ণত্ববিধান : ণত্ব-বিধান : মূর্ধন্য-ণ বিধি

ণত্ববিধান

ড.  মোহাম্মদ আমীন

ণত্ব-বিধান/১

 যুক্তব্যঞ্জনে ট-বর্গের পূর্বে মূর্ধন্য-ণ: তৎসম শব্দে সাধারণত যুক্তব্যঞ্জনে ট-বর্গের বর্ণগুলোর পূর্বে মূর্ধন্য-ণ বসে। অর্থাৎ যুক্তব্যঞ্জনে /ট ঠ ড ঢ ণ/ বর্ণসমূহের পূর্ববর্তী /দন্ত্য-ন/ পরিবর্তিত হয়ে /মূর্ধন্য-ণ/ হয়ে যায়। যথা:

পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

১. ট:  ণ্ট (ণ+ট) : কণ্টক, ঘণ্ট, ঘণ্টা, নির্ঘণ্ট, নিষ্কণ্টক, বণ্টন;

২. ঠ:  ণ্ঠ (ণ+ঠ) : অবগুণ্ঠন, উৎকণ্ঠা, কণ্ঠ, কুণ্ঠা, লণ্ঠন, লুণ্ঠন;

৩. ড: ণ্ড (ণ+ড): কুণ্ডলী, কাণ্ড, খণ্ড, গণ্ডার, গণ্ডি, ঠাণ্ডা, দণ্ড, পণ্ডিত, ষণ্ড, ষণ্ডা, মণ্ডলী, প্রকাণ্ড, দণ্ড ভণ্ড।

৪. ঢ: ণ্ঢ (ণ+ ঢ): ঢুণ্ঢি, ঢেণ্ঢন;

 ৫. ণ:  ণ্ন (ণ+ন) : অক্ষুণ্ন, ক্ষুণ্ন, বিষণ্ন।

ণত্ব-বিধান/২: ঋ র ষ এর পর মূর্ধন্য-ণ

তৎসম শব্দে /ঋ, র/র-ফলা/রেফ, ষ/ক্ষ/ প্রভৃতি বর্ণ বা ফলা-সমূহের পরবর্তী /দন্ত্য-ন/ পরিবর্তিত হয়ে মূর্ধন্য-ণ/ হয়। যেমন:

১. ঋ, ঋ-কার এর পর মূর্ধন্য-ণ: ঋণ, ঋণী, ঘৃণা, তৃণ, মসৃণ, মৃণাল;

২. র-এর পর মূর্ধন্য-ণ: অরণি, অরণ্য, অরুণ, অলংকরণ, আবরণ, আচরণ, আহরণ, উচ্চারণ, কারণ, করুণ, তরণী, তরুণ, তোরণ, ত্বরণ, দারুণ,

প্রকাশক: পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

ধরণী, ধারণ, ধারণা, পূরণ, পূরাণ, প্রেরণ, প্রেরণা, বরণ, বারণ, ব্যাকরণ, ভরণ, মরণ, রণ, শরণ, শরণার্থী, সাধারণ, সারণি, স্মরণ, হরিণ;

৩. র-ফলার পর মূর্ধন্য-ণ: আমন্ত্রণ, ঘ্রাণ, চিত্রণ, ত্রাণ, নিমন্ত্রণ, যন্ত্রণা, মন্ত্রণা, নিয়ন্ত্রণ, পরিত্রাণ, প্রণতি, প্রণীত, প্রাণ, প্রাণী, ব্রণ, ভ্রূণ, মিশ্রণ, মুদ্রণ, যন্ত্রণা, শ্রেণী, স্ত্রৈণ;

৪. রেফ-এর পর মূর্ধন্য-ণ: অর্থব, আকীর্ণ, উদ্‌গীর্ণ, কর্ণ, কীর্ণ, ঘূর্ণন, ঘূর্ণি, চূর্ণ, জীর্ণ, দীর্ণ, নির্ণয়, পর্ণ, পূর্ণ, পূর্ণিমা, বর্ণ, বর্ণনা, বিকীর্ণ, বিদীর্ণ, বিস্তীর্ণ, শীর্ণ, স্বর্ণ;

ড. মোহাম্মদ আমীন

৫.মূর্ধণ্য-ষ এর পর মূর্ধন্য-ণ: অণ্বেষণ, চূষণ, তোষণ, দূষণ, বিদূষণ, নিষ্পেষণ, পোষণ, পেষণ, বিশেষণ, বিশ্লেষণ, বিভীষণ, ভাষণ, ভীষণ, ভূষণ, শোষণ, কৃষাণ, পাষাণ, বিষাণ, আকর্ষণ, কর্ষণ, ঘর্ষণ, ধর্ষণ, বিকর্ষণ, বর্ষণ, এষণা, ঘোষণা, গবেষণা, বিষণ্ন;

৬. ষ্ণ (ষ+ণ) এর পর মূর্ধন্য-ণ: কৃষ্ণ, ঈষধুষ্ণ, উষ্ণ, শীতোষ্ণ, তৃষ্ণা, কৃষ্ণা, ক্ষয়িষ্ণু, বর্ধিষ্ণু, চলিষ্ণু, জিষ্ণু, বিষ্ণু, সহিষ্ণু, বৈষ্ণব, উষ্ণীষ ইত্যাদি;

৭. ক্ষ এর পর মূর্ধন্য-ণ: ঈক্ষণ, ক্ষণ, ভক্ষণ, রক্ষণ, লক্ষণ, শিক্ষণ, প্রশিক্ষণ, নিরীক্ষণ, পরীক্ষণ, বিচক্ষণ, বীক্ষণ, দূরবীক্ষণ, পর্যবেক্ষণ, সংরক্ষণ, সমীক্ষণ, দক্ষিণ, প্রদক্ষিণ, দক্ষিণা, তীক্ষ্ণ, ক্ষীণ, ক্ষুণ্ন।

 নত্ব-বিধান/৩: সাধিত শব্দে মূর্ধন্য-ণ

সাধিত শব্দে (উপসর্গ, সন্ধি বা সমাসযোগে গঠিত শব্দ) /ঋ র ষ ক্ষ/ এর পরবর্তী /দন্ত্য-ন/ সাধারণত অপরিবর্তিত থাকে। তবে বিশেষ নিয়মে /দন্ত্য-ন/ কখনও কখনও মূর্ধন্য-ণ হয়ে যায়।

(ক). /পরি- -প্র- নির-/ এ তিনটি উপসর্গের পর দন্ত্য-ন থাকলে তা মূর্ধন্য-ণ হয়ে যায়। যেমন: পরিণত, পরিণতি, পরিণয়, পরিণাম, পরিবহণ, প্রণত, প্রণাম, প্রণয়ন, প্রণিধান, প্রণিপাত, প্রণীত, প্রণোদিত, প্রবণ, প্রমাণ, প্রবাহিনী, প্রবীণ, নির্ণয়, প্রয়াণ এবং পরিণাম। ব্যতিক্রম: প্রনষ্ট, পরিনির্বাণ, নির্নিমেষ।

(খ). র, বা র-ফলার পর পরবর্তীপদে -অয়ন শব্দ থাকলে ঐ শব্দের /দন্ত্য-ন/ পরিবর্তিত হয়ে /মূর্ধন্য-ণ/ হয়। যেমন: উত্তরায়ণ, চান্দ্রায়ণ, নারায়ণ, পরায়ণ, রবীন্দ্রয়ণ ইত্যাদি।

পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

(গ) /অপর-, পরা-, পূর্ব-, প্র-/ প্রভৃতি উপসর্গের পূর্বপদের পর /অহ্ন/ শব্দ যুক্ত হলে ণত্ববিধান অনুসাতে /দন্ত্য-ন/ এর স্থলে /মূর্ধন্য-ণ/ হয়। যেমন: অপরাহ্ণ, পরাহ্ণ, পূর্বাহ্ণ, প্রাহ্ণ ইত্যদি। তবে অহ্ন, চিহ্ন, জাহ্নবী, সায়াহ্ন প্রভৃতি বানানে হ-য়ে দন্ত্য-ন হয়।

(ঘ). সাধিত শব্দ হওয়া সত্ত্বেও কিছু কিছু শব্দে /র/ এর প্রভাবে /দন্ত্র-ন/ পরিবর্তিত হয়ে /মূর্ধন্য-ণ/ হয়ে যায়। যেমন: অগ্রণী, গ্রামণী, গ্রামীণ ইত্যাদি। তবে অগ্রনেতা, অগ্রনায়ক প্রভৃতি শব্দে দন্ত্য-ন হয়।

(ঙ). কোন কিছুর নাম বুঝাতে এক শব্দ বলে বিবেচিত হলে সাধিত শব্দে ণত্ব-বিধান অনুযায়ী দন্ত্য-ন এর স্থলে মূর্ধন্য-ণ হয়। যেমন: অগ্রহায়ণ, শূর্পণখা ইত্যাদি।

নত্ব-বিধান/৪: বর্ণ-বর্গ ও মূর্ধন্য-ণ

একই শব্দের মধ্যে /ঋ, র, র-ফলা, রেফ, ষ, ক্ষ/ এর যে কোনটির পর যদি স্বরবর্ণ, ক-বর্গের ৫টি (ক খ গ ঘ ঙ), প-বর্গের ৫টি ( প ফ ব ভ ম), এবং (য য় হ ং) প্রভৃতি বর্ণের এক বা একাধিক বর্ণ থাকে তাহলে পরবর্তী /দন্ত্য-ন/ ধ্বনি /মূর্ধন্য-ণ/ হয়ে যায়। যেমন:

প্রকাশক: পুথিনিলয়

অকর্মণ্য, আক্রমণ, আরোহণ, উৎক্ষেপণ, উপক্রমণিকা, কৃপণ, কৃপাণ, ক্ষেপণাস্ত্র, গ্রহণ, গৃহিণী, চর্বণ, তর্পণ, দর্পণ, দ্রবণ, দ্রাবণ, নিরূপণ, নির্বাণ, নিষ্ক্রমণ, পার্বণ, বৃংহণ, ব্রাহ্মণ, ভ্রমণ, ভ্রাম্যমাণ, ম্রিয়মান, রমণী, রামায়ণ, রুগ্ণ, রক্ষ্ণণ, শ্রবণ, শ্রাবণ, সন্তর্পণ, সংক্রমণ, সমর্পণ, সর্বাঙ্গীন, অর্পণ, প্রাঙ্গণ ইত্যাদি।

উত্তরণ, বাংলাবাজার।

কোথায় কোথায় ণত্ব বিধান নিষেধ বা খাটে না
ত-বর্গযুক্ত দন্ত্য-ন মূর্ধন্য-ণ হয় না। যেমন- বৃন্ত, বৃন্দ, গ্রন্থ, আক্রান্ত, কর্তন।

বাংলা ক্রিয়াপদের অন্তঃস্থিত দন্ত্য-ন মূর্ধন্য-ণ হয় না। যেমন- ধরেন , মারেন, করেন, যাবেন, খাবেন, হবেন, নিবেন, দিবেন।
বিদেশি শব্দের দন্ত্য-ন মূর্ধন্য-ণ হয় না। যেমন- কোরআন, জার্মান, জবান, নিশান, ফরমান, রিপন।
সন্ধিতে পূর্বপদে ঋ, র, ষ থাকলেও  পরপদে দন্ত্য-ন মূর্ধন্য-ণ হয় না। যেমন- মৃগনাভি, দুর্নাম, ত্রিনেত্র, মৃন্ময়।
পদের শেষের হসন্তযুক্ত ‘দন্ত্য-ন’ মূর্ধন্য-ণ হয় না। যেমন- কর্মন্‌, ব্রাহ্মন্‌।


এবার নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর খোজার চেষ্টা করুন

(১) তৎসম শব্দে ক্ষ-এর পর সাধারণত মূর্ধণ্য-ণ হয়। যেমন: ক্ষণ, ক্ষীণ, ক্ষীয়মাণ, ক্ষুণ্ন, ক্ষুণ্নমনা ইত্যাদি। ‘ক্ষুণ্ন’ ও ‘ক্ষুন্নিবৃত্তি’ ‘ক্ষুন্নিবারণ’ শব্দ-দুটোর বানান লক্ষ করুন। ‘ক্ষুণ্ন’ শব্দের বানানে /মূর্ধন্য-ণ ফলা/ কিন্তু ‘ক্ষুন্নিবৃত্তি’ ও ক্ষুন্নিবারণ শব্দের বানানে /দন্ত্য-ন/ এর দ্বিত্ব হয়েছে। কিন্তু কেন?

(২) ‘অন্তঃস্থ- র’ বর্ণের পর সাধরণত ‘মূর্ধন্য-ণ’ হয়। যেমন: করণ, বরণ, ধারণ ইত্যাদি। কিন্তু ‘ধরণ’ ও ‘দরুন’ বানানে দন্ত্য-ন কেন?

(৩) তৎসম শব্দের বানানে ‘রেফ’-এর পর ‘মূর্ধন্য-ণ’ হয়। তাই বানানে সাধারণত ‘রেফ’-এর পর দন্ত্য-ন দেখা যায় না। কিন্তু অহর্নিশ, দুর্নাম, দুর্নিবার প্রভৃতি শব্দের বানানে ‘দন্ত্য-ন’ কেন?

(৪) আমরা জানি ‘র’-বর্ণের পরস্থিত তৎসম শব্দের বানানে সাধারণত ‘মূর্ধন্য-ণ’ হয়। কিন্তু, দুর্নীতি, দুরপনেয়, দুর্নাম, দুর্নিবার, দুরন্বয় ইত্যাদি তৎসম শব্দ হওয়া সত্ত্বেও ‘র’- বর্ণের পর ‘দন্ত্য-ন’ কেন?

৫. তৎসম শব্দে র, ঋ বা ক্ষ প্রভৃতির পর ‘মূর্ধন্য-ণ’ হয়। গণক, গণনা, গণিত, গণৎকার, গণনীয়, গণ্য, গণশক্তি, গণনায়ক প্রভৃতি শব্দে র, ঋ, ক্ষ বা তাদের কোনো কার-চিহ্ন নেই; তবু বানানে মূর্ধন্য-ণ কেন?

(৬) অর্চনা, দর্শন, প্রার্থনা, রচনা, রটনা প্রভৃতি তৎসম শব্দ। শব্দের গঠন বলছে, ণত্ববিধি অনুযায়ী এসব শব্দের বানানে ‘মূর্ধন্য-ণ’ হওয়া উচিত । কিন্তু ‘দন্ত্য-ন’ কেন?

(৭) ব্রাহ্মন্‌ ও শ্রীমান্‌ তৎসম শব্দ।এজাতীয় তৎসম শব্দের বানানে ণত্ব-বিধি অনুযায়ী মূর্ধন্য-ণ হওয়ার কথা, কিন্তু ‘ব্রাহ্মন্‌’ ও ‘শ্রীমান্’ বানানে দন্ত্য-ন কেন?

৮. ‘অগ্রহায়ণ’ ‘ণ’ হওয়ার কথা না। তারপরও বানানে মূর্ধন্য-ণ। অন্যদিকে ‘অঘ্রান’ শব্দের বানানে ‘ণ’ হওয়ার কথা, কিন্তু দন্ত্য-ন; কেন?

(৯). আক্রমণ বানানে ‘মূর্ধন্য-ণ’, কিন্তু আক্রান্ত শব্দের বানানে দন্ত্য-ন কেন?

(১০) কর্নেল, ওয়ারেন্ট, কারেন্ট প্রভৃতি শব্দের বানানে ‘দন্ত্য-ন’ কেন?

উত্তরগুলো জানা থাকলে ভালো।জানা  না থাকলে এই লিংকে ক্লিক করুন:  নত্ববিধি কত সহজ : কেন বানানগুলো এমন : প্রশ্নোত্তরে ণত্ববিধি। উত্তর পেয়ে যাবেন।

 


বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/১

কি না  বনাম কিনা এবং না কি বনাম নাকি

মত বনাম মতো : কোথায় কোনটি এবং কেন লিখবেন

ভূ ভূমি ভূগোল ভূতল ভূলোক কিন্তু ত্রিভুবন : ত্রিভুবনের প্রিয় মোহাম্মদ

মত বনাম মতো : কোথায় কোনটি এবং কেন লিখবেন

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১

দৈনন্দিন বিজ্ঞান লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৩

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৪

কীভাবে হলো দেশের নাম

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/২

এককথায় প্রকাশ

শব্দের বানানে অভিধানের ভূমিকা

Language
error: Content is protected !!