বাংলা হতে দীর্ঘস্বর তুলে দিলে কী হবে

ড. মোহাম্মদ আমীন

ড. মোহাম্মদ আমীন

বাংলা হতে দীর্ঘস্বর তুলে দিলে কী হবে
সংযোগ: https://draminbd.com/বাংলা-হতে-দীর্ঘস্বর-তুলে/

বাংলায়  অভিধানভুক্ত শব্দের সংখ্যা প্রায় ১,৬০০০০ (যদিও মোট শব্দ সংখ্যা প্রায় ৩ লাখ)। অভিধানভুক্ত এই ১,৬০,০০০ শব্দের মধ্যে তৎসম প্রায় ২৫ ভাগ বা ৪০,০০০ এবং অর্ধ-তৎসম ৫ ভাগ বা ৮,০০০ ও তদ্ভব ৬০ ভাগ বা ৯৬,০০০। এ বিবেচনায় মোট সংস্কৃতাজাত শব্দ ১,০৪০০০।  মূলত,  তৎসম নামের শব্দসমূহের অর্থগত পার্থক্য দ্যোতিত করার জন্য সংস্কৃতের অনুরূপ বানান হিসেবে তৎসম শব্দের জন্য বাংলায় দীর্ঘস্বর রাখা হয়েছে। অন্যথায় তার প্রয়োজন ছিল না। সুতরাং, বাংলা হতে  তৎসম শব্দ  তুলে দিলেই কেবল বাংলায় দীর্ঘস্বরের প্রয়োজনীয়তা ফুরিয়ে যাবে। অর্থাৎ, দীর্ঘস্বর তুলে বাংলায় আর তৎসম শব্দ থাকবে না। সেক্ষেত্রে বাংলায় ব্যবহৃত প্রায় ৪০.০০০ এবং অভিধান বহির্ভূত আরও ১০,০০০ মোট ৫০,০০০ তৎসম শব্দে সরাসরি অর্থ ও বানান বিপর্যয় ঘটার আশঙ্কা রয়েছে। পরোক্ষ বিপর্যয় ঘটবে ১,০৪০০০  সংস্কৃতজাত (অর্ধ-তৎসম ও তদ্ভব) শব্দে ।

উল্লেখ্য, প্রায় অভিন্ন চরিত্রের বলে অর্ধ-তৎসম নামটি অধুনা বাদ দিয়ে এই নামে পরিচিত শব্দগুলোকে তদ্ভবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।  আগে যেগুলো অর্ধ-তৎসম ছিল এখন সেগুলোও তদ্ভব নামে পরিচিত। 

বাংলাদেশের বাংলায় দীর্ঘস্বর তুলে দেওয়া হলে পশ্চিমবঙ্গ কী তা করবে?  করবে এমনটি বলা যায় না। যদি না করে তো কী হবে? অভিধানভুক্ত ১,৬০,০০০ শব্দের মধ্যে প্রত্যক্ষভাবে ৪০,০০০ ও পরোক্ষভাবে ১,০৪,০০০; মোট ১,৪৪,০০০ শব্দের বানানে বিপর্যয় ঘটবে। বাকি থাকে ১৬,০০০ শব্দ। তাই যদি হয় তো বাংলাদেশের বাংলা আর পশ্চিমবঙ্গ ও পৃথিবীর অন্যান্য দেশের বাংলা ভিন্ন  ভাষায় পরিণত হবে। ১৬,০০০ শব্দ ছাড়া বাকি ১,৪৪,০০০ শব্দ তাদের কাছে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে অপরিচিত হয়ে যাবে। তাই দীর্ঘস্বর তুলে দেওয়া এত সহজ কাজ নয়। আমরা তাদের বাংলা বুঝব না আর তারা বুঝবে না বাংলাদেশের বাংলা। ফলে বর্তমানে বাংলা নামে পরিচিত ভাষাটির বিদ্যমান বৈশিষ্ট্য লুপ্ত হয়ে যাবে। আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম বুঝবে না বিখ্যাত সাহিত্যিকদের লেখা ভাষা। যদি কালক্রমে ধীরে ধীরে প্রাকৃতিক নিয়মানুসের পরিবর্তিত হয়ে যায় তাহলে সেটি অন্য কথা।  প্লাস্টিক সার্জারির মাধ্যমে পরিবর্তন আর প্রাকৃতিক পরিবর্তন  এক নয়। আমার শারীরিক অবয়ব প্রাকৃতিক নিয়মানুসের পরিবর্তন হয়েছে বলে তা উদ্ভট এবং আমার কাছে অপরিচিত আর ক্ষতিকর প্রতিভাত হয় না।

প্রসঙ্গত, বাংলায় ব্যবহৃত অভিধানভুক্ত বিদেশি শব্দের সংখ্যা (৮% হিসেবে) ১২,৮০০ এবং দেশি শব্দের সংখ্যা (২% হিসেবে) ৩,২০০। প্রশ্ন আসতে পারে, বাংলার প্রাচীন লোকজন কি তাহলে মাত্র ৩২০০ শব্দ দিয়ে আলাপ-আলোচনা করত?  না। বারবার আগ্রাসনের কবলে পড়ে বিজেতা জাতির ভাষার থাবায় সমৃদ্ধ দেশি ভাষার দেশি শব্দ ক্রমশ লুপ্ত হতে হতে এ পর্যায়ে  পৌঁছেছে। এভাবে আগ্রাসনের কবলে পড়ে অনেক সমৃদ্ধ ভাষাও লুপ্ত হয়ে গেছে। বাংলার ভাগ্য ভালো যে, অন্তত বাংলা নামে সে টিকে আছে। (বিস্তারিত দেখুন: বাংলা ভাষায় কতটি দেশের কতটি শব্দ আছে।)অথচ আগ্রাসনের  কবেলে পড়ে বাংলার চেয়ে অনেক বেশি ভাষাভাষীর ভাষা বিলুপ্ত হয়ে গেছে।

সম্পর্কিত লেখার সংযোগ: তৎসম বিদেশ শব্দ নয় কেন? সংস্কৃত ছাড়া অন্য ভাষা হতে আগত শব্দ বিদেশি কেন

সম্পর্কিত  লেখার সংযোগ: বাংলা হতে দীর্ঘস্বর তুলে দিলে কী হবে

জানা অজানা অনেক মজার বিষয়: https://draminbd.com/?s=অজানা+অনেক+মজার+বিষয়
শুবাচ গ্রুপের সংযোগ: www.draminbd.com
শুবাচ যযাতি/পোস্ট সংযোগ: http://subachbd.com/
error: Content is protected !!