Warning: Constant DISALLOW_FILE_MODS already defined in /home/draminb1/public_html/wp-config.php on line 102

Warning: Constant DISALLOW_FILE_EDIT already defined in /home/draminb1/public_html/wp-config.php on line 103
বোধ লেখার নিয়ম: নিরেট কিংবা বিচ্ছিন্ন – Dr. Mohammed Amin

বোধ লেখার নিয়ম: নিরেট কিংবা বিচ্ছিন্ন

এবি ছিদ্দিক
https://draminbd.com/বোধ-লেখার-নিয়ম-নিরেট-কিংব/
‘বোধ’ শব্দের আভিধানিক অর্থ ‘জ্ঞান’; ‘উপলব্ধি’, ‘চেতনা’; ‘অনুভব’; ‘অনুমান’, ‘ধারণা’; ‘সান্ত্বনা’ প্রভৃতি। বাংলাভাষীর নিত্যদিনের প্রয়োজনে এ শব্দটির যথেষ্ট ব্যবহার রয়েছে। ব্যক্তি সারা দিনের পরিশ্রমে ‘ক্লান্ত বোধ’ করলে দিন শেষে ‘ক্লান্তিবোধ’-এর কথা যেমন বলেন, তেমনি অসুস্থ বোধ করলে অপরজনের কাছে তা বয়াঁ করতে ‘অসুস্থতাবোধ’-এর প্রসঙ্গ টানেন। আর দশটি শব্দের মতো ‘বোধ’-এর প্রয়োগও দারুণ মসৃণ পথেই চলে, যতক্ষণ-না বিড়ম্বনা মাঝরাস্তায় পথিকের ভূমিকায় হাজির না-হয়। এক্ষেত্রে বিড়ম্বনার ব্যাপার হচ্ছে— রোজ রোজ ব্যাবহারিক প্রয়োজনীয়তার উলটো পিঠে ‘অনুভব’ কিংবা ‘উপলব্ধি’ অর্থে ব্যবহৃত ‘বোধ’ শব্দটি কখন আগের পদের সঙ্গে নিরেটভাবে এবং কখন বিচ্ছিন্নভাবে বসবে, তা। অবশ্য এ বিড়ম্বনা থেকে পরিত্রাণের পথ একেবারেই সরল— সাধারণত ‘বোধ’-এর পূর্ববর্তী পদ বিশেষ্য হলে ‘বোধ’-কে ওই পদের সঙ্গে নিরেটভাবে এবং পূর্ববর্তী পদ বিশেষণ হলে ‘বোধ’-কে ওই পদ থেকে বিচ্ছিন্নভাবে লিখতে হয়।
উল্লেখ-করা নিয়মটি আপাত দৃষ্টিতে একেবারেই সহজ মনে হলেও প্রায়োগিক ক্ষেত্রে গিয়ে যথেষ্ট দ্বিধার সৃষ্টি করবে। কারণ, বাক্যের মধ্যে প্রয়োগভেদে শব্দের পদ নির্ণয় করা ভাষাজ্ঞানে ঋদ্ধ ব্যক্তির ক্ষেত্রে সাধারণ বিষয় হলেও আমার মতো নবীন শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে সুখকর বিষয় মোটেও নয়। তাই, এক্ষেত্রে আমাকে খানিকটা কৌশল অবলম্বন করতে হয় বইকি। মূলত সে কৌশল বিবৃত করবার উদ্দেশ্যেই এই ছোট্ট নিবন্ধটি লেখা।
কৌশল: কোনো বাক্যের মধ্যে ‘বোধ’ শব্দটি পূর্ববর্তী পদের সঙ্গে নিরেটভাবে কিংবা বিচ্ছিন্নভাবে লেখা নিয়ে বিভ্রান্তিতে পড়ে গেল ওই বাক্যে ‘বোধ’ শব্দটির পরে ঠিক কোন শব্দটি (পদটি) আছে, তা দেখতে হবে। যদি পরের শব্দটি ‘কর্’ ধাতুর কিংবা ‘হ’ ধাতুর কোনো রূপ (কর, করা, করছি, করছে, করবে, করছিলাম; হ, হয়, হচ্ছে, হচ্ছিল, হবে, হয়েছিল ইত্যাদি) হয়, তাহলে ‘বোধ’ পূর্ববর্তী পদ থেকে বিচ্ছিন্নভাবে লিখতে হবে। এছাড়া অন্য যে-কোনো শব্দ (পদ) থাকলে নিরেটভাবে লিখতে হবে। নিম্নে কিছু প্রয়োগোদাহরণ দেখানো হলো:
১. ছাফিয়া আজ বেশ আনন্দিত বোধ করছে (কর্ > করছে, তাই বিচ্ছিন্নভাবে)। বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফলে প্রথম হওয়াই তার আনন্দবোধের কারণ (অন্য শব্দ, তাই নিরেটভাবে)।
২. সুলতানা সন্ধ্যা থেকেই অত্যন্ত ক্লান্ত ও অসুস্থ বোধ করছে (কর্ > করছে, তাই বিচ্ছিন্নভাবে)। দীর্ঘ পথভ্রমণ এবং সারা দিন শ্রেণিপাঠের ধকলের ফলেই তার এ ক্লান্তিবোধ ও অসুস্থতাবোধ (ভিন্ন শব্দ, তাই নিরেটভাবে)।
৩. বিয়েবাড়িতে টমের খুব অস্বস্তি বোধ হয় (হ > হয়, তাই বিচ্ছিন্নভাবে)। শত মানুষের সমাগমই তার অস্বস্তিবোধের মূল (অন্য শব্দ, তাই নিরেটভাবে)।
৪. পাদরির দীর্ঘ বক্তৃতা শোনার পরও মঁসিয়ে মারসোর মনে সামান্যটুকু অপরাধবোধ জাগেনি (অন্য শব্দ, তাই নিরেটভাবে)।
জানা অজানা অনেক মজার বিষয়: https://draminbd.com/?s=অজানা+অনেক+মজার+বিষয়
শুবাচ গ্রুপের সংযোগ: www.draminbd.com
শুবাচ যযাতি/পোস্ট সংযোগ: http://subachbd.com/
আমি শুবাচ থেকে বলছি
— — — — — — — — √— — — — — — — — —
প্রতিদিন খসড়া
আমাদের টেপাভুল: অনবধানতায়
— — — — — — — — √— — — — — — — — —
Spelling and Pronunciation
HTTPS://DRAMINBD.COM/ENGLISH-PRONUNCIATION-AND-SPELLING-RULES-ইংরেজি-উচ্চারণ-ও-বান/
বাঙালির খাবারদাবার: https://draminbd.com/বাঙালির-খাবারদাবার/