পাংক পাংকু: শব্দের অর্থ উদ্ভব ও বিকাশ

ড. মোহাম্মদ আমীন

এই পোস্টের সংযোগ: https://draminbd.com/পাংক-পাংকু-শব্দের-অর্থ-উদ/

পাংকু পাংক: শব্দের অর্থ উদ্ভব ও বিকাশ

পাংক বা পাংকু শব্দের অর্থ: পাংক বা পাংকু শব্দের প্রচলিত অর্থ আগ্রাসী, উদ্ভট, উগ্র, উচ্ছৃঙ্খল, বাজে, বেমানান, রীতিবিরুদ্ধ, বেহায়াপনা, অত্যাধুনিক, অত্যাধুনিকতার নামে দেশীয় সংস্কৃতিবিরুদ্ধ  কর্মকাণ্ড প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে রত, ব্যতিক্রমী, নতুন ধারার প্রতি আগ্রহী, প্রচলিত জীবনধারার বদলে নতুন জীবনধারা প্রতিষ্ঠায় প্রাণন্তকর, দ্রুত পরিবর্তনকামী, বিদ্যমান সমাজ ব্যবস্থার প্রতি অবজ্ঞাকারী, যেমন ইচ্ছে তেমন জীবনধারণকারী; সর্বোপরি  সাধারণ্যের চোখে অগ্রহণীয় প্রভৃতি। শব্দটি বর্তমানে নিন্দার্থে ব্যবহৃত অভিধান বহির্ভূত, কিন্তু বহুল প্রচলিত। তবে শুরুর সময় এটি এত নিন্দনীয় ছিল না। পাংক নামধারীদের কর্মকাণ্ডের কারণে তা নিন্দনীয় হয়ে যায়।
 
পাংক শব্দের উৎস:  ধারণা করা হয়, পাংক বা পাংকু  শব্দটি চীনা পাং কং বা পাং কুং হতে আগত একটি প্রাচীন চৈনিক শব্দ। প্রাচীন চৈনিক পুরাণে উল্লেখ আছে— ঈশ্বর প্রথম যে মানব সৃষ্টি করেছেন তাঁর নাম ছিল পাং কং বা পাং কুংপাং কং এসে দুনিয়ার তাবৎ পূর্বকার পরিবেশকে বদলিয়ে নতুন সজ্জায় সজ্জিত করার প্রবল উদ্যোগ নেন। তিনি পৃথিবীতে আসার পরপরই রাতারাতি পৃথিবীকে বদলিয়ে নিজের  ইচ্ছেমতো সজ্জায় সজ্জিত করার কাজ শুরু করে দিয়েছিলেন। পৃথিবীর প্রথম মানব পাং কং-এর সঙ্গে আধুনিক পাংক বা পাংকুর দ্রুত সমাজ পরিবর্তনজনিত কার্য ও আচরণগত মিল থেকে শব্দটি বর্ণিত অর্থ ধারণ করে।
 
বাংলায় আগমন:  আমেরিকায়  পাংক শব্দটি ছিল বহুল প্রচলিত একটি অনানুষ্ঠানিক (informal) শব্দ। আমেরিকান পাংক, রোমান হরফে  Punk বানানে প্রচলিত। আমেরিকান পাংক শব্দটি চায়নিজ পাং কং হতে উদ্ভূত এবং ইংরেজদের কাছ হতে প্রাপ্ত। উপমহাদেশে পাংক বা পাংকু শব্দটি চায়না থেকে আসেনি, যুক্তরাজ্য থেকেও আসেনি। এসেছে আমেরিকা থেকে। আমেরিকায় শব্দটি প্রচলিত হওয়ার পরই এটি উপমহাদেশে আসে আশির দশকে।
 
 
বর্তমান অর্থে পাংক: ১৯৬৩ খ্রিষ্টাব্দের দিকে যুক্তরাজ্যে পাংক শব্দটি যুবক যুবতীদের মাধ্যমে দ্রুত প্রচার ও প্রসার পেতে থাকে। ১৯৬২ খ্রিষ্টাব্দের দিকে জনৈক প্রাচীন চায়নিজ ধর্মগুরুর মাধ্যমে পাংক শব্দটি লন্ডনে প্রথম আত্মপ্রকাশ করে। তখন শব্দটির অর্থ বিধৃত করা হয়েছিল: ঈশ্বরসৃষ্ট প্রথম মানব পাং কুং-এর মতো বিদ্যমান সমাজব্যবস্থার পরিবর্তনকারী হিসেবে। ১৯৬৬ খ্রিষ্টাব্দের দিকে নিউ ইয়র্ক শহরে এ নামে কয়েকটি ভিন্নধর্মী সংগীত গোষ্ঠী খোলা হলে তা যুবসমাজের ব্যাপক আগ্রহের সৃষ্টি করে। ফলে শব্দটি সারা আমেরিকা এবং ক্রমান্বয়ে পুরো বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। এই নামে মুক্তি পায় পৃথিবীর বিভিন্ন ভাষায়  একাধিক চলচ্চিত্র। এগুলোও যুব সমাজকে ব্যাপকভাবে আকৃষ্ট করে। পাংক নামের গান ও সংগীতে ছিল শব্দটির অর্থের মতো বিদ্যমান সমাজ পরিবর্তনের ইঙ্গিত। এর মধ্যেই পাংক নামের কয়েকটি যুবগোষ্ঠী গড়ে উঠে। তাদের  আচরণ ছিল আগ্রাসী, উদ্ভট এবং উগ্র। 
 
 
আমেরিকায়  পাংক: আমেরিকায় শব্দটি আমেরিকায় বহুল প্রচলিত একটি অনানুষ্ঠানিক (informal) শব্দ। আমেরিকান পাংক, রোমান হরফে  Punk বানানে প্রচলিত। আমেরিকান পাংক শব্দটি চায়নিজ পাং কং হতে উদ্ভূত। উপমহাদেশে পাংক বা পাংকু শব্দটি চায়না থেকে আসেনি। আমেরিকা থেকে এসেছে। আমেরিকায় শব্দটি প্রচলিত হওয়ার পরই এটি উপমহাদেশে আসে।
 
আমেরিকা থেকে এলেও আমেরিকান পাংক ও বাংলা পাংকু পরস্পর সমার্থক। Go ahead. Make my day, punk. ‘ডার্টি হ্যারি’ সিনেমার একটি বিখ্যাত উক্তি। পাংকু জামাই নামের একটি বাংলা ছায়াছবি ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দে মুক্তি পায়।  প্রণয়নাট্য প্রকৃতির এই চলচ্চিত্রটির রচনা ও পরিচালনায় ছিলেন আবদুল মান্নান। বিখ্যাত কয়েকটি পাংক সিনেমা ও প্রামাণ্য চিত্র হলো: Uburbia, Bomb City, Punks in Prague, The Green Room, Summer of Sam, Sid and Nancy, CBGB, SLC Punks প্রভৃতি।
error: Content is protected !!