প্রাথমিক কিন্তু দশমিক, দাশমিক নয় কেন: সিঞ্চন থেকে সেচ, সেঁচ নয় কেন; সৎমা সৎ নয়; কেন বনাম কেনো

ড. মোহাম্মদ আমীন

প্রাথমিক কিন্তু দশমিক, দাশমিক নয় কেন: সিঞ্চন থেকে সেচ, সেঁচ নয় কেন; সৎমা সৎ নয়; কেন বনাম কেনো

 

প্রাথমিক কিন্তু দশমিক, দাশমিক নয় কেন

শুবাচে জনাব আলী হুসাইন প্রশ্ন করেছেন: ইক প্রত্যয়ান্ত শব্দের প্রথম অক্ষরে সাধারণত আ- কার (- া) যুক্ত হয়। যেমন-

ব্যবহার থেকে ব্যাবহারিক।
সপ্তাহ থেকে সাপ্তাহিক।
পরিবার থেকে পারিবারিক।
অনুমান থেকে আনুমানিক।
প্রথম থেকে প্রাথমিক।
কিন্তু দশম থেকে দশমিক কেন? দাশমিক হয় না কেন?
 
 
প্রাথমিক= প্রথম+ইক। এটি সংস্কৃত বা তৎসম শব্দ। সংস্কৃত ‘প্রথম’ শব্দের সঙ্গে ইক্ প্রত্যয় যুক্ত হয়ে গঠিত হয়েছে প্রাথমিক। ইক-প্রত্যয় যুক্ত হলে সাধারণত প্রথম স্বর অ থাকলে আ-কার হয়ে যায়। তাই প্রথম+ইক= প্রাথমিক।
 
কিন্তু
পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.
দশমিক শব্দটি সংস্কৃত নয়। এটি বাংলা শব্দ। বাংলামতে এটি গঠিত হয়েছে, সংস্কৃত ব্যাকরণের কোনো সূত্র এটাতে প্রযোজ্য হয়নি। অর্থাৎ, দশমিক শব্দটি ইক বা অন্যকোনো প্রত্যয়-যোগে গঠিত শব্দ নয়। এটি ইক-প্রত্যয় যুক্ত হয়েও গঠিত হয়নি। তাই দ-য়ে আ-কার অনাবশ্যক। দশমিক বাংলা শব্দ। অন্যান্য বাংলা শব্দের মতো এর কোনো ব্যাকরণিক ব্যুৎপত্তি নেই। তাই, প্রাথমিক, কিন্তু দশমিক।
বিষয়টি জানার জন্য আপনি যে-কোনো প্রামাণ্য অভিধান দেখতে পারেন।
 
সিঞ্চন থেকে সেচ, সেঁচ নয় কেন
আমরা জানি, কোনো শব্দে ন, ঞ, ম ইত্যাদি উহ্য থাকলে চন্দ্রবিন্দুর ব্যবহার হয়। যেমন- আঁকা (অঙ্কন), পুঁজি (পুঞ্জী), ধোঁয়া (ধূম্র), কাঁপা (কম্পন), হাঁড়ি (হান্ডি), রেস্তোরাঁ (রেস্টুরেন্ট), আঁতাঁত (এন্টেন্ট) ইত্যাদি।
এখন প্রশ্ন হচ্ছে- সিঞ্চন থেক সেচ শব্দটি এসেছে। সেচ কেন চন্দ্রবিন্দুযোগে সেঁচ লেখা হয় না?
 
সৎমা সৎ নয় কেন
 
‘সৎ’ অর্থ ভালো, সুতরাং ‘সৎমা’ অর্থ ভালো যে মা। কিন্তু সৎমায়ের মতো নিষ্ঠুর আর কেউ কী আছে? সৎমায়ের নৃশংসতার কতো করুণ কাহিনি প্রত্যহ আমাদের শুনতে হয়, অনেককে দেখতে হয়, কাউকে কাউকে ভুগতেও হয়। তো এমন নিষ্ঠুর ও নৃশংস মায়ের নাম কীভাবে ‘সৎমা’ হলো? সংস্কৃত সপত্নী থেকে ‘সতিন’ এবং সতিন থেকে ‘সৎ’ এসেছে। এ ‘সৎ’ এর সঙ্গে ‘মা’ যুক্ত হয়ে গঠিত হয়ছে সৎমা। মূলত সতীনের ‘সৎ’ থেকে ‘সৎমা’ শব্দের উৎপত্তি। তাই ‘সৎমা’ শব্দের ‘সৎ’ ভালো ‘সৎ’ নয়; সতিন সৎ।

কেন ও কেনো

কেন: কেন অর্থ কী জন্য, কীসের জন্য, কী কারণে। এটি প্রশ্নবোধক অব্যয়। যেমন: তুমি কেন এসেছ? কেন তুমি লকডাউন ভেঙে রাস্তায় নেমে এলে? কেন এত রাতে সে ঘরের বাইরে?
কেন চোখের জলে ভিজিয়ে দিলেম না শুকনো ধুলো যত
কে জানিত আসবে তুমি গো অনাহূতের মতো।” (রবীন্দ্রনাথ)
 
কেনো: কেনো অর্থ ক্রয় করার অনুজ্ঞা, কিছু কেনার জন্য বলা। যেমন: মাছটি কেনো। তাড়াতাড়ি কেনো। কেন কেনো না সোনা?
কেনো কেনো করো কেন সারা দিন-রাত
প্রিয়া বলে, আগে কেনো পরে খেও ভাত।

সবুজ

কোন দেশি শব্দ? সংস্কৃত না ফারসি? এর অর্থ ও উচ্চারণ জানতে চাই।
বাক্যে বিশেষ্য হিসেবে ব্যবহৃত সবুজ অর্থ—
(১) নির্দিষ্ট অনুপাতে নীল ও হলুদ রঙের মিশ্রণের ফলে সৃষ্ট রঙ, হরিৎ।
প্রয়োগ: চারদিকে সবুজ আর সবুজ।
(২) অল্পবয়স্ক বা তরুণ।
প্রয়োগ: ওরে সবুজ ওরে আমার কাঁচা—।
(৩) বিশেষণে সবুজ অর্থ— হরিদ্‌বর্ণ।
প্রয়োগ: সবুজ পতাকা।
সবুজ শব্দটি ফারসি। উচ্চারণ: শোবুজ্‌।
————————————————————————————————————————————–
 

 

error: Content is protected !!