প্রথম রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম কমিটি

প্রথম রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম কমিটি গঠন
১৯৪৭ খ্রিষ্টাব্দের ডিসেম্বর মাসে তমদ্দুন মজলিসের নুরুল হক ভুঁইয়াকে আহবায়ক করে প্রথম রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম কমিটি গঠন করা হয়।
প্রথম ছাত্র ধর্মঘট ও ভাষা আন্দোলনের অগ্রদূত
পাকিস্তান গণপরিষদে ধীরেন্দ্রনাথ উত্থাপিত বাংলাকে গণ পরিষদের অন্যতম ভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার প্রস্তাবের বিপক্ষে মুসলিম লিগের সদস্যরা ভোট দেওয়ার সংবাদ ঢাকায় পৌঁছামাত্র সারাদেশে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। মুসলিম লিগ সদস্যদের এমন ঘৃণ্য আচরণের প্রতিবাদে ১৯৪৮ খ্রিষ্টাব্দের ২৬ শে ফেব্রুয়ারি অধ্যাপক আবুল কাশেমের সভাপতিত্বে সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ধীরেন্দ্রনাথ দত্তকে অভিনন্দন জানানো হয় এবং ঢাকায় বাংলা ভাষাকে গণপরিষদের ভাষা হিসেবে মর্যাদা প্রদানের দাবিতে প্রথমবারের মতো ছাত্র ধর্মগট পালিত হয়।

সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠন
১৯৪৮ খ্রিষ্টাব্দের ২রা মার্চ বাংলা ভাষার রাষ্ট্রীয় মর্যাদা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে পূর্বপাকিস্তানের সাংস্কৃতিক ও রাজনীতিক কর্মীদের নিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। কামরুদ্দিন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় ভাষা আন্দোলনকে বেগবান করার নিমিত্ত জনাব শামসুল আলমকে আহবায়ক করে ‘সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ’ নামক একটি সাংগঠনিক কাঠামো গড়ে তোলা হয়।
ভাষা আন্দোলনের প্রথম সাধারণ ধর্মঘট
১৯৪৮ খ্রিষ্টাব্দের ২রা মার্চ রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের ডাকে সারা পূর্ব বাংলায় সাধারণ ধর্মঘট পালনের ডাক দেওয়া হয়। এ হরতালকে বাংলা ভাষা আন্দোলনের লক্ষ্যে আহুত প্রথম সাধারণ ধর্মঘট বলা হয়।

আরবি হরফে বাংলা চালুর প্রয়াস

error: Content is protected !!