বাংলা বানান : মূর্ধন্য-ণ : ণ বানান : শুদ্ধ বানান : ঘরের গোরু ঘাটার ঘাস

ঘরের গোরু ঘাটার ঘাস
ড. মোহাম্মদ আমীন

গণ্যমান্য দারুণ তরুণ এবং  নিপুণ ও বর্ণিল ভূষণধারী গুণধর লবণ-বণিক ‘মূর্ধন্য-ণ’ আসাধারণ কল্যাণকর একটি গণ-প্রাণ ও হৃদয়হরণ হরিণচঞ্চল ব্রাহ্মণ বর্ণ। বাণিজ্য বিপণির পুণ্য আপণে কৃপাণ প্রণীত অবতরণ আর মণ মণ পণ্য গণনা কৃপণ ‘মূর্ধন্য-ণ’-এর প্রমাণ লক্ষণ। শ্রাবণ মাসের পর্বণে প্রাঙ্গণে বসে শ্রবণ অর্পণ আর গ্রহণ করে— তর্পণ করে শ্রীচরণ হারা শ্রীমান আর অগ্রহায়ণ প্রণালির প্রণেতা অরুণ বরুণের মুখমণ্ডল। সে আক্রমণ করে, আক্রান্ত হয় না। গণ্ডমূর্খ হলেও গন্ডগোলে নেই, পণ্ডিত বলে মন্দিরের পাণ্ডায় থাকে, কিন্তু বৃক্ষের পান্ডায় থাকে না।  ‘দুর’ তার অপছন্দ, তাই দুর্নীতি  দুর্নামে নেই;  রামায়ণে আছে রসায়নে নেই,  বরণে আছে ধরনে নেই,  মরণে আছে পরনে নেই। করুণ হলেও করুন, ধরুন, মারুন, সরুন, পরুন— কোনো কার্যকরণে থাকে না। কারণ— করণ তার বারণ। রমনায় যায় না, বিজয় সরণির কোণে বসে বীণা হাতে সারাক্ষণ  রমণী দেখে।

ক্ষীণ কণ্ঠের রুগ্‌ণ ‘মূর্ধন্য-ণ’, ব্যাকরণের চর্বণ তর্পনে ম্রিয়মাণ রাণী হারিয়ে ভ্রাম্যমাণ রানি। আ-কার হারিয়ে ব্রাহ্মণ এখন ব্রহ্মন।  ষ ঋ র আর ক্ষ ছাড়া কোথাও পূর্ণ বর্ষণ বর্ণন দেয় নাতবে অতৎসম হলে তাদেরও সে সঙ্গে নেয় না। তাই শিহরন, কোরআনে ‘মূর্ধন্য-ণ’ নেই, কিন্তু পরিবহণে তার প্রচুর উপকরণ। অপেক্ষমাণ ও এক্ষণে বানানে এক্ষণ মূর্ধন্য-ণ দিয়ে দিন। তবে,  মরণ-বরণ-হরণ-ত্বরণ, অরণ্য-আরোহণ আর অণু-বাণ ছাড়া কক্ষনো এক্ষুনি আর প্রার্থনা বানানে মূর্ধন্য-ণ দেবেন না। আর একটা কথা— ‘মূর্ধন্য’ বানানে কিন্তু ‘মূর্ধন্য-ণ’ নেই। কারণ, ঘরের গোরু ঘাটার ঘাস খায় না।

বাংলা শব্দে সাধারণত ণত্ব বিধান অনুযায়ী মূর্ধন্য-ণ ব্যবহৃত হয়। কিন্তু কিছু কিছু শব্দে কোনো বিধান ছাড়াই মূর্ধন্য-ণ বসে। সেগুলো মনে রাখার জন্য মা কিশোরকালে একটা ছড়া শিখিয়েছিলেন। রচয়িতা কে জানি না। ছড়াটি মনে রাখলে বানান ভুল কিছুটা হলেও কমবে।

চাণক্য মাণিক্য গণ বাণিজ্য লবণ মণ
বেণু বীণা কঙ্কণ কণিকা
কল্যাণ শোণিত মণি স্থাণু গুণ পুণ্য বেণী
ফণী অণু বিপণি গণিকা
আপণ লাবণ্য বাণী নিপূণ ভণিতা পাণি
গৌণ কোণ ভাণ পাণ শাণ
চিক্কণ নিক্কণ তূণ কফণি (কনুই) বণিক গুণ
গণনা পিণাক পণ্য বাণ। 

কবি বলেছেন, “ফাল্গুনে গগনে ফেনে ণত্বমিচ্ছন্তি বর্বরাঃ।”  অর্থাৎ, ইচ্ছে করে “ফাল্গুন, গগন, ফেন’ শব্দে যাঁরা ‘মূর্ধন্য-ণ’  দেয়, কবির ভাষায় তারা বর্বর। তেমনি ‘আগুন, বেগুন, মিথুন, সেগুন’ শব্দসমূহেও দন্ত্য-ন। ‘আপ্যায়ন, মনীষী, অঙ্কন, শূন্য, দুর্নাম, দুর্নীতি’ প্রভৃতি শব্দে মূর্ধন্য-ণ দিলে ভুল হবে। 

——————————————————————————————————————————-

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ সকল সাধারণ জ্ঞান

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৩

শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৪

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র

কীভাবে হলো দেশের নাম

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ সাধারণজ্ঞান লিংক

বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ সকল সাধারণ জ্ঞান

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি ভর্তি গাইড

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে  ভর্তি হবেন যেভাবে

error: Content is protected !!