দান কখন অনুদান

এবি ছিদ্দিক

‘দান’ আর ‘অনুদান’ দুইটি কাছাকাছি অর্থে শব্দ। তবে শব্দ দুটির প্রয়োগে সামান্য পার্থক্য রয়েছে। শব্দ দুটির মধ্যে পার্থক্য বুঝতে

এবি ছিদ্দিক

চাইলে প্রথমে শব্দ দুটির অর্থ জানতে হবে। সেক্ষেত্রে, ‘দান’ শব্দটির জন্য ‘অর্পণ’, ‘প্রদান’, ‘হস্তান্তর’, ‘উৎসর্গ’ প্রভৃতি অর্থ উল্লেখ করা যায়। এছাড়াও বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানে ‘দান’ শব্দটির জন্য ‘প্রদত্ত বস্তু’, ‘পালা’, ‘শত্রুকে বশ করার উপায়বিশেষ, ‘খেয়া পারাপারের শুল্ক’ প্রভৃতি অর্থ উল্লেখ রয়েছে। আপাতত দ্বিতীয় কিস্তিতে উল্লেখ-করা অর্থের দিকে যাওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। কেননা, ‘দান’ শব্দটিকে ‘অনুদান’ শব্দটির সঙ্গে গুলিয়ে ফেলার মূল কারণ হচ্ছে প্রথমে উল্লেখ-করা অর্থসমূহ। এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণের জন্যে মনে রাখতে হবে যে, ‘অনুদান’ হচ্ছে ‘সরকার বা কোনো প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রদত্ত অর্থ বা টাকা’। অর্থাৎ, যখন কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান কিংবা সংস্থাকে সরকার বা অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান অর্থ প্রদানের মাধ্যমে সহায়তা করে, তখন তাকে অনুদান বলা হয়। যেমন:
১. বন্যায় সহায়সম্পদ হারানো প্রতিটি পরিবারকে সরকারের পক্ষ থেকে ২০০০০০ টাকা করে অনুদান দেওয়া হবে।
২. আপনাদের বিদ্যালয়ের নতুন ভবনটি যাতে সুন্দর ও বড়োভাবে তৈরি করতে পারেন, সে লক্ষ্যে আমাদের প্রতিষ্ঠান(যে-কোনো প্রতিষ্ঠানের হয়ে সেই প্রতিষ্ঠানের উপস্থিত ব্যক্তি) দশ লক্ষ টাকা অনুদান দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এছাড়া অন্য যে-কোনো ক্ষেত্রে যে-কোনো কিছু প্রদান করা হচ্ছে ‘দান’। যেমন:
১. আমি আজ আমার সম্পত্তির অর্ধেক দরিদ্রদের মাঝে দান করে দিলাম।
২. দশ টাকা দান করে বড়াই করা উচিত নয়।
৩. দেবীর উদ্দেশে বলি দান করো। ইত্যাদি।

সূত্র: দান কখন অনুদান,  এবি ছিদ্দিক, শুদ্ধ বানান চর্চা(শুবাচ)


error: Content is protected !!