থোড়বড়ি খাড়া খাড়াবড়ি থোড়: শজিনা থোড় বড়ি মাষকলাই বিরিকলাই

ড. মোহাম্মদ আমীন 
সংযোগ: https://draminbd.com/থোড়বড়ি-খাড়া-খাড়াবড়ি-থোড়-শ/
 ‘থোড় বড়িখাড়া খাড়াবড়ি থোড়’ অর্থ:  একই বিষয়ের পুনরাবৃত্তি, বারবার একই ঘটনা ঘটা, বৈচিত্র্যহীন জীবন, এমন জীবন যেখানে নতুন কিছু ঘটে না। প্রবাদটির অর্থ নিচে বর্ণিত কাহিনির মাধ্যমে সহজবোধ্যভাবে উপস্থাপন করা হলো:

এক বিধবার দুই সন্তান। একজন ছেলে আর একজন মেয়ে। মেয়েটির বিয়ে হয়ে গেল কিছু দূরে অন্য এক গ্রামে বছর খানে আগে। বিধবা অতদূর যেতে পারে

পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

না। বয়স হয়েছে বেশ। কোমরে ব্যথা, হাঁটতে কষ্ট হয়। অনেকদিন দেখে না মেয়েটাকে। ছেলেটি বাইরে গেলে পুরো একা হয়ে যায়। ভীষণভাবে মনে পড়ে মেয়ের কথা।

একদিন রাতে বিধবা বুড়ি ছেলেকে বলল, বাবা খুব পেট পোড়ে।
 কার জন্য?
তোমার বোনের জন্য।
আমি কী করব? 
তার শ্বশুর বাড়ি গিয়ে একটু দেখে আসো, মেয়েটা আমার কেমন আছে। অনেকদিন দেখি না।  তোর বাবা বেঁচে থাকলে কতবার যেত!
ছেলে পরদিন মায়ের দেওয়া কিছু নাস্তা নিয়ে চলে গেল বোনের শ্বশুর বাড়ি।  তিনদিন থেকে চতুর্থ দিন ফিরে এল। বিধবা, ছেলেকে দেখে খুশিতে জড়িয়ে ধরে কেঁদে দিল আনন্দে, আমার বাছার শরীরটা শুকিয়ে গেছে গো।
ছেলের কপালে মুখে চুমো দিয়ে বিধবা বলল, তোমার বোন কেমন আছে?
ভালো।
বোনের বাড়ি কী খেতে দিয়েছে?  
থোড় বড়িখাড়া, ছেলে বলল।
দ্বিতীয় দিন কী দিয়েছে?
খাড়াবড়ি থোড়।
 ‍তৃতীয় দিন কী খেতে দিয়েছে?
থোড় বড়িখাড়া।
তার মানে, থোড় বড়িখাড়া খাড়াবড়ি থোড়।
হ, মা। এদম আমাদের বাড়ির মতো।
  • এবার দেখা যাক থোড়, বড়ি আর খাড়া শব্দের অর্থ।
থোড়:  ফলবতী কলাগাছের ভেতরে যে শাঁস বা কন্দটি থাকে এবং যা  তরকারি হিসেবে খাওয়া হয়।
বড়ি :  কুমড়োবড়ি, যা মাষকলাই এর ডালসহযোগে তৈরি হয়।
খাড়া:  শজিনা।
অতিরিক্ত: সংস্কৃত ‘মাষ’ থেকে খাঁটি বাংলা মাষকলাই শব্দের উদ্ভব। এটি বিরিকলাই নামেও পরিচিত। অতৎসম হলে মাষকলাই শব্দের বানানে ষ আছে। অতৎসম শব্দের বানানে কিছু কিছু ক্ষেত্রে ষ ব্যবহৃত হয়। তবে তা ষত্ববিধিমতে নয়। উৎস বিবেচনায়।
শুবাচ গ্রুপের সংযোগ: www.draminbd.com
শুবাচ যযাতি/পোস্ট সংযোগ: http://subachbd.com/
আমি শুবাচ থেকে বলছি
error: Content is protected !!