নিতকনে নিতবর, গতকল্য গতকাল, খারাপ, জাত জাত জাত, জন্মদ ও জন্মদা, ক্রুশ

ড. মোহাম্মদ আমীন

নিতকনে নিতবর, গতকল্য গতকাল, খারাপ, জাত জাত জাত, জন্মদ ও জন্মদা, ক্রুশ

নিতকনে নিতবর, গতকল্য গতকাল, খারাপ, জাত জাত জাত, জন্মদ ও জন্মদা, ক্রুশ

জন্মদ ও জন্মদা

  জন্মদ অর্থ জন্মদাতা, পিতা। উচ্চারণ: জন্‌মোদো। জন্মদা অর্থ মাতা, জন্মভূমি। উচ্চারণ: জন্‌মোদা। দুটোই তৎসম।

জাত জাত জাত

জাত: জাত শব্দের উচ্চারণ যখন জাতো তখন এর অর্থ— জন্মেছে এমন (নবজাত); (২) উৎপন্ন, সঞ্জাত (কৃষিজাত পণ্য); (৩) সঞ্চিত, রক্ষিত (গুদামজাত)। এই ‘জাত(√জন্‌+ত) ’ তৎসম এবং বাক্যে সাধারণত বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

জাত: সংস্কৃত ‘জাতি’ হতে সৃষ্ট খাঁটি বাংলা ‘জাত’ শব্দের উচ্চারণ ‘জাত্‌’। অর্থ— (১) কল্পিত বংশগত বা জন্মগত সামাজিক শ্রেণি (জাতের নামে বজ্জাতি সব) (২) শ্রেণি, প্রকার ( উন্নত‘ জাতের কাঁঠাল)। এই জাত বাক্যে সাধারণত বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়।
জাত: সংস্কৃত ‘জাতা’ হতে সৃষ্ট খাঁটি বাংলা শব্দ ‘জাত’-এর উচ্চারণ ‘জাত্‌’। অর্থ— (১) শ্রেষ্ঠ (জাত লেখক); (২) প্রকৃত, আসল (জাত সাপ)। এই জাত বাক্যে সাধারণত বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

খারাপ

  খারাপ আরবি উৎসের শব্দ। আরবি ‘খরাব’ হতে খারাপ শব্দের উদ্ভব। বাক্যে এটি সাধারণত বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। সূত্র: বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধান অর্থ: মন্দ, দুষ্ট (খারাপ লোক); অশুভ (খারাপ দৃষ্টি); অকেজো (খারাপ গাড়ি); রুক্ষ, উগ্র (খারাপ মেজাজ); বিষণ্ণ (খারাপ মন); অমার্জিত (খারাপ আচরণ); দূষিত (খারাপ জল); শ্রীহীন (খারাপ চেহারা); প্রতিকুল (খারাপ আবহাওয়া); দুর্দশাগ্রস্ত (খারাপ অবস্থা); সস্তা (খারাপ দ্রব্য); ভেজাল-মিশ্রিত (খারাপ দুগ্ধ); সমাজে অননুমোদিত বা নিষিদ্ধ (খারাপ পথ); বিকৃত (মাথা খারাপ)।

গতকল্য ও গতকাল

গতকল্য (গত+√কলি+য) ও গতকাল (গত+√কলি+অ) উভয়ে তৎসম। ‘গতকল্য’ শব্দটি বাক্যে সাধারণত বিশেষ্য হিসেবে এবং ‘গতকাল’ শব্দটি বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। অর্থ: অব্যবহিত পূর্ববর্তী দিন।

নিতকনে নিতবর

“বিয়ের সময় যে বালিকা কনের সঙ্গে শ্বশুরালয়ে গমন করে” তাকে এককথায় নিতকনে বলা হয়। এটি তৎসম মিত্রকনে হতে উদ্ভূত খাঁটি বাংলা (তদ্ভব) শব্দ। উচ্চারণ নিত্কোনে। নিতকনে কথার সমার্থক শব্দ মিতকনেনিতকনে ও মিতকনে শব্দের বিপরীত লিঙ্গার্থক শব্দ হচ্ছে যথাক্রমে নিতবর ও মিতবর। অর্থাৎ যে বালক বিয়ের সময় বরের সঙ্গে শ্বশুরালয় গমন করে তাকে এককথায় নিতবর বা মিতবর বলা হয়।

ক্রুশ

ইংরেজি cross থেকে ক্রুশ শব্দের উদ্ভব। যে কাঠের ফলকে বিদ্ধ করে যিশুকে বধ করা হয়েছিল সেটি ক্রুশ। ক্রুশ খ্রিষ্টধর্মের প্রতীক হিসেবেও খ্যাত। সুতরাং, ক্রুশ শব্দের প্রকৃত উৎস ইংরেজি।
জানা অজানা অনেক মজার বিষয়: https://draminbd.com/?s=অজানা+অনেক+মজার+বিষয়
শুবাচ গ্রুপের সংযোগ: www.draminbd.com
শুবাচ যযাতি/পোস্ট সংযোগ: http://subachbd.com/
আমি শুবাচ থেকে বলছি
error: Content is protected !!