বিসিএস সমগ্র: শুবাচ

ড. মোহাম্মদ আমীন
শুবাচ বিসিএস সমগ্র/১

পিতার নামের সঙ্গে মায়ের নাম লেখা চালু

১৯৯৮ খ্রিষ্টাব্দের ৯ই ডিসেম্বর উদ্‌যাপিত রোকেয়া দিবসের এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ

ড. মোহাম্মদ আমীন

হাসিনা পিতার নামের সঙ্গে মায়ের নাম লেখা চালু করার ঘোষণা দেন। ২০০০ খ্রিষ্টাব্দের ২৭শে আগস্ট থেকে এই ঘোষণা কার্যকর হয়। ২০০২ খ্রিষ্টাব্দ থেকে প্রাতিষ্ঠানিক সনদে পিতার নামের সঙ্গে মায়ের নাম লেখা শুরু হয়। এর আগে সনদে কেবল পিতার নাম লেখা হতো।

শুবাচ বিসিএস সমগ্র/২

অধিদপ্তর বনাম পরিদপ্তর

অধিদপ্তর: মন্ত্রণালয় নয়, কিন্তু মন্ত্রণালয়ের প্রত্যক্ষ নিয়ন্ত্রণে মহাপরিচালক পদবিধারী একজন কর্মকর্তার নেতৃত্বে পরিচালিত কার্যালয় বা দপ্তরকে অধিদপ্তর বলে। অধিদপ্তরের প্রধান মহাপরিচালক সরকারের সচিব বা অতিরিক্ত সচিব পদ-মর্যাদার হয়ে থাকেন। যেমন: পাসপোর্ট অধিদপ্তর, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর।
পরিদপ্তর: সরাসরি সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরের এবং অধিদপ্তরের মাধ্যমে পরোক্ষভাবে মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন কার্যালয় বা দপ্তরকে পরিদপ্তর বলে। পরিপদপ্তরের প্রধানকে বলা হয় পরিচালক। মহাপরিচালক সাধারণত যুগ্মসচিব বা উপসচিব পদমর্যাদার হয়ে থাকেন।
শুবাচ বিসিএস সমগ্র/৩

অভিবাসী বনাম শরণার্থী

কেউ যখন শিক্ষা,ব্যবসায়, চাকুরি, গবেষণা ইত্যাদির উদ্দেশ্যে নিজ দেশে ছেড়ে অন্যকোনো দেশে স্থায়ী বা অস্থায়ীভাবে বসবাসের উদ্দেশ্যে গমন করে তখন তাকে অভিবাসী বলে।
রাজনৈতিক, সামাজিক, জাতিগত, ধর্মীয় বা নিরাপত্তাগত কারণে নিজ জন্মভূমি ছেড়ে আশ্রয়ের সন্ধানে অন্য কোন দেশে অস্থায়ীভাবে অবস্থান করে বা করতে বাধ্য হয় তখন তাকে শরণার্থী বলে। যেমন: বাংলাদেশে বসবাসকারী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী।
শুবাচ বিসিএস সমগ্র/৪

ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টি বনাম উপজাতি

ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী / আদিবাসী : কোন এলাকার সবচেয়ে প্রাচীন বা আদি জনবসতি ও তাদের সংস্কৃতিকে বোঝাতে আদিবাসী শব্দটি ব্যবহৃত হয়।
আদি জনগোষ্ঠী বলে এরা আধুনিক জনগোষ্ঠীর জৈব ও সামাজিক প্রভাবজাত নয়। এবং এতে তাদের আগ্রহও নেই।
উপজাতি এমন জনগোষ্ঠীকে বোঝায় যারা আলাদা রাষ্ট্র গঠন করতে পারেনি কিন্তু নিজস্ব একটি আলাদা সংস্কৃতি গড়ে তুলেতে সমর্থ হয়েছে। মূলত রাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কের ভিত্তিতে জাতি বা উপজাতি নির্দিষ্টকরণ হয়ে থাকে। এরা আদি জনগোষ্ঠী নয়, তবে মূল জনগোষ্ঠী থেকে নিজস্ব স্বাতন্ত্র্য বজায় রাখে।
শুবাচ বিসিএস সমগ্র/৫

মহাসাগর, সাগর, উপসাগর ও হ্রদ

মহাসাগর: সীমারেখা নির্ণয় প্রায় দুঃসাধ্য এমন সুবিশাল এলাকা নিয়ে বিস্তৃত জলরাশিকে মহাসাগর বলে। যেমন: প্রশান্ত মহাসাগর। মহাসাগরের আয়তন মূলত ভৌগলকি অনুমানভিত্তিক বিষয়।

সাগর: ‍তুলনামূলকভাবে মহাসাগরের চেয়ে এলাকা নিয়ে বিস্তৃত জলরাশিকে সাগর বলে । যেমন: বঙ্গোপসাগর।

ড. মোহাম্মদ আমীন

সাগরের আয়তন মূলত ভৌগলকি অনুমানভিত্তিক বিষয়।

উপসাগর: যে সাগরে তিনদিক স্থল সীমানা দ্বারা পরিবেষ্টিত তাকে উপসাগর বলে।
হ্রদ: সাগরের চেয়ে ছোট বিস্তৃত জলরাশি।যার চারদিকে স্থলভাগ দ্বারা পরিবেষ্টিত থাকে তাকে হ্রদ বলে। যেমন: বৈকাল উপসাগর।
শুবাচ বিসিএস সমগ্র/৬

হাওড় বাওড় বিল ও ঝিল

হাওড়: সাগর শব্দ থেকে হাওড় শব্দের উদ্ভব। সাধারণভাবে ভূআলোড়নের ফলে সৃষ্ট প্রায় গামলা আকৃতির বিশাল জলাশয়কে হাওড় বলে।প্রচলিত অর্থে এটি বন্যা প্রতিরোধের জন্য নদীতীরে নির্মিত মাটির বাধের মধ্যে প্রায় গোলাকৃতি নিম্নভূমি বা জলাভূমি। তবে সর্বদা নদীর কূলে নির্মিত বাধের মধ্যে নাও থাকতে পারে। বর্ষায় প্রতিবছর হাওড় প্লাবিত হয়। বছরের কয়েক মাস পানিতে নিমজ্জিত থাকে।বর্ষা শেষে হাওড়ের গভীরে পানিতে নিমজ্জিত কিছু বিল জেগে ওঠে। গ্রীষ্মকালে হাওড়কে বিশাল মাঠের মতো মনে হয়। তবে ওই বিলে মাঝে মাঝে পানি থাকে। হাকালুকি বাংলাদেশের বিখ্যাত হাওড়।
বাঁওড়: পুরাতন নদীর গতিপথ পরিবর্তনের মাধ্যমে সৃষ্ট জলাশয়কে বাঁওড় বলে। এটি গাঙ্গেয় মৃতপ্রায় বদ্বীপ অঞ্চলে অবস্থিত নদীর পরিত্যক্ত বাহু। দেখতে অনেকটা পিরিচ আকৃতির খাদের মতো। বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলে বহুল পরিচিত বাঁওড় প্রায়শ বিলের সমার্থক। সাগরখালি, জালেশ্বর, রামপুর, পাঠানপাড়া, কাঠগড়া, যোগীনি, ইছামতি, জয়দিয়া, মারজাত প্রভৃতি বাংলাদেশের কয়েকটি বাঁওড়।
বিল: বাংলাদেশ, পশ্চিমবঙ্গ ও আসাম অঞ্চলে বিস্তৃত আবদ্ধ মিঠাপানির জলাশয়কে বিল বলে। বিল মূলত এমন একটি নিম্নভূমি যেখানে অতিরিক্ত পানি এসে জমা হয়। শুকনো মৌসুমে অধিকাংশ বিলে পানি থাকে না। তবে একটু বৃষ্টি হলে পানিতে ভরে যায়। বড়ো বড়ো বিলের গভীরতা বেশি। তাই প্রায় সারা বছর কোথাও না কোথাও পানি থাকে। মূলত পুরাতন নদীর গতিপথের ধার ঘেঁষে সৃষ্ট নিম্ন জলাভূমিকে বিল বলা হয়।
ঝিল: প্রবহমান নদীর পরিত্যক্ত খাতকে ঝিল বলা হয়। ঝিল এক প্রকার লম্বাকৃতির জলাশয়। এটি সাধারণত বিল অপেক্ষা ক্ষুদ্র। ঝিলের চারপাশ স্থলাবদ্ধ থাকে। এতে সারাবছর কিছু না কিছু পানি থাকে। ঝিল একটি আঞ্চলিক শব্দ। এর অর্থ অশ্বক্ষুরাকৃতির হ্রদ। উদাহরণ: ঢাকার হাতির ঝিল, মৌলভী বাজারের বেরি ঝিল, ভারতের হাওড়ায় অবস্থিত সাঁতরাগাছি ঝিল।
শুবাচ বিসিএস সমগ্র/৭

হিসপানিক

স্প্যানিশ ভাষা, সংস্কৃতির সঙ্গে সম্পৃক্ত কোনো দেশের অভিবাসী জাতিগোষ্ঠীকে হিসপানিক বলা হয়। তাদের সাধরণ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে স্প্যানিশ ভাষায় কথা বলা।
শুবাচ বিসিএস সমগ্র/৮

থানা মডেল থানা ও কোতয়ালি থানা

থানা: থানার আইনশৃঙ্খলা রক্ষার প্রধান দায়িত্বে থাকেন ওসি। মডেল থানার আইনশৃঙ্খলা রক্ষার প্রধান দায়িত্বে থাকেন এএসপি।
মডেল থানা: মডেল থানা তুলনামূলকভাবে থানার চেয়ে আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত থাকে। বাংলাদেশের প্রথম মডেল থানা ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা।
কোতয়ালি থানা: এক সময় রাজস্ব কালেক্টটর (অধুনা জেলা প্রশাসক) রাজস্ব সংগ্রহের সুবিধার্থে নিয়মিত পুলিশ বাহিনীর পাশপাশি বিশেষ পুলিশ বাহিনীর মতো কোতয়াল বাহিনী দ্বারা কিছু থানা পরিচালিত করতেন। এসব থানাকে বলা হয় কোতওয়ালি থানা। যারা রাজস্ব বা খাজনা দিতে পারতেন না কোতয়াল বাহিনী তাদের ধরে এনে থানায় রাখত। পরবর্তীকালে সেই থানাগুলো কোতয়ালি থানা হিসেবে পরিচিতি পায়।
শুবাচ বিসিএস সমগ্র/৯

রেকটো (recto) বনাম ভারসো (verso)

পুস্তকের ডানদিকের পৃষ্ঠাকে recto এবং বামদিকের পৃষ্ঠাকে verso বলে। ভারসোসমূহে জোড় সংখ্যা এবং রেকটোসমূহে বেজোড় সংখ্যা থাকে।
সূত্র: বিসিএস সমগ্র (বিবিধ), ড. মোহাম্মদ আমীন।
শুবাচ বিসিএস সমগ্র/১০

কোকো(Cocoa)

কোকো হচ্ছে ক্রান্তীয় অঞ্চলের একটি অর্থকর ফসল।চকোলেট, মাখন,পানীয়-সহ বিভিন্ন মিষ্টি জাতীয় খাদ্যের সুগন্ধ বাড়ানোর জন্য কোকো ব্যবহার করা হয়।
সূত্র: বিসিএস সমগ্র (বিবিধ), ড. মোহাম্মদ আমীন।
 —————————————————
শুবাচ গ্রুপের লিংক: www.draminbd.com
error: Content is protected !!