প্রাগৈতিহাসিক বাংলাদেশ ও ভারত

মধ্য প্লেইস্টোসিন যুগ
মধ্যভারতের নর্মদা উপত্যকার হাথনোরায় প্রাপ্ত ”হোমো ইরেকটাস”-এর প্রক্ষিপ্ত অবশেষসমূহ সাক্ষ্য দেয় যে, ২ লাখ থেকে ৫ লাখ বছর পূর্ববর্তী “মধ্য প্লেইস্টোসিন” যুগে ভারতে মানববসতি ছিল। তবে উত্তর-তুষার যুগের বন্যার কারণে ভারত মহাসাগরের উপকূলভাগে বহিঃআফ্রিকা অনুপ্রবেশের যাবতীয় নিদর্শন অবলুপ্ত হয়ে গেছে ।

শারীরতাত্ত্বিকভাবে আধুনিক মানব প্রজাতি
তামিলনাড়ু অঞ্চলে প্রত্নতাত্ত্বিক খননে এমন কিছু নমুনা পাওয়া যায়, যা খ্রিষ্টের জন্মের ৭৫,০০০ বছর পূর্ববর্তী, টোবা আগ্নেয় উদ্গীরণের আগে ও পরের বলে অনুমিত। এই আবিষ্কার থেকে এই অঞ্চলে প্রথম শারীরতাত্ত্বিকভাবে আধুনিক মানব প্রজাতির উপস্থিতির কথা জানা যায়।

হোমো স্যাপিয়েন্স
হোমো স্যাপিয়েন্স বা আধুনিক মানুষ ৬০,০০০ থেকে ১,০০,০০০ বছর আগে আফ্রিকা থেকে অভিবাসী হয়ে দক্ষিণপূর্ব এশিয়াতে এসেছিল। যা আফ্রিকার বাইরে মডেল নামে পরিচিত। মনে করা হয়, প্রায় ১,০০,০০০ বছর পূর্বে আফ্রিকা থেকে বের হয়ে মধ্যপ্রাচ্যের মধ্য দিয়ে হোমো স্যাপিয়েন্স স্থানান্তরিত হয়।

মেসোলিথিক যুগের সূচনা
ভারতীয় উপমহাদেশে মেসোলিথিক যুগের সূচনা ৩০,০০০ বছর আগে। এই যুগ স্থায়ী ছিল ২৫,০০০ বছর।
প্রথম নিবিড় ও স্থায়ী জনবসতি
১২,০০০ বছর আগে সর্বশেষ তুষার যুগের শেষপর্বে উপমহাদেশে নিবিড় জনবসতি গড়ে উঠতে দেখা যায়। প্রথম স্থায়ী জনবসতির প্রমাণ মেলে আধুনিক ভারতের মধ্যপ্রদেশ রাজ্যে ৯০০০ বছরের প্রাচীন ভীমবেটকা প্রস্তরক্ষেত্রে।

নিওলিথিক সভ্যতা
পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশের মেহেরগড়ে খননকার্য চালিয়ে ৭০০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ ও তৎপরবর্তীকালের দক্ষিণ এশীয় নিওলিথিক সভ্যতার নিদর্শন আবিষ্কৃত হয়েছে। ভারতের খাম্বাত উপসাগরে নিমজ্জিত নিওলিথিক সভ্যতার কিছু নিদর্শন পাওয়া গেছে; রেডিও কার্বন পরীক্ষার পর যার সময়কাল নির্ধারিত হয়ে ৭৫০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ।

প্রস্তরযুগীয় লিপির আদিতম নিদর্শন
এডাক্কল গুহা প্রস্তরযুগীয় লিপির আদিতম নিদর্শনসমূহের অন্যতম। সিন্ধু উপত্যকায় ৬০০০ থেকে ২০০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ এবং দক্ষিণ ভারতে ২৮০০ থেকে ১২০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দের মধ্যে পরবর্তী নিওলিথিক সভ্যতা স্থায়ী হয়।

উপমহাদেশের প্রাচীনতম প্রত্নক্ষেত্র
সোন নদী উপত্যকার প্যালিওলিথিক হোমিনিড স্থলটি হলো উপমহাদেশের প্রাচীনতম প্রত্নক্ষেত্র।

প্রাচীন গ্রামীণ জীবনের সূচনা
উপমহাদেশের গ্রামীণ জীবনের সূচনা হয় নিওলিথিক স্থল মেহেরগড়ে এবং প্রথম নগরাঞ্চলীয় সভ্যতার বিকাশ ঘটে সিন্ধু অববাহিকা অঞ্চলে।

হরপ্পা সভ্যতার পতন ও বৈদিক সভ্যতার পত্তন
ভারতীয় উপমহাদেশে ইন্দো-আর্যভাষী উপজাতির অনুপ্রবেশের ফলে প্রাগৈতিহাসিক পরবর্তী হরপ্পা সভ্যতার পতন ঘটে এবং স্থানীয় সভ্যতার উপরেই স্থাপিত হয় বৈদিক সভ্যতা। স্থানীয় বাসিন্দারা আর্যদের কাছে দস্যু নামে পরিচিত হয়।

লৌহ যুগের সূচনা এবং প্রথম লৌহ শব্দের উল্লেখ
১০০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে উত্তর-পশ্চিম ভারতে লৌহ যুগের সুচনা হয়। এই যুগে রচিত অথর্ববেদে প্রথম লৌহের উল্লেখ মেলে। ওই গ্রন্থে লৌহকে “শ্যাম অয়স” বা কালো ধাতু বলে চিহ্নিত করা হয়। চিত্রিত ধূসর ধাতব সভ্যতা উত্তর ভারতে ১১০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ থেকে ৬০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ পর্যন্ত স্থায়ী হয়।

পারসিক আক্রমণ ও হখমনি সাম্রাজ্য
৫২০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে প্রথম দারায়ুসের রাজত্বকালে ভারতীয় উপমহাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের বর্তমান পূর্ব আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের অধিকাংশ অঞ্চল পারসিক হখামনি সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়ে পড়ে এবং পরবর্তী দুশ বছর ওই সা¤্রাজ্যের অধীনেই থেকে যায়।

error: Content is protected !!