দ্য দ্যা দা এবং দি: ‘the’-এর বাংলা প্রতিবর্ণ, অতন্ত্র অতন্দ্র; আড়ি শব্দের অর্থ

সংযোগ: https://draminbd.com/দ্য-দ্যা-দা-এবং-দি-the-এর-বাং/
অতন্ত্র/অতন্দ্র
ড. মোহাম্মদ আমীন
‘অতন্ত্র’ শব্দের অর্থ তন্ত্রহীন, অনর্থক কিন্তু ‘অতন্দ্র’ শব্দের অর্থ : জাগ্রত, তন্দ্রাশূন্য। যেমন: ‘গণতন্ত্রের অতন্দ্র প্রহরী – – -।’

আঁতুড়ঘর আঁত ও লেবার রুম

ড. মোহাম্মদ আমীন

‘অন্তউড়ি’ একটি প্রাচীন বাংলা শব্দ। সংস্কৃত ‘অন্তঃকুটি’ থেকে‘অন্তউড়ি এবং তা থেকে আঁতুড়ঘর শব্দের উদ্ভব। এর মৌলিক ও আদি অর্থ অন্দরমহলের ‘কুঁড়েঘর’। পরে শব্দটি এমন স্থান অর্থে ব্যবহৃত হতে থাকে যেখানে শিশু ভূমিষ্ঠ হয়। অন্দরমহলে কাপড় বা অন্য কোনো প্রতিবন্ধকতা দিয়ে সাময়িকভাবে শিশু ভূমিষ্টের জন্য ছোটো একটি স্থান করা হতো। তাই এর নাম ছিল অন্তউড়ি।
সংস্কৃত ‘অন্ত্র’ থেকে উদ্ভুত ‘আঁত’ শব্দের অর্থ- নাড়ি, জঠর, পেট, উদর প্রভৃতি। ‘আঁতুড়’ শব্দটিও সংস্কৃত ‘অন্ত্র’ থেকে আগত। সংস্কৃত ‘অন্ত্র (√অম্+ত্র)’ শব্দের অর্থ মেরুদণ্ডী প্রাণীর (পাকস্থলী থেকে পায়ু পর্যন্ত) খাদ্যনালির নিম্নাংশ, অমেরুদণ্ডী প্রাণীর (মুখগহ্বর থেকে পায়ু পর্যন্ত) সমগ্র খাদ্যনালি প্রভৃতি। বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, আঁতুড় শব্দের অর্থ- আঁতুড়ঘর এবং ‘আঁতুড়ঘর’ শব্দের অর্থ সন্তানপ্রসবের গৃহ, সূতিকাগার প্রভৃতি; যাকে ইংরেজিতে লেবার রুম বলা যায়।
আড়ি শব্দের অর্থ
ড. মোহাম্মদ আমীন
আড়ি শব্দটি সংস্কৃত আঢ়ক থেকে উদ্ভূত। এটি বাক্যে সাধারণত বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এর অর্থ তিনটি। যথা:
১. ছোটোদের মধ্যে মান-অভিমানের জন্য সাময়িক কথা বন্ধের ঘোষণা। খেলতে গেলাম তোমার বাড়ি, এলে না তাই দিলেম আড়ি।
২. লুকিয়ে শ্রবণ ( পেত না কখনো আড়ি, তুমি কি দেখাবে শরীর খুলে তোমার শাড়ি?)।
৩. শস্যাদি মাপার ধামা (তিন আড়ি ধানে কত আড়ি চাল হয়?)
দ্য দ্যা দা এবং দি: ‘the’-এর বাংলা প্রতিবর্ণ
এবি ছিদ্দিক
বিদেশি শব্দের কিংবা অতৎসম শব্দের বানানে ‘ব্যবহার’, ‘ব্যস্ত’, ‘স্যমন্তক’, ‘ব্যতিক্রম’ প্রভৃতি তৎসম শব্দের অনুরূপ /এ/ বা /অ্যা/ উচ্চারণের জন্যে ‘য-ফলা’ ব্যবহারের কোনো বিধান নেই। ‘ক্যাট, ‘টম্যাটো’, ‘মেডিক্যাল’ প্রভৃতি বানানে যে ‘্যা’ ব্যবহৃত হয়, সেটি ‘য-ফলা আ-কার’ নয়, সেটি হচ্ছে ‘অ্যা-কার’, এবং বাংলা একাডেমি প্রণীত প্রমিত বাংলা বানানের ২.২ নম্বর নিয়ম অনুসরণ করে উচ্চারণক্ষেত্র অনুযায়ী বিদেশি শব্দের বানানে কেবল এই রূপটিই স্বীকৃত। বিদেশি শব্দের আত্তীকৃত রূপে যেখানে /æ/ উচ্চারণ পাওয়া যায়, সেখানে এ ‘অ্যা’ বা ‘অ্যা-কার’ লিখতে হয়। অ্যাডভোকেট, ব্যাট, ম্যাচ, ফ্ল্যাট, র‌্যালি প্রভৃতি বানান এ নিয়মেই লেখা হয়।
অপর দিকে, ইংরেজি /ə/ (schwa) ধ্বনি বাংলায় লিখে প্রকাশ করবার জন্যে কোনো নির্দিষ্ট বর্ণ নেই। এই শোয়া ধ্বনির উচ্চারণ অবস্থানভেদে সামান্য এদিক-ওদিক হয়। তাতে এটি কোনো শব্দের আদিতে উচ্চারিত হলে যে ধ্বনি শোনা যায়, তা অনেকটা /æ/ ধ্বনির কাছাকাছি দাঁড়ায়। মূলত শব্দের আদিতে শ্বাসাঘাতহীন (stressless) /æ/ ধ্বনিই /ə/। তাই, ইংরেজি ভাষা থেকে কিংবা ইংরেজি ভাষার মাধ্যমে আগত শব্দের উচ্চারণে শুরুতে /ə/ ধ্বনি থাকলে সে শব্দের বাংলা বানান লেখার সময় আদিতে ‘অ্যা’ দিয়ে লেখা হয়। অ্যাডভেনচার, অ্যাসাইনমেন্ট, অ্যাপ্রন, অ্যাম্বুলেন্স, অ্যারেস্ট, অ্যালার্ম প্রভৃতি শব্দের বানান এ নিয়মেই আদিতে ‘অ্যা’ দিয়ে লেখা হয়।
আবার, ইংরেজি একাক্ষর (mono syllabic) শব্দে ব্যঞ্জন ধ্বনির পরের— যেমন: go, doe, the etc.— /ə/ ধ্বনির জন্যে যে উচ্চারণ পাওয়া যায়, তা লিখে যথাযথভাবে প্রকাশ করবার জন্যে বাংলা বর্ণমালায় কোনো বর্ণ নেই। এটির যথাযথ উচ্চারণ হিন্দিভাষীর মুখে ‘ঘর্’, ‘কর্‌নে কি’, ‘সমঝ্’ প্রভৃতি শব্দের উচ্চারণে যে ‘অ’ ধ্বনি পাওয়া যায়, কিংবা আরবিভাষীর মুখে ‘রহিম্’, ‘রহ্‌মান্’, ‘বয়ান্’ প্রভৃতি শব্দের উচ্চারণে যে ‘অ’ ধ্বনি পাওয়া যায়, প্রায় তার কাছাকাছি। এ ধ্বনি ঠিক /অ/-ও নয়, আবার /আ/-ও নয়; /এ অ্যা/ তো নয়ই। তাতে বাংলা ভাষায় শোয়া ধ্বনিযুক্ত কোনো একাক্ষর শব্দের প্রতিবর্ণ লিখতে গিয়ে— বিশেষ করে ব্যঞ্জনবর্ণযুক্ত শব্দের আগের ‘the’-এর প্রতিবর্ণ— মোটামুটি ভোগান্তিতে পড়তে হয়। এ বিড়ম্বনা এড়িয়ে যাওয়ার জন্যে বাংলাভাষী একটি পন্থা বের করে নিয়েছেন এবং সেটি হচ্ছে— যথাযথ ক্ষেত্রে ইংরেজি /ðə/ উচ্চারণ বোঝাতে ‘the’-এর বাংলা প্রতিবর্ণ হিসেবে ‘দ্য’ লেখা। এটি ব্যাকরণের নিয়মে সিদ্ধ কোনো রূপ নয়, প্রচলিতমাত্র। ভাষার মতো বিশাল বিষয়ের প্রতিটি উপাদান একই নিয়মের বেড়াজালে বাঁধা যায় না, বাঁধা সম্ভবও নয়। বানানের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। এক্ষেত্রে কোনো শব্দের বানান ব্যাকরণে কোনো নিয়মেই বিবৃত করা না-গেলে সেই রূপটি গ্রহণ করতে হয়, যেটি সংখ্যাগরিষ্ঠের মাধ্যমে চর্চিত হয়। আর তাই, বাঙালির চর্চায় ‘দ্য’-এর ব্যবহার সর্বাধিক এবং মোটামুটি সকল মহলে গৃহীত বলে এ-রূপটিই মান্য হিসেবে গ্রহণ করা যথাযথ হবে।
প্রসঙ্গত, স্বরবর্ণ (vowel) দিয়ে শুরু হয়, এমন শব্দের আগে বসলে ইংরেজি ‘the’-এর উচ্চারণ /ðɪ/ এবং বাংলা প্রতিবর্ণ ‘দি’ লিখতে হয়। অপর দিকে, ব্যঞ্জনবর্ণ (consonant) দিয়ে শুরু হয়, এমন শব্দের আগে বসলে ইংরেজি ‘the’ শব্দটির উচ্চারণ /ðə/ হয়, এবং এটির প্রতিবর্ণ হিসেবে ‘দ্য’ সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য।
প্রয়োগোদাহরণ: দি আউটসাইডার (The Outsider), দি ইলিয়েড (The Ilied); দ্য টাইমস (The Times), দ্য পার্ল (The Pearl); দি ওল্ড ম্যান অ্যান্ড দ্য সি (The Old Man And The Sea) ইত্যাদি।
জানা অজানা অনেক মজার বিষয়: https://draminbd.com/?s=অজানা+অনেক+মজার+বিষয়
শুবাচ গ্রুপের সংযোগ: www.draminbd.com
শুবাচ যযাতি/পোস্ট সংযোগ: http://subachbd.com/
আমি শুবাচ থেকে বলছি
error: Content is protected !!