বাংলা বানান নিমোনিক : অপরাহ্ণ প্রাহ্ণ পূর্বাহ্ণ মধ্যাহ্ন ও সায়াহ্ন

অপরাহ্ণ প্রাহ্ণ পূর্বাহ্ণ মধ্যাহ্ন ও সায়াহ্ন
ড. মোহাম্মদ আমীন
অপরাহ্ণ প্রাহ্ণ পূর্বাহ্ণ মধ্যাহ্ন ও সায়াহ্ন শব্দগুলোর বানানে কোথায় ‘দন্ত্য-ন’ এবং কোথায় ‘মূর্ধন্য-ণ’ হবে এ নিয়ে অনেকে দ্বিধায় পড়ে যান।  দ্বিধামুক্ত থাকার জন্য নিচের বিষয়গুলো মনে রাখা যেতে পারে।
ব্যাকরণের সূত্রমতে প্র, পরা, পূর্ব ও অপর প্রভৃতি উপসর্গ-পরবর্তী শব্দের ‘দন্ত্য-ন’ পরিবর্তিত হয়ে ‘মূর্ধন্য-ণ’ হয়ে যায়। এজন্য প্রাহ্ণ, পরাহ্ণ, পূর্বাহ্ণ, অপরাহ্ণ প্রভৃতি শব্দের বানানে হ-বর্ণের নিচে ‘মূর্ধন্য-ণ’ বসে। আরো সহজে মনে রাখার জন্য বলা যায়, এই শব্দগুলোর মধ্যে যে শব্দের বানানে হ-বর্ণের আগে র/র-কার আছে সে-সব শব্দের বানানে মূর্ধন্য-ণ হবে। যেমন : অপরাহ্ণ, প্রাহ্ণ, পূর্বাহ্ণ শব্দের বানানে ‘র/র-কার’ আছে, তাই শব্দত্রয়ের বানানে মূর্ধন্য-ণ।
ওপরের বিষয়গুলো ব্যাকরণের বিধি। অনেকে মনে রাখতে পারেন না। যদি মনে না-থাকে তাহলে নিচের নিমোনিকটি মনে রাখতে পারেন। তাহলে ভুল হওয়ার আশঙ্কা থাকবে না।শব্দগুলোর প্রত্যেকটির বানানে হ-বর্ণটি রয়েছে। মনে করুন, হ-বর্ণটি আকাশ। এবার  তাহলে দেখুন আমার নিমোনিকটি শব্দগুলোর বানানকে কত সহজ করে দেয়:
 ‘প্রাহ্ণ’ ও ‘পূর্বাহ্ণ’ শব্দের অর্থ হচ্ছে প্রাতঃকাল বা দিনের প্রথমভাগ। এসময় সূর্য নিচে অবস্থান করে। তাই ‘পূর্বাহ্ণ’‘প্রাহ্ণ’ বানানে ‘মূর্ধন্য-ণ’ বর্ণটিকে হ-বর্ণের নিচে দিতে হয়।
‘মধ্যাহ্ন’ হচ্ছে দিবসের মধ্যভাগ। এসময় সূর্য  আকাশের মধ্যভাগে অবস্থান করে। তাই শব্দটির বানানে দন্ত্য-ন বর্ণকে ‘হ’ বর্ণের মাঝখানে দিতে হয়।
‘অপরাহ্ণ’ হচ্ছে, দিবসের শেষভাগ। এসময় সূর্য আকাশের নিচে অবস্থান করে। তাই অপরাহ্ণ বানানে ‘মূর্ধন্য-ণ’ বর্ণকে হ-বর্ণের নিচে রাখতে হয়।
‘সায়াহ্ন’ শব্দের অর্থ সন্ধ্যা। এটি দিন ও রাতের মধ্যভাগ। তাই শব্দটির বানানে ‘দন্ত্য-ন’ বর্ণটি হ-বর্ণের মাঝখানে বসান।
(এগুলো ব্যাকরণের কোনো সূত্র নয়, বানান মনে রাখার কৌশল মাত্র। এখানে ব্যাকরণ খোঁজা নিরর্থক।)

 

বহিঃ ও বহি নিমোনিক :

অব্যয় হিসেবে ব্যবহৃত সংস্কৃত ‘বহিঃ (√বহ্‌+ইস্‌)’ শব্দের অর্থ বাহির। ‘বহিঃ’ শব্দের সঙ্গে যখন কোনো শব্দ বা শব্দাংশ যুক্ত হয়, তখন কোথাও ‘বহিঃ’ শব্দের বিসর্গ অবিকল থেকে যায় আবার কখনও বিসর্গ থাকে না। প্রশ্ন হলো, এটি কীভাবে মনে রাখবেন? এজন্য একটি নিমোনিক মনে রাখা যায়।

‘বহিঃ’ শব্দের অব্যবহিত পর ‘র’ উচ্চারিত না-হলে ‘বহিঃ’যুক্ত সেসব শব্দে সাধারণত ‘বহিঃ’ বা বিসর্গ অবিকল থাকবে। যেমন : বহিঃপ্রকাশ, বহিঃশক্তি, বহিঃশুল্ক, বহিঃসমর্পণ, বহিঃসমুদ্র, বহিঃস্থ, বহিঃস্থিত ইত্যাদি।

‘বহিঃ’ শব্দের পর ‘র’ উচ্চারিত হলে অথবা যুক্তব্যঞ্জন থাকলে সেসব শব্দের বানানে বিসর্গ থাকবে না। যেমন : বহিরংশ, বহিরঙ্গ, বহিরাগত, বহিরাগমন, বহিরাবরণ, বহিরিন্দ্রিয়, বহির্গত, বহির্গমন, বহির্জগৎ, বহির্দেশ, বহির্দ্বার,বহির্বাটি, বহির্বাণিজ্য, বহির্বাস, বহির্ভবন, বহির্ভাগ, বহির্ভূত,বহির্মুখ, বহির্লোক।

‘বহিঃ’ শব্দের পর যুক্তব্যঞ্জন থাকলেও বিসর্গ লোপ পাবে। যেমন: বহিশ্চর, বহিষ্করণ, বহিষ্ক্রান্ত. বহিস্ত্বক।
ব্যতিক্রম : বহিঃস্থ এবং বহিস্থ উভয় বানান শুদ্ধ।

প্রসঙ্গত, নিমোনিক কোনো ব্যাকরণ সূত্র নয়, মনে রাখার সহজ কৌশল মাত্র। এরূপ আর কোনো শব্দ জানা থাকলে এবং নিমোনিকের ব্যতিক্রম কিছু ধরা পড়লে অনুগ্রহপূর্বক জানাবেন। তাহলে, আরও মার্জিত করার চেষ্টা করা হবে।

সূত্র: নিমোনিক প্রমিত বাংলা বানান অভিধান, ড. মোহাম্মদ আমীন।

————————————————————————————————

All Link

বিসিএস প্রিলি থেকে ভাইভা কৃতকার্য কৌশল

ড. মোহাম্মদ আমীনের লেখা বইয়ের তালিকা

বাংলা সাহিত্যবিষয়ক লিংক

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক সকল গুরুত্বপূর্ণ সাধারণজ্ঞান লিংক

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/১

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/২

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন /৩

কীভাবে হলো দেশের নাম

ইউরোপ মহাদেশ : ইতিহাস ও নামকরণ লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১

দৈনন্দিন বিজ্ঞান লিংক

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৩

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৪

কীভাবে হলো দেশের নাম

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/২

বাংলাদেশের তারিখ

ব্যাবহারিক বাংলা বানান সমগ্র : পাঞ্জেরী পবিলেকশন্স লি.

শুদ্ধ বানান চর্চা প্রমিত বাংলা বানান বিধি : বানান শেখার বই

কি না  বনাম কিনা এবং না কি বনাম নাকি

মত বনাম মতো : কোথায় কোনটি এবং কেন লিখবেন

ভূ ভূমি ভূগোল ভূতল ভূলোক কিন্তু ত্রিভুবন : ত্রিভুবনের প্রিয় মোহাম্মদ

মত বনাম মতো : কোথায় কোনটি এবং কেন লিখবেন

প্রশাসনিক প্রাশাসনিক  ও সমসাময়িক ও সামসময়িক

বিবিধ এবং হযবরল : জ্ঞান কোষ

সেবা কিন্তু পরিষেবা কেন

error: Content is protected !!