ধন্যবাদ ও ধন্যযোগ : ধন্যযোগ অর্থ ঘুসপ্রদান

ধন্যবাদ ও ধন্যযোগ 
ড. মোহাম্মদ আমীন
বাক্যে বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত সংস্কৃত ‘ধন্য (ধন+য)’ শব্দের অর্থ সাধুবাদের যোগ্য, সৌভাগ্যশীল, কৃতার্থ, ধন্যবাদ প্রভৃতি। অনেকে মনে করেন,‘বাদ’ অর্থ বিয়োগ, বাধা, পরিত্যাগ, ছাড়, ত্যাগ প্রভৃতি। সে হিসেবে তারা মনে করেন, ‘ধন্যবাদ’ অর্থ সাধু বা কৃতার্থকে বাদ দেওয়া বা পরিত্যাগ করা প্রভৃতি। বিষয়টি আদৌ ঠিক নয়। কেন ঠিক নয় তা নিম্নে ব্যাখ্যা করা হলো :
বাক্যে বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত এবং সংস্কৃত ‘বাদি’ শব্দ হতে ‍উদ্ভূত তদ্ভব ‘বাদি’ শব্দের অর্থ কথন, ভাষণ, সাধুবাদ উক্তি, বাক্য প্রভৃতি। তবে শব্দটি তর্ক, কলহ, মত, মতবাদ, যথার্থতা বিচার প্রভৃতি অর্থ প্রকাশেও প্রয়োগ করা হয়। বাক্যে বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত এবং সংস্কৃত ‘অপবাদ’ শব্দ হতে উদ্ভূত তদ্ভব ‘বাদ’ শব্দের অর্থ প্রতিবন্ধ, বাধা, বিঘ্ন, শত্রুতা, বিপক্ষতা প্রভৃতি।
অন্যদিকে, বাক্যে বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত এবং আরবি ‘বাদ্‌’ শব্দ হতে উদ্ভূত ‘বাদ’ শব্দের অর্থ ছাড়, বিয়োগ, ছাঁট, ত্যাগ প্রভৃতি। বাক্যে ক্রিয়া বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত এবং আরবি ‘বাদে’ শব্দ হতে উদ্ভূত ‘বাদ’ শব্দের অর্থ হলো : পরে পরবর্তীকালে। যেমন : বাদ-ফজর, বাদ-এশা প্রভৃতি।
ধন্যবাদ = ধন্য+ √বাদি+অ। ধন্যবাদ শব্দের অর্থ সৌজন্যমূলক উক্তি, সাধুবাদ প্রভৃতি। ‘ধন্য’ শব্দের সঙ্গে ব্যবহৃত ‘বাদ’ শব্দটি সংস্কৃত ‘বাদি’ শব্দ হতে সৃষ্ট এবং এর অর্থ সাধুবাদ উক্তি। অতএব, ধন্যবাদ প্রকাশে ধন্যযোগ লেখা আদৌ ঠিক নয়। অভিধানে এমন কোনো শব্দ নেই।
ধন্যবাদের পরিবর্তে ‘ধন্যযোগ’ বলতে গেলে শব্দটির অর্থ হয়ে যেতে পারে সম্পদযোগ বা ধান্য-যোগ। অবশ্য কেউ যদি কাউকে ধন্যবাদ এর পরিবর্তে ধান, সম্পদ বা টাকাপয়সা দিতে চান তাহলে কিছু বলার নেই। এ হিসেবে ঘুস প্রদানকে ধন্যযোগ বলা যায়।
error: Content is protected !!