বাঙাল: বাঙাল কোন উৎসের শব্দ? অর্থ কী? বাংলাদেশি বানানে ই-কার কেন

ড. মোহাম্মদ আমীন

এই পোস্টের সংযোগ: https://draminbd.com/বাঙাল-বাঙাল-কোন-উৎসের-শব্/

 
বাঙাল কোন উৎসের শব্দ? এর অর্থ কী?
 
বাঙাল শব্দটি সংস্কৃত বঙ্গ থেকে উদ্ভূত খাঁটি বাংলা শব্দ। অনুরূপ: বাঙালি, বাংলা প্রভৃতিও বঙ্গ হতে উদ্ভূত। বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, বাঙাল শব্দটি  ব্যঙ্গার্থে (বিশেষণ হিসেবে)  ব্যবহৃত হয়। যার অর্থ— সাবেক পূর্ববঙ্গ এবং বর্তমানে বাংলাদেশের অধিবাসী। পশ্চিম বঙ্গের  ঘটিরা  প্রাক্তন পূর্ববঙ্গ বা বর্তমান বাংলাদেশের বাঙালি বা অধিবাসীদের ব্যঙ্গার্থে বাঙাল সম্বোধন শুরু করে। এখন এক বাংলাদেশি অন্য বাংলাদেশিকে ব্যঙ্গার্থে বাঙাল বলে থাকে হরদম। সুতরাং, অভিধার্থ প্রয়োগ বিবেচনায় বাঙাল সম্বোধনটি — নেতিবাচক এবং উপহাস ও ব্যঙ্গার্থে ব্যবহৃত একটি শব্দ। অনেকে গালি হিসেবও শব্দটি ব্যবহার করে থাকে। তবে গৌরবের স্মৃতি হিসেবেও বাঙাল শব্দটি ব্যবহার করা হয়। 
 
বাঙাল  হলো ঘটি জনগোষ্ঠীর কাছে প্রায় অপাঙ্‌ক্তেয় হিসেবে চিহ্নিত একটি বাংলাভাষী জনগোষ্ঠী। এর দ্বারা  বর্তমান বাংলাদেশের মানুষদের বোঝায়। বাঙাল শব্দটি ঘটিরা স্বতন্ত্র উচ্চারণ ও সংস্কৃতির ভিত্তিতে অখণ্ড বাংলার পূর্ব প্রান্তের বাঙালিদের চিহ্নিত করার  জন্য ব্যবহার করত।
 
বাংলাদেশি বানানে ই-কার কেন
 
 
বাংলাদেশি শব্দের মিলনে বাংলাদেশি। দেশি শব্দটি সংস্কৃত দৈশিক হতে উদ্ভূত। তাই এটি খাঁটি বাংলা শব্দ বা অতৎসম শব্দ। অতৎসম শব্দের বানানে সাধারণত ঈ-কার বিধেয় নয়।  দেশি অতৎসম শব্দ। তাই বানানে ই-কার। অধিকন্তু, মূল শব্দ দৈশিক-এর বানানেও ই-কার। তাই বাংলাদেশি বানানে ই-কার অপরিহার্য। প্রসঙ্গত, বাংলাদেশি শব্দের অর্থ— (বিশেষণে) বাংলাদেশজাত, বাংলাদেশে উৎপন্ন (বাংলাদেশি পণ্য ), বাংলাদেশে প্রচলিত (বাংলাদেশি চালচলন, বাংলাদেশি সংস্কৃতি)।
 

কে কখন আলাদা ও কখন পৃথক বসে?

“আপনাকে যেতে বলেছে কে?” এই বাক্যে প্রথম কে, বিভক্তি এবং দ্বিতীয় কে, সর্বনাম। কে কে দেশের জন্য জীবনকে উৎসর্গ করতে চাও?” এই বাক্যে কে কে সর্বনাম এবং জীবন-এর সঙ্গে যুক্ত কে বিভক্তি। অনুরূপ: তাকেকে এখানে আসতে বলেছে?
 
নিমোনিক:
(১) সর্বনাম হিসেবে ব্যবহৃত হলে কে আলাদা বসে। যেমন: তোমার বাবা কে তা আমি জানতাম না। এখানে কে শব্দটি সর্বনাম হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ায় বাবা থেকে পৃথক বসেছে।
 
সাধারণত প্রশ্নবোধক বাক্যে কে শব্দটিকে পূর্ববর্তী শব্দ থেকে ফাঁক রেখে লেখার বহুল প্রয়োগ লক্ষণীয়। যেমন: আপনি কে? তোমরা কে কে যাবে? তুমি কে?

(২) প্রশ্নবোধক হোক বা না হোক বিভক্তি হিসেবে ব্যবহৃত হলে -কে পূর্ব শব্দের সঙ্গে সেঁটে বসে। যেমন: আপনাকে যেতে হবে। তোমাকে আমার চাই। মা, আমাকে ডাকছ? দেশকে ভালোবাস, জাতিকে সেবা দাও। মামাকে দেখতে যাবে না হাসপাতালে? আপাকে ডাকব?
 
 
সরু ও খসম অর্থ কী?
খসরু কসম: আরবি উৎসের শব্দ কসম অর্থ— (বিশেষ্যে) স্বামী, পতি। ফারসি উৎসের শব্দ হিসেবে চিহ্নিত খসরু অর্থ— রাজা, বাদশা।
 
 
শুবাচ গ্রুপের লিংক: www.draminbd.com
error: Content is protected !!