প্যালেস্টাইন (Palestine) : ইতিহাস ও নামকরণ

কীভাবে হলো দেশের নাম (এশিয়া)

ড. মোহাম্মদ আমীন

প্যালেস্টাইন (Palestine)

ইহুদিদের ইহুদিত্ব হতে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য রোমনরা এলাকাটির নাম রাখেন ফিলিসতিয়া। যা ইহুদি এবং ইহুদি সংক্রান্ত শব্দ হতে অনেক দূরে ছিল। ১৩০ খ্রিষ্টাব্দের মাঝামাঝি সময়ে এর নাম ফিলিসতিয়া থেকে পরিবর্তন করে প্যালেস্টাইন রাখা হয়। রোমনরা ইহুদিদের কার্যক্রম, আচার-আচরণ ও বিদ্রোহে প্রচণ্ড বিরক্ত হয়ে পড়েছিল। তাই তাদের তাড়ানোর জন্য নাম পরিবর্তন করা হয়। ফিলিসতা হচ্ছে প্রাচীন রোমান ভাষার একটি শব্দ এবং এ শব্দ হতে প্যালেস্টাইন নামের উৎপত্তি। বস্তুত প্যালেস্টাইন নামের সঙ্গে আরবি ভাষা বা আরবীয় নামের কোনো সম্পর্ক নেই। ১২০০ খ্রিষ্টাব্দে ফিলিস্তিনিরা এ ভূখণ্ড হতে বিতাড়িত হয়।

ফিলিস্তিন বা প্যালেস্টাইন, সরকারিভাবে ফিলিস্তিন রাষ্ট্র (আরবি, দাউলাৎ ফিলাস্তিন) ১৯৮৮ খ্রিষ্টাব্দের ১৫ নভেম্বর আলজিয়ার্স শহরে নির্বাসনে ঘোষিত একটি রাষ্ট্র। প্যালেস্টাইন লিবারেশন অরগানাইজেশন (পিএলও) ও প্যালেস্টাইন জাতীয় পরিষদ (পিএনসি) ফিলিস্তিনের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিল। ১৯৮৮ খ্রিষ্টাব্দে স্বাধীনতা ঘোষণার সময় কোনো অঞ্চলেই পিএলওর নিয়ন্ত্রণ ছিল না। যদিও তারা যে অঞ্চলগুলি দাবি করেছিল আন্তর্জাতিকভাবে সেগুলো ইজরায়েলের দখলে ছিল। আরবদের দাবি, ১৯৪৭ খ্রিষ্টাব্দে জাতিসংঘ দ্বারা প্রস্তাবিত ফিলিস্তিন বিভাগ যেভাবে প্রস্তাাবিত হয়েছিল, যেখানে ফিলিস্তিন ভূখণ্ড (গাজা ভূখণ্ড ও পশ্চিম তীর) ছাড়াও ইসরায়েল শাসনাধীন কিছু অঞ্চলও ছিল। পশ্চিম জেরুজালেমকে ঘোষিত রাষ্টের রাজধানী আখ্যা দেওয়া হয়েছিল। তবে ইসরাইলিরা আরবীয়দের কোনো দাবিকে দুইপয়সা দাম দেওয়ার প্রয়োজনীয়তা বোধ করেনি। কারণ আরবীয়দের যোগ্যতা ও সামর্থ্য সম্পর্কে ইসরাইলিরা ভালোই অবগত ছিল।

১৯৭৪ আরব লীগ-এর শীর্ষ বৈঠকে স্থির হয়েছিল, পিএলও ফিলিস্তিনের জনগণের একমাত্র বৈধ প্রতিনিধি এবং ও তাদের জন্য জরুরিভিত্তিতে একটি স্বাধীন দেশ প্রতিষ্ঠার আহবান জানিয়েছিল । ১৯৭৪ খ্রিষ্টাব্দের নভেম্বর মাস থকে জাতিসংঘ পিএলও কে ‘রাষ্ট্রহীন-সত্তা’ রূপে র্প্যবেক্ষকের মর্যাদা প্রদান তরে। এমন রাষ্ট্র জতিসংঘের বৈঠকে কেবল বক্তব্য রাখতে পারে, কিন্তু কোনো ভোট দিতে পারে না।

ভূমধ্যসাগরের পূর্বে ১০,৪২৯ বর্গমাইলব্যাপী বিস্তৃত ফিলিস্তিন ছিল উসমানীয় খেলাফতের অধীন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ওসমানীয় খেলাফত ছিল ব্রিটিশ বিরোধী জোটে৷ ১৯১৭ খ্রিষ্টাব্দে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লর্ড বেলফোর ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, যুদ্ধে জয়ী হলে এ ভূমিতে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র ঘোষণা করা হবে। যা ইতিহাসে বেলফোর ঘোষণা হিসাবে পরিচিত৷ যেহেতু আরবরা ছিল ইহুদিদের তুলনায় কয়েশকগুণ বেশি, সেহেতু ঘোষণাটি তাদের অনুকূল বলেই ধরে নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এর মাঝে যে মারাত্মক ধোকাটি লুকিয়েছিল তা বোকা মুসলিমরা বুঝতে পারেনি। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্রিটেনের প্রয়োজনে দুর্লভ বোমা তৈরির উপকরণ কৃত্রিম ফসফরাস তৈরি করতে সক্ষম হন ইহুদি বিজ্ঞানী ড. হেইস বাইজম্যান। আনন্দিত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী জানতে চাইলেন কি ধরনের পুরস্কার তিনি চান। তাঁর উত্তর ছিল অসাধারণ : অর্থ নয় আমার স্বজাতির জন্য এক টুকরো ভূমি চাই এবং তা হবে ফিলিস্তিন৷ ফলে ফিলিস্তিন ভূখ-টি ইহুদিদের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিয় ব্রিটেন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে জয়ের পর ব্রিটেন স্বাধীনতা দেওয়ার অঙ্গীকারে ১৯১৮ খ্রিষ্টাব্দ থকে ৩০ বছর দেশটিকে নিজেদের অধীন রাখে। মূলত ব্রিটেন এ সময় ফিলিস্তিনকে আরব শূন্য করার কাজ শুরু করে দেয় এবং তা সফলভাবে সম্পন্ন করার কাজে সহায়তা করে ইহুদি বলয় দ্বারা প্রভাবিত ইঙ্গ-মার্কিন শক্তি।

ব্রিটিশরা একদিকে ইহুদিদের জন্য খুলে দেয় ফিলিস্তিনের দরজা, অন্যদিকে ব্রিটিশ বাহিনীর সহযোগিতায় ইহুদিরা ফিলিস্তিনদের বিতাড়িত করে নিজেদের অবস্থান সুদৃঢ় করার জন্য প্রশিক্ষিত এক গোপন সন্ত্রাসী সংগঠন গড়ে তুলে৷ তার মধ্যে তিনটি প্রধান সংগঠন ছিল হাগানাহ, ইরগুন ও স্ট্যার্ন গ্যাং। যারা হত্যা, সন্ত্রাস, ধর্ষণ আর ধ্বংসযজ্ঞ সৃষ্টির মাধ্যমে নিরীহ ফিলিস্তিনিদের বাধ্য করে নিজ মাতৃভূমি ছেড়ে চলে যেতে। সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর গণহত্যার কথা যখন আন্তর্জাতিকভাবে প্রচারিত হচ্ছিল তখন পরিস্থিতকে নিজেদের অনুকূলে আনার জন্য গুপ্ত সংগঠন হাগানাহ বেছে নেয় আত্মহনন পন্থা। ১৯৪০ খ্রিষ্টাব্দে এসএস প্যাটৃয়া নামক একটি জাহাজকে হাইফা বন্দরে তারা উড়িয়ে দিয়ে ২৭৬ জন ইহুদিকে হত্যা করে। ১৯৪২ খ্রিষ্টাব্দে আরেকটি জাহাজকে উড়িয়ে দিয়ে ৭৬৯ জন ইহুদিকে হত্যা করে। উভয় জাহাজে করে ইহুদিরা প্যালেস্টাইনে আসছিল আর ব্রিটিশরা সামরিক কৌশলগত কারণে জাহাজ দুটিকে প্যালেস্টাইনের বন্দরে ভিড়তে দিচ্ছিল না৷ হাগানাহ এভাবে ইহুদিদের হত্যা করে বিশ্ব জনমতকে নিজেদের পক্ষে আনার চেষ্টা করে। পাশাপাশি ইহুদিদের বসতি স্থাপন ও আরবদের উচ্ছেদকরণ চলতে থাকে খুব দ্রুত৷ এর ফলে ২০ লাখ বসতির মধ্যে বহিরাগত ইহুদির সংখ্যা দাঁড়ায় ৫ লাখ ৪০ হাজার৷

১৯৪৭ খ্রিষ্টাব্দের ২৯ নভেম্বর ইহুদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ইঙ্গ-মার্কিন চাপে জাতিসংঘে ভোটাভোটি হয়। তাতে ৩৩টি রাষ্ট্র পক্ষে, ১৩টি বিরুদ্ধে এবং ১০টি ভোটদানে বিরত থাকে৷ প্রস্তাব অনুযায়ী মোট জনসংখ্যার এক-চতুর্থাংশ হয়েও ইহুদিরা ভূমির ৫৭% আর ফিলিস্তিনরা পায় ৪৩%। তবে প্রস্তাাবিত ইহুদি রাষ্ট্রটির উত্তর-পশ্চিম সীমানা ছিল অনির্ধারিত। ফলে ভবিষ্যতে ইহুদিদের সীমানা বাড়ানোর সুযোগ থেকে যায়। ফলে ইসরায়েল প্রতিষ্ঠা চূড়ান্ত হলেও উপেক্ষিত থেকে যায় ফিলিস্তিন। জাতিসংঘের মাধ্যমে পাস হয়ে যায় একটি অবৈধ ও অযৌক্তিক প্রস্তাব৷ ইহুদিরা হয়ে ওঠে আরও হিংস্র। তারা হত্যা ও সন্ত্রাসের পাশাপাশি ফিলিস্তিনদের উচ্ছেদ করার উদ্দেশে রাতে তাদের ফোন লাইন, বিদ্যুৎ লাইন কাটা, বাড়িঘরে হ্যান্ড গ্র্যানেড নিক্ষেপ, জোর করে জমি দখল এবং বিভিন্নভাবে নারী নির্যাতন করে বিভীষিকা সৃষ্টি করতে থাকে। ফলে লাখ লাখ আরব বাধ্য হলো দেশ ত্যাগ করতে৷ এরপরই ১৯৪৮ খ্রিষ্টাব্দের ১২ মে রাত ১২টা এক মিনিটে ইসরায়েল রাষ্ট্র ঘোষণা করে ইহুদিরা। ১০ মিনিটের ভেতর যুক্তরাষ্ট্র স্বীকৃতি দিয়ে দেয়। অতঃপর স্বীকৃতি দেয় সোভিয়েত ইউনিয়ন ও ব্রিটেন।

প্যালেস্টাইনের আয়তন ৬,২২০ বর্গ কিলোমিটার বা ২,৪০০ বর্গমাইল। তন্মধ্যে পশ্চিম তীর ৫,৮৬০ বর্গ কিলোমিটার এবং ৩৬০ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের গাজা ভূখন্ড। মোট আয়তনের মধ্যে জলীয় ভাগের পরিমাণ ৩.৫%। ২০১৪ খ্রিষ্টাব্দের হিসাবমতে প্যালেস্টাইনের জনসংখ্যা ৪৫,৫০,৩৬৮। প্রতি বর্গকিলোমিটারে জনসংখ্যা ৭৩১। আয়তনের দিক হতে প্যালেস্টাইন পৃথিবীর ১৬৩-তম বৃহত্তম দেশ কিন্তু জনসংখ্যার দিক হতে ১২৩-তম।

প্যালেস্টাইনের জিডিপি (পিপিপি) ১১.৯৫ বিলিয়ন ইউএস ডলার, সে হিসাবে মাথাপিছু আয় ২,৯০৯ ইউএস ডলার। অন্যদিকে জিডিপি (নমিনাল) বিলিয়ন ইউএস ডলার এবং সে হিসাবে মাথাপিছু আয় ইউএস ডলার। মুদ্রা হচ্ছে মিশরিয় পাউন্ড, ইসরাইলি শেকেল এবং জর্ডানিয়ান দিনার।

প্যালেস্টাইন একটি অঞ্চল, কোনো জাতি নয়। ইয়াসির আরফাতের পূর্বে এ অঞ্চলে কোনো প্রেসিডেন্ট বা কোনো সরকার ছিল না। এ অঞ্চলটি ব্রিটেনের পদানত হওয়ার পূর্বে ১৫০০ খ্রিষ্টাব্দের প্রথমার্ধ পর্যন্ত তুর্কিদের দখলে ছিল। তুর্কিরা আরব ছিল না। আরবরা মধ্যপ্রাচ্যের ৯৯.৯ ভাগ ভূমির অধিকারী। অন্যদিকে ইসরাইলের অধিকারে আছে মাত্র ০.১ ভাগ ভূমি। ব্রিটিশ প্রত্নতত্ত্ববিদ ডরথি ক্যারড দেখিয়েছেন, প্যালেস্টাইনিদের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল ইউরোপের, তাদের সঙ্গে আগে কখনও আরবীয়দের সম্পর্ক ছিল না।

প্যালেস্টাইন রাজনীতিক ও ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে একটি গরীব দেশ। প্রতি ১০০ জন ফিলিস্তিনি শিশুর মধ্যে ১১ জন দীর্ঘস্থায়ী অপুষ্টির শিকার। দিন দিন এর পরিমাণ বাড়ছে। এখানকার জনসংখ্যার অর্ধেক দারিদ্র্য সীমার নিচে বাস করে। দরিদ্রদের অধিকাংশের বাস করে গাজা ভূখণ্ডে (Gaza strip)। মধ্যপ্রাচ্যে ফিলিস্তিনি শরনার্থীদের সংখ্যা লেখার জন্য একটি রেজিস্টার খোলা হয়েছে। সে রেজিস্টার অনুযায়ী ২০১৫ খ্রিষ্টাব্দের জুন পর্যন্ত ৪৬,১৮,১৪১ জন শরণার্থী মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নিয়েছে। পৃথিবীর অন্যান্য দেশে রয়েছে ৫.৫ মিলিয়ন শরণার্থী।

প্যালেস্টাইনের ৪৫% ভূমি অলিভ গাছে ভর্তি। এর অধিকাংশ গাছ রয়েছে পশ্চিম তীরে। ইসরাইল সরকারের উপযুক্ত নগর পরিকল্পনায় মারাত্মক ঢিলেমি ও অসহযোগিতার কারণে প্যালেস্টাইনের জনগণ প্রচ- অসুবিধা ও মারাত্মক কষ্টে দিনাতিপাত করতে বাধ্য হচ্ছে। প্রায় ২,২৫,০০০ ফিলিস্তিনি প্রতিমুহূর্তে তাদের বাড়িঘর হারানোর আশঙ্কায় অনিশ্চিত জীবন যাপন করেছে।

প্যালেস্টাইন এমন একটি দেশ, যে দেশের নাগরিকদের জীবন, বাড়িঘর প্রভৃতির নিশ্চয়তা সরকার মোটেও দিতে পারে না। প্রতিবেশি ইসরাইলের ইচ্ছার উপর তাদের প্রাত্যহিক জীবনের অধিকাংশ প্রাপ্তি অপ্রাপ্তি নির্ভর করে। ইসরাইল যখন ইচ্ছা, তখন প্যালেস্টাইনের যে কোনো স্থানে প্রায় বিনা বাধায় আঘাত হানতে পারে এবং সামান্য অজুহাতেই তারা এসব করে। ইসরাইলি আক্রমণের হাত থেকে প্যালেস্টাইনির আইন পরিষদ ভবন পর্যন্ত রেহাই পায়নি। পৃথিবীতে এমন হতভাগ্য রাষ্ট্র ও নাগরিক আর নেই।


ইরাক (Iraq) : ইতিহাস ও নামকরণ

ইসরায়েল (Israel) : ইতিহাস ও নামকরণ

বার্মা (Burma) : ইতিহাস ও নামকরণ

কিরগিজিস্তান (Kyrgyzstan) : ইতিহাস ও নামকরণ

জাপান (Japan) : ইতিহাস ও নামকরণ

জাপান (Japan) : ইতিহাস ও নামকরণ

জর্ডান (Jordan) : ইতিহাস ও নামকরণ

কাজাখস্তান (Kazakhstan) : ইতিহাস ও নামকরণ

কুয়েত (Kuwait): ইতিহাস ও নামকরণ

লাও (Laos) : ইতিহাস ও নামকরণ

লেবানন (Lebanon) : ইতিহাস ও নামকরণ

নেপাল (Nepal) : ইতিহাস ও নামকরণ

নর্থ কোরিয়া ( North Korea) : ইতিহাস ও নামকরণ

ওমান (Oman) : ইতিহাস ও নামকরণ

পাকিস্তান (Pakistan) : ইতিহাস ও নামকরণ

প্যালেস্টাইন (Palestine) : ইতিহাস ও নামকরণ

সূত্র:  কীভাবে হলো দেশের নাম, ড. মোহাম্মদ আমীন, পুথিনিলয়, বাংলাবাজার, ঢাকা।

error: Content is protected !!