বাংলা সাহিত্যের প্রথম ইতিহাস : বিসিএস বাংলা সাধারণ জ্ঞান

বাংলা সাহিত্যের প্রথম ইতিহাস
প্রাচীন ও আধুনিক কালের বাংলা সাহিত্যের প্রথম ইতিহাস রচয়িতা পণ্ডিত রামগতি ন্যায়রত্ন। ১৮৭৩ খ্রিষ্টাব্দে রামগতি ন্যায়রত্ন রচিত ‘বাঙ্গালা ভাষা ও বাঙ্গালা সাহিত্যবিষয়ক প্রস্তাব’ বাংলা সাহিত্যের বিবরণ সংবলিত ভাষাবিষয়ক প্রথম ইতিহাস গ্রন্থ। গ্রন্থটিতে বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগ ও উনিশ শতকের সাহিত্য সম্পর্কে ধারাবাহিক আলোচনা করা হয়েছে।

ভাষার ইতিবৃত্ত নিয়ে রচিত এই ইতিহাস গ্রন্থটি (১) আদ্যকাল অর্থাৎ প্রাকচৈতন্য পর্ব, (২) মধ্যকাল অর্থাৎ চৈতন্যযুগ এবং (৩) ইদানীন্তনকাল নামক তিনটি অংশে বিভক্ত। প্রথম অংশে বিদ্যাপতি, চণ্ডীদাস ও কৃত্তিবাসের; দ্বিতীয় অংশে ভারতচন্দ্রের পূর্ব পর্যন্ত এবং তৃতীয় অংশে ভারতচন্দ্র হতে রামগতি ন্যায়রত্নের সমকালীন কবি সাহিত্যিকগণের বিবরণ রয়েছে।

মাতৃভাষার সংখ্যা
ইউনেসকোর (UNESCO) সদর দপ্তর প্যারিস থেকে বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রেরিত একটি ফ্যাক্স বার্তার ভাষ্যমতে পৃথিবীতে মাতৃভাষার সংখ্যা ছয় হাজার। তন্মধ্যে চিনা, ইংরেজি, রুশ, ফরাসি, ফারসি, স্পেনিশ, আরবি, জার্মান, জাপানি, পর্তুগিজ, হিন্দি, উর্দু এবং বাংলা প্রধান ও বহুল প্রচলিত ভাষা। সারাবিশ্বে প্রতিবছর প্রায় ৭টি করে ভাষা বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। ভারতে প্রচলিত-অপ্রচলিত মোট ভাষার সংখ্যা ১,৬৫২টি। ভারতে, জাতীয় ভাষা হিসেবে স্বীকৃত ও অষ্টম তপসিলভুক্ত ভাষার সংখ্যা ১৮টি।

মহাভারতের প্রথম স্বয়ংসম্পূর্ণ বঙ্গানুবাদ
সপ্তদশ শতকের কবি কাশীরাম দাশ, কৃষ্ণদ্বৈপায়ন বেদব্যাসের সংস্কৃত মহাভারত অনুসরণে ‘মহাভারত’ রচনা (রচনা কাল ১৬০২ খ্রিষ্টাব্দ -১৬০৫ খ্রিষ্টাব্দ ) করেন। কাশীরাম দাশ, চার পর্ব পর্যন্ত অনুবাদ সমাপ্ত করার পর মারা যান। বাকি অংশের অনুবাদ তাঁর ভ্রাতষ্পুত্র নন্দরায় এবং পরে আরও কয়েকজনের মাধ্যমে সমাপ্ত হয়। এটিই মহাভারতের প্রথম স্বয়ংম্পূর্ণ বঙ্গানুবাদ।

ড. মোহাম্মদ আমীন, বিসিএস(প্রশাসন), দশম ব্যাচ

বাংলা সাহিত্য ও বাংলা ভাষার ইতিহাসবিষয়ক লিংক

অতি প্রয়োজনীয় কিছু বাংলা বানান

error: Content is protected !!