দাদা ও ভাই: দাদাভাই শব্দ অর্থ: পরপর ও পরস্পর

ড. মোহাম্মদ আমীন

পরম্পর ও পরস্পর
 
পরম্পর: সংস্কৃত পরম্পর (পর+পর) অর্থ— (বিশেষণে) একের পর আর, ধারানুযায়ী, পরপর, অনুক্রমাগত। পরম্পরা, পরম্পরাক্রমে, পরম্পরাগত, পরম্পরীণ প্রভৃতি পরম্পর দিয়ে গঠিত শব্দ।সবাই একসঙ্গে নয়, পরম্পর এসো।
 
পরস্পর: সংস্কৃত পরস্পর (পরঃ+পর) অর্থ — (সর্বনামে) উভয় বা বহুর মধ্যে; একের সঙ্গে অন্য, অন্যান্য এবং (বিশেষণে) অনেকের মধ্যে, উভয়ের।তারা পরস্পর সহোদর।পরস্পর মিলেমিশে থাকবে।
 
পরম্পর ও পরস্পর সমার্থক নয়।
পরস্পর আলোচনা করে পরপর আসার ব্যবস্থা নিলে এতক্ষণে সবার কাজ হয়ে যেত। 

 
 
দাদা ভাই : দাদাভাই
দাদা:  সংস্কৃত তাত থেকে উদ্ভূত খাঁটি বাংলা দাদা অর্থ (বিশেষ্যে)— পিতামহ, দাদু; জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা, বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তিকে সম্মানসূচক সম্বোধনে ব্যবহৃত শব্দ;  পৌত্র, দৌহিত্র বা কনিষ্ঠ ভ্রাতাকে আদরসূচক সম্বোধনে ব্যবহৃত শব্দ। দাদু হলো— দাদার আদরসূচক শব্দ, পিতামহ বা মাতামহ। দাদি অর্থ— পিতামহী, ঠাকুরমা।
 
ভাই: সংস্কৃত ভ্রাতৃ থেকে উদ্ভূত ভাই অর্থ— (বিশেষ্যে) একই পিতামাতার পুত্র, ভ্রাতা, সহোদর, বৈমাত্রেয় বা বৈপিত্রেয়ে পুত্র; ভ্রাতৃস্থানীয় ব্যক্তি। হিন্দু সমাজে জ্যেষ্ঠ ভ্রাতাতুল্য শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি বা বড়ো বোনের স্বামীকে দাদাভাই হিসেবেও সম্বোধন করা হয়। বড়ো বোনকে ডাক হয় দিদিভাই।
 
হরিজন
হরিজন হলো দলিত হিন্দু সম্প্রদায়। যারা মেথর, সুইপার ইত্যাদি হিসেবে কাজ করে। সমাজ তাদের অস্পৃশ্য ভাবে।  হরিশংকর জলদাসের “রামগোলাম” বইটিতে হরিজন সম্পর্কে অনেক তথ্য আছে।  ব্রহ্মা বিষ্ঠা পরিষ্কার করানোর জন্য তাঁর নিজের শরীরের ময়লা থেকে মহীথর সৃষ্টি করেছিলেন। পরবর্তীকালে তারা দলিত, অস্পৃশ্য, অচ্ছ্যুত নামে পরিচিতি পায়। মহাত্মা গান্ধী তাদের ক্ষেত্রে “হরিজন” শব্দটির ব্যবহার চালু করেন।
 
অনেকে মনে করেন, গান্ধীর এই নাম করনের একটি রাজনৈতিক উদ্দেশ্য ছিল। হরি অর্থ ভগবান, জন অর্থ সন্তান। সুতরাং, হরিজন অর্থ ভগবানের সন্তান। হরিজনেরা মুলত নুনিয়া সম্প্রদায়ের জাতপাতে চৌহান, মাল্লা, জলদাস,পাটনীদাস, মাহাতো, কেউবা কৈবত্য।একটি ক্ষুদ্র অংশ চান্ডাল।এদের নিজেস্ব ভাষা তেলেগু ও পাট নাই বিহারি, এই ভাষার ওদের নিজেস্ব বর্ণমালা আছে।হিন্দু বা সনাতন ধর্মের সাথে ওদের ধর্ম বিশ্বাসের অনেক ক্ষেত্রে মিল থাকলেও অমিলও প্রচুর।হরিজনদের গৃহদেবতাও আলাদা।হরিজনেরা কখনো গনেশ পুজা করে না।
 
হরিজন মানে হরির প্রিয় বা হরিপ্রিয় জন হতে পারে। তবে এমন নাম দিয়েও তাদের কাদা ধুয়ে দেওয়া যায়নি। বরং এই নাম (হরিজন) কিছুটা বিড়ম্বনার কারণ হয়েছে। গান্ধীজী ও তাঁর শিষ্যরা যদি জাতপাত দূর করতে এবং নাস্তিকতার প্রসারে মন দিতেন তো ভালো হতো। মহাত্মা গান্ধী এদেরকে ঈশ্বরের জন হিসেবে আখ্যায়িত করলেও তাদের দুঃখ-দুর্দশা কমেনি।
 
— — — — — —
সূত্র: সূত্র: ড. মোহাম্মদ আমীন। কোথায় কী লিখবেন: বাংলা বানান: প্রয়োগ ও অপপ্রয়োগ, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.
 
 
লিংক: https://draminbd.com/দাদা-ও-ভাই-দাদাভাই-শব্দ-অর/
 
error: Content is protected !!