ্গো নামে পরিচিত হয়।

এবার কঙ্গো শব্দের ব্যুৎপত্তি দেখা যায়। পূর্বে বলা হয়েছে, কঙ্গো একটি আফ্রিকান জাতি। এ জাতিগোষ্ঠীর লোকেরা কঙ্গো নামের নদীর তীরে নিবাস গড়ে তুলেছিল। কঙ্গো বান্টু  ভাষার একটি শব্দ। যার অর্থ পর্বতমালা বা পর্বতমালা হতে সৃষ্ট নদী। কথিত হয়, নদীর উৎস জানার জন্য নদীর তীরে বসবাসকারী প্রাচীন জনগোষ্ঠীর কয়েকজন সাহসী যুবক উজানে যেতে থাকে। তারা গিয়ে দেখতে পায় পাহাড় থেকে নদীর সৃষ্টি হয়েছে। অবাক হয়ে তারা নিজেদের এলাকায় ফিরে এসে জানায় কঙ্গে। মানে এ নদীটি পাহাড় থেকে সৃষ্টি হয়েছে। এভাবে নদীটির নাম হয়ে যায় কঙ্গো। কঙ্গোর প্রাচীন নাম ছিল ফ্রেঞ্চ কঙ্গো, ফ্রেঞ্চ ভাষায় রিপাবলিক ডু কঙ্গো। ১৯৬০ খ্রিস্টাব্দে স্বাধীনতার পর এটি কঙ্গো নাম ধারণ করে।

অনেকে মনে করেন, নকঙ্গো (nkongo) হতে কঙ্গো (Kongo) বা কঙ্গো (Congo) নামের উদ্ভব। এর অর্থ শিকারি (hunters)। এ নদীর তীরে বসবাসরত জনগোষ্ঠীর লোকেরা মৎস্য ও পশুপাখি শিকারে অত্যন্ত পটু ছিল এবং শিকার করেই তারা জীবিকা নির্বাহ করত। তাই নাম হয় কঙ্গো।

দ্যা ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব দ্যা কঙ্গোর প্রাক্তন নাম ছিল যথাক্রমে কঙ্গো ফ্রি স্টেট, বেলজিয়ান কঙ্গো, রিপাবলিক অব দ্যা কঙ্গো, রিপাবলিক অব যায়ার নামে পরিচিত ছিল। এটি সরকারিভাবে ১৯৬৫-১৯৭১ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব দ্যা কঙ্গো নামেও পরিচিত ছিল। পরে নাম পরিবর্তন করে রিপাবলিক অব যায়ার করা হয়। ১৯৯২ খ্রিস্টাব্দে আবার নাম পরিবর্তন করে ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব দ্যা কঙ্গো রাখা হয়।

ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক দ্যা কঙ্গোর মোট আয়তন ২৩,৪৫,৪০৯ বর্গকিলোমিটার বা ৯,০৫,৩৫৫ বর্গমাইল। তন্মধ্যে জলীয় ভাগের পরিমাণ ৪.৩%। ২০১৫ খ্রিস্টাব্দের হিসাবমতে, ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক দ্যা কঙ্গোর জনসংখ্যা ৮,১৬,৮০,০০০ এবং প্রতি বর্গকিলোমিটার লোকসংখ্যা ৩৩.০১ জন। আয়তন বিবেচনায় ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক দ্যা কঙ্গোর পৃথিবীর ১১-তম বৃহত্তম দেশ এবং জনসংখ্যা বিবেচনায় ১৯-তম। কিন্তু জনসংখ্যার ঘনত্ব বিবেচনায় পৃথিবীর ১৮২-তম জনবহুল দেশ। জনগণের ৫০% রোমান ক্যাথলিক, ২০% প্রোটেস্ট্যন্ট, ১০% কিম্বাঙ্গিস্ট , ১০% মুসলিম এবং ১০% অন্যান্য ধর্ম অনুসরণ করে।

২০১৫ খ্রিস্টাব্দের হিসাবমতে, ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক দ্যা কঙ্গোর জিডিপি (পিপিপি) ৬১.৫৭৯ বিলিয়ন ইউএস ডলার এবং মাথাপিছু আয় ৭৫৩.৯০৭ ইউএস ডলার। অন্যদিকে, জিডিপি (নমিনাল) ৩৫.৫৭১ বিলিয়ন ইউএস ডলার এবং মাথাপিছু আয় ৪৩৫.৪৯৭ ইউএস ডলার। মুদ্রার নাম ফ্রাঙ্ক। রাজধানী কিনসাসা। সরকারিভাবে ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক দ্যা কঙ্গোর অধিবাসীদের কঙ্গোলিস বলা হয়। ১৯৬০ খ্রিস্টাব্দের ৩০ জুন বেলজিয়াম হতে স্বাধীনতা লাভকলে। সরকারি ভাষা। তবে এখানে আরও ২৪৫টি ভাষা প্রচলিত আছে।

ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অব কঙ্গো আফ্রিকা মহাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম দেশ। ১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে দেশটি বর্তমান নাম গ্রহণ করে। সংক্ষেপে দেশটা ডিআরসি নামে পরিচিত। রাজধানী কিনসাসা ১৮৮১ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত হয়। এর প্রাক্তন নাম ছিল লিওপোল্ডভিল (Leopoldville)। সরকারি ভাষা ফ্রান্স হলেও আরও ২৪২টি ভাষা প্রচলিত আছে। সংক্ষেপে এর নাম ডিআরসি।

চিনি, কফি, পাম অয়েল, চা, রাবার, কাসাভা, কুইনাইন, রুট ফসল, কলা, ভুট্টা, কাষ্ঠজাতপন্য ও ফল প্রধান কৃষিজ অর্থকর পণ্য। প্রাকৃতিক সম্পদের মধ্যে কপার, ট্যান্টালাম, নিউবিয়াম, ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডায়মন্ড, দস্তা, সিলভার, স্বর্ণ, টিন, টিম্বার, কয়লা, ইউরেনিয়াম ও ম্যাঙ্গানিজ উল্লেখযোগ্য। প্রধান শিল্প উৎপাদনের মধ্যে মাইনিং, মিনারেল প্রসেসিং, কনজিউমার প্রোডাক্টস, সিমেন্ট, বাণিজ্যিক জাহাজ মেরামত, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ ও পানীয় প্রধান।

মিশর

error: Content is protected !!