বাসা বাসা বনাম বাসি -বাসী -বাসী; নিস্তনী নিস্তুষ

ড. মোহাম্মদ আমীন
সংযোগ: https://draminbd.com/বাসা-বাসা-বনাম-বাসি-বাসী-ব/
অভিধানে দুটি পৃথক ভুক্তিতে দুটি ‘বাসা’ ও একটি ‘-বাসা’ দেখা যায়। সংস্কৃত ‘বাস’ থেকে উদ্ভূত ‘বাসা’ অর্থ (বিশেষ্যে) পৈতৃকি ভিটা ভিন্ন বাসস্থান, শহরের ভাড়াকরা বাড়ি;  কুলায়, নীড়।  তৎসম বাসা [√বাস্+অ+আ(টাপ)] অর্থ (বিশেষ্যে) বাংলাদেশ-সহ ক্রান্তীয় অঞ্চলের ছায়াঘেরা স্থানে জাত এবং গ্রীষ্মকালে ফোটে এমন গোলাপি আভা-যুক্ত সাদা ফুল ও বর্শার ফলাসদৃশ পাতাবিশিষ্ট ভেষজগুণসম্পন্ন গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ, বাসক। অন্যদিকে বাংলা শব্দ  ‘-বাসা’ অর্থ (ক্রিয়বিশেষ্যে) অনুভব করা, বোধ করা ( ভালবাসা)।
বাসি: সংস্কৃত বাসিত থেকে উদ্ভুত বাসি অর্থ— (বিশেষণে) টাটকা নয় (বাসিভাত; বাসিভাত খেয়ে তার পেটের নাড়িভুঁড়ি মিছিল শুরু করে দিয়েছে।); আধোয়া (বাসি মুখ, বাসি মুখে কিছু খাওয়া ভালো নয়।); পুরানো (বাসি খবর; বাসি খবর আর কত পড়বে?)।
-বাসী: অভিধানে ভিন্ন ভুক্তিতে দুটি ‘-বাসী’ রয়েছে। দুটোই তৎসম ‘-বাসী’, তবে ব্যুৎপত্তি ভিন্ন। (-বাসী=√বস্‌+ইন্) ব্যুৎপত্তির ‘-বাসী’ অর্থ (বিশেষণে) বসবাস করছে এমন, বসবাসকারী (গৃহবাসী, ভারতবাসী, জগদ্‌বাসী)।  উঠরে চাষী (চাষি) জগদ্‌বাসী ধর কষে লাঙল (নজারুল)।  (-বাসী- বাস+ইন্‌) বুৎপত্তির ‘-বাসী’ অর্থ (বিশেষণে) বস্ত্রধারী (চীরবাসী)।
জনাব শামসুজ্জামান খানের মৃত্যু সংবাদবিষয়ক একটি লেখার মন্তব্যজানালায় জনেক শুবাচি লিখেছেন: “আল্লাহ উনাকে বেহেশত বাসি করুন, আমিন।” ‘বেহেশত বাসি’ নয়; বেহেশতবাসী। অনুরূপ: জান্নাতবাসী, দেশবাসী, প্রবাসী, ভারতবাসী প্রভৃতি।

নিস্তনী নিস্তুষ

নিস্তনী: সংস্কৃত নিস্তনী (নিস্তন+ঈ) অর্থ (বিশেষণে) অনুন্নত স্তনবিশিষ্ট, অনুচ্চ স্তনবিশিষ্ট। অ/আ ভিন্ন স্বরের পর ষ হয়, কিন্তু নিস্তনী বানানে ষ হয়নি কেন? কারণ ত-বর্গের সঙ্গে ষ যুক্ত হয় না।
নিস্তুষ: নিস্তুষ (নির্ +√তুষ্+অ) অর্থ (বিশেষণে) খোসা ছড়ানো হয়েছে এমন, তুষহীন। অ/আ ভিন্ন স্বরের পর ষ হয়। তাই নিস্তুষ বানানে ষ।নিস্তুষ= ন ই স্ ত্ উ ষ।
error: Content is protected !!