বাবুর্চি বাবুর্চিখানা, আত্মহনন আত্মহত্যা, নতুন পাসপোর্ট ভুল বানান; ক্রীড়মান কিন্তু ক্রিয়মাণ, ক্রমমাণ ও ভ্রাম্যমাণ কেন

ড. মোহাম্মদ আমীন

বাবুর্চি বাবুর্চিখানা, আত্মহনন আত্মহত্যা, নতুন পাসপোর্ট ভুল বানান; ক্রীড়মান কিন্তু ক্রিয়মাণ, ক্রমমাণ ও ভ্রাম্যমাণ কেন

আত্মহনন ও আত্মহত্যা:নন ও হত্যার অর্থ অভিন্ন। আত্ম অর্থ নিজ। সুতরাং আত্মহত্যা ও আত্মহনন শব্দের অর্থও নিজেকে নিজে হত্যা। আভিধানিক অর্থ অভিন্ন হলেও শব্দদুটোর প্রায়োগিক অর্থে ভিন্নতা রয়েছে। হনন আর হত্যা শব্দ দুটো একটা আরেকটার সমার্থক হলেও হনন শব্দটা মানুষের বেলায় অধিক ব্যবহার হতে দেখা যায়। যেমন- পিতৃহনন, গুরুহনন, শত্রুহনন, শত্রুহনন ইত্যাদি। হত্যা সকল প্রাণীর ক্ষেত্রে ব্যবহার হয়ে থাকে। যেমন- মানুষ হত্যা, গোহত্যা, প্রাণীহত্যা, ভ্রাতৃহত্যা, পিতৃহত্যা ইত্যাদি। তেমনি, আত্মহনন বা আত্মহত্যা শব্দ দুটো একটা আরেকটার সমার্থক এবং মানুষের ক্ষেত্রে এবং কিছু কিছু পশু যারা নিজেই নিজেকে হত্যা করে তেমন পশুর ক্ষেত্রে ব্যবহার হয়ে থাকে। একজাতীয় ইঁদুর, হাতি, ডলফিন প্রভৃতি প্রাণী নাকি মানুষের ন্যায় আত্মহত্যা করে থাকে।

ক্রীড়মান কিন্তু ক্রিয়মাণ, ক্রমমাণ ও ভ্রাম্যমাণ কেন:  ক্রিয়মাণ, ক্রমমাণ ও ভ্রাম্যমাণ বানানে মূর্ধন্য-ণ আসার কারণ হলো র-ফলা। একই পদের মধ্যে প্রথমে ঋ ঋৃ র ষ-এর পরে যদি স্বরবর্ণ, ক-বর্গ, প-বর্গ, য-ব-হ এবং অনুস্বারের ব্যবধান থাকে তাহলে পরবর্তী ন, ণ হয়ে যায়। যেমন: অপেক্ষমাণ, ভ্রাম্যমাণ, বক্ষ্যমাণ, রুক্মিণী, স্পৃহণীয়, ম্রিয়মাণ, ক্রিয়মাণ, ভ্রমণ।

বাবুর্চি, বাবুর্চিখানা: বাবুর্চি এসেছে তুরস্ক থেকে। তুর্কি বাবুর্চি অর্থ (বিশেষ্যে) মুসলমান পাচক, পুরুষ পাচক। সাধারণত মুসলমান পুরুষ পাচক অর্থ প্রকাশে শব্দটি ব্যবহতৃ হয়।  অর্থাৎ কাউকে বাবুর্চি হতে হলে তাকে পেশায় পাচক, ধর্মে ইসলাম এবং লিঙ্গে  পুুরুষ হতে হবে। তুর্কি আক্রমণের পর থেকে শব্দটি ভারতবর্ষে জনপ্রিয় হয়ে পড়ে।   মনে রাখতে বাবুর্চিখানা মানে বাবুর্চিদের থাকার জায়গা নয়। বাবুর্চির কর্মস্থল বা রান্নাঘরকে বলা হয় বাবুর্চিখানা।

গবেষকদের অভিমত, বাবুর্চি শব্দটি  মঙ্গোলদের সঙ্গে তুর্কিতে প্রবেশ করে। মঙ্গোল দরবারে এটি উচ্চপদস্থ ভৃত্য অর্থে ব্যবহৃত হতো। যাদের কাজ ছিল ভোজের আয়োজন করা। মূল উৎস উদ্ধার না করা গেলেও বলা হয়, কাজটি যেহেতু ভরসার লোকের ওপরে ন্যস্ত হতো, বাবুর্চি কথাটা ফার্সি ‘বাওয়ার’ (বিশ্বাস/আস্থা) থেকে উদ্ভূত। যেমন, যে তোপ সামলাত তাকে তোপচি বলা হতো।

নতুন পাসপোর্টে বানান ভুল: প্রথম কভারের ভেতরের পৃষ্ঠায় জাতীয় সংগীতের নিচে লেখা হয়েছে ‘স্মৃতি সৌধ’  কিন্তু ২৩ পৃষ্ঠা ও ২৭ পৃষ্ঠায় লেখা হয়েছে ‘স্মৃতিসৌধ’। পাসপোর্টের ২১ পৃষ্ঠায়  লেখা হয়েছে ‘সুপ্রিম কোর্ট’ কিন্তু কোর্ট কর্তৃপক্ষ লেখেন ‘সুপ্রীম কোর্ট’। পাসপোর্টের ২৩ পৃষ্ঠায় লেখা হয়েছে ‘বুদ্ধিজীবি’ কিন্তু শুদ্ধ হবে ‘বুদ্ধিজীবী। ৪৫ পৃষ্ঠা, ৪৬ পৃষ্ঠা ও ৪৭ পৃষ্ঠায় লেখা হয়েছে ‘ভ্রমনের’ শুদ্ধ হবে ‘ভ্রমণের’। ৪৮ পৃষ্ঠায় লেখা হয়েছে ‘তথ্যাবলী’ শুদ্ধ হবে ‘তথ্যাবলি’। এ ছাড়া আরও একটি প্রচলিত ভুল রয়েছে। যেমন : শহীদ> শহিদ।

 

শুবাচ গ্রুপ এর লিংক: www.draminbd.com

দাপ্তরিক প্রমিত বাংলা বানান

বাংলা একাডেমি নির্ধারিত সর্বশেষ প্রমিত ও সংগততর বানান অভিধান

শুদ্ধ বানান চর্চা (শুবাচ) থেকে শুবাচির প্রশ্ন থেকে উত্তর সমগ্র

প্রাত্যহিক প্রায়োগিক আধুনিক প্রমিত বাংলা বানান অভিধান সমগ্র

অবাক বানান কৌশল সহজ সূত্রে কঠিন বানান নিমোনিক বাংলা বানান অভিধান অভিধান

বাংলা শব্দের পৌরাণিক উৎস সম্পূর্ণ বই, এক মলাটে বাংলা শব্দের পৌরাণিক উৎস

error: Content is protected !!