বিক্রমপুর জনপদ

বিক্রমপুর

মুন্সিগঞ্জ ও পার্শবর্তী অঞ্চল নিয়ে গঠিত প্রাচীন জনপদ বিক্রমপুর ছিল বঙ্গের রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। বর্তমানে বাংলাদেশের মুন্সিগঞ্জ জেলার একটি অঞ্চল হিসেবে শুধু বিক্রমপুর নামটি বেঁচে আছে। বিক্রমপুর খ্রিষ্টীয় দশ শতকের শুরু থেকে তেরো শতকের প্রথম পর্যন্ত চন্দ্র, বর্মন ও সেন রাজাদের রাজধানী ছিল। শ্রীচন্দ্রের তাম্রশাসনে সর্বপ্রথম ‘বিক্রমপুর’ জনপদের উল্লেখ পাওয়া যায়। বর্মণ ও সেন রাজবংশের শাসনামলেও বিক্রমপুরের এ মর্যাদা অক্ষুণ্ন ছিল। সেনদের শাসনামলে, বিক্রমপুর তাঁদের রাজধানী রূপে বলবৎ ছিল। বখতিয়ার খলজীর হাতে নদিয়ার পতন হওয়ার পর লক্ষ্মণসেন এ  পালিয়ে বিক্রমপুর চলে আসেন। তাঁর দুই পুত্র বিশ্বরূপসেন ও কেশবসেন স্বল্পকালের জন্য বিক্রমপুর শাসন করেছিলেন। ১২৮০ খ্রিষ্টাব্দের প্রথম দিতে দনুজমাধব দশরথদেব কিংবা জিয়াউদ্দীন বরনীর দনুজ রায় সুবর্ণ গ্রাম বা সোনারগাঁওয়ের সন্নিকটে রাজধানী স্থানান্তর করলে বিক্রমপুরের মর্যাদা কমে যায়।  মুগল আমলে রাজস্ব তালিকায় শুধু পরগনা হিসেবে পুনরায় নামটি দেখা যায়। তবে মুগল আগ্রাসনের বিরুদ্ধে বিক্রমপুরের জমিদার চাঁদ রায় ও কেদার রায়ের বীরোচিত প্রতিরোধ বিক্রমপুরের একটি অনন্য বিক্রম। বর্তমানে সরকারিভাবেও বিক্রমপুর নামের অস্তিত্ব নেই। কিন্তু মুন্সিগঞ্জের এক বিস্তৃত অঞ্চলের অধিবাসীরা এখনও নিজেদের বিক্রমপুরের বাসিন্দা পরিচয় দিতে গর্ব বোধ করেন।

বাংলার প্রাচীন বাংলা কয়েটি জনপদে বিভক্ত ছিল। জনপদগুলোর নাম ও বর্ণনা নিচে দেওয়া হল। ক্লিক করে জনপদগুলোর সংক্ষিপ্ত, কিন্তু তথ্যবহুল বিবরণ জেনে নিতে পারেন।

প্রাচীন বাংলার জনপদের তালিকা

error: Content is protected !!