ভারত কেন ইন্ডিয়া, ইন্ডিয়া কেন ভারত; মিশর কেন ইজিপ্ট;

ড. মোহাম্মদ আমীন

ভারত কেন ইন্ডিয়া, ইন্ডিয়া কেন ভারত

ইংরেজিতে ইন্ডিয়াা (India) কথাটি সিন্ধু নদের আদি ফার্সি নাম হিন্দু থেকে উদ্ভুত। এর অর্থ ইন্দু নদের দেশ (Land of the Indus River)। প্রাচীন গ্রিকরা ভারতীয়দের বলত ইন্দোই বা ‘ইন্দাস’। এর অর্থ হচ্ছে সিন্ধু নদী অববাহিকার অধিবাসী।
‘ইন্দাস’ নাম থেকেই ‘ইন্ডিয়া’ নামটির উৎপত্তি। ইন্ডিয়ার স্থানীয় নাম ভারত বা ভারতবর্ষ। হিন্দু পৌরাণিক রাজা ভরত এর নামানুসারে ভারত নামটির উদ্ভব । প্রসঙ্গত, বর্ষ শব্দের অর্থ অঞ্চল, এলকা, দেশ, রাজ্য প্রভৃতি। এখানে ভারতবর্ষ শব্দের বর্ষ অর্থ বছর (year) নয়।
 
কথিত হয়, এই অঞ্চল বা বর্ষ রাজা ভরতকে দান করা হয়েছিল। তাই এর নাম ভারতবর্ষ। স্বাধীনতার পর ভারতের সংবিধানে ও লোকমুখে ভারত নামটিই মান্যতা লাভ করে। এছাড়াও মধ্যযুগে ফার্সি হিন্দুস্তান (বাংলা হিন্দুস্থান, যার অর্থ ‘হিন্দুদের দেশ’) শব্দটিও উত্তর ভারত অর্থে ব্যবহৃত হতো।
 
এটি বর্তমানে মাঝে মাঝে সমগ্র ভারত বুঝাতেও ব্যবহৃত হয়ে থাকে। পুরাতন লিপি থেকে জানা যায়, ভারতবর্ষ নামে পরিচিতি লাভের পূর্বে ভারত মূলত জম্বুদ্বীপ নামে পরিচিত ছিল। আবার অনেকের মতে, আর্যভারত (Aryavarta) শব্দ থেকে ভারত শব্দের উদ্ভব। এর অর্থ আর্যদের দেশ।যার সঙ্গে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মহাকাব্য ‘মহাভারত’ নামের সম্পর্ক রয়েছে।
 
 
মিশর কেন ইজিপ্ট, ইজিপ্ট কেন মিশর
বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, মিশর হলো: আফ্রিকা মহাদেশের উত্তর-পূর্ব ও এশিয়া মহাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণের কিয়দংশ জুড়ে অবস্থিত দেশবিশেষ, Egypt.
 
এর আরবি নাম مِصر‎ Miṣr এবং প্রাচীন নাম ইজিপ্ট। ইংরেজিতে এটি সারা বিশ্বে Egypt নামে পরিচিত। দেশটির দাপ্তরিক নাম Arab Republic of Egypt। ইংরেজি Egypt অর্থ যা, আরবি ভাষায় মিশর অর্থও তা। যেমন: ইংরেজিতে Pacific Ocean, বাংলায় প্রশান্ত মহাসাগর; আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র ও United States of America.
 
ষষ্ঠ শতক থেকে উপমহাদেশের সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্যের ব্যাপক যোগাযোগ শুরু হয়। আরবীয় পর্যটক, বণিক ও ধর্ম প্রচারকগণ আরবি ভাষায় দেশটিকে মিশর বলতেন। ফলে তাদের মাধ্যমে উপমহাদেশে মিশর নামটিই জনপ্রিয় হয়ে পড়ে।
 
Egypt নামের উদ্ভব
অধিকাংশ মিশরবিদ (Egyptologist) ও ইতিহাসবেত্তার ধারণা, গ্রিক শব্দ এজিপটোস (Aegyptos) হতে ইজিপ্ট নামের উদ্ভব। অনেকের মতে, ইজিপটোস (Aegyptos) হচ্ছে গ্রিক পদ হাই- গি- পতস (Hi-Gi-Ptos) পদের সংক্ষিপ্তরূপ। হাই গি পতস (Hi-Gi-Ptos) প্রাচীন গ্রিক পদ হেত-কা-পতাহ (Het-Ka-Ptah) এর লিপ্যন্তর। হেট (Hit,Hat) শব্দের অর্থ স্থান। কা (ka) অর্থ ‘আত্মার শারীরিক অভিক্ষেপণ (the physical projection of the soul), শরীরের নয়। যা ছিল খাত বা খেত (Khat or Khet), কিন্তু ব্যক্তিত্ব নিজে শরীরকে স্পন্দিত করে। পতাহ (path) হচ্ছে দেবর্তৃবৃন্দের বা সৃষ্টিকর্তা গডগণের (Creator Gods) কোনো একজনের উপাধি বা নেটর (Neter)। আর এ স্কওয়ালার ডি লুবিচজ (R.A. Schwaller de Lubicz) এর অনুবাদ অনুযায়ী Neter অর্থ ‘দেবত্বের বৈশিষ্ট্য, দেবত্বের প্রকৃতি বা দেবত্বের নীতি। গ্রিকগণ এ Neter হতে ন্যাচার (Nature) শব্দ অর্জন করেছে।
হেত-কা পতাহ অর্থ (Place of the Projection of the Principle of Ptah) বা এমন স্থান যেখানে পতাহ অভিক্ষেপণ বিকশিত (Place where the Projection of Ptah Manifested) হয়। এ পদটি প্রাচীন মিশরের ধ্বংসপ্রাপ্ত রাজধানী মেমফিসের আধুনিক মিশরীয় গ্রাম মিত রাহায়নায় (Mit Rahaina) শিলাস্তম্ভে পাওয়া গিয়েছে। মেমফিস ছিল রাজধানী শহরটি গ্রিক নাম। এটি মিশরীয়দের নিকট মেন-নেফর (Men-Neferৎ) নাম পরিচিত ছিল। নেম- নেফর অর্থ প্রজন্মের সমন্বয় (The Generation of Harmony)।
 
সুতরাং হেত-কা-পতাহ কেবল একটি নির্দিষ্ট স্থান, নির্দিষ্ট শহর, যা ছিল মিশরীয় রাজবংশের প্রথম রাজধানী। প্রাচীনকালের লোক তাদের দেশকে বলতেন কেএমটি (KMT)। যা খেমেত, খেমিত, খেম, আল খেম— প্রভৃতিরূপে লেখা হয়েছে। এর আক্ষরিক অর্থ কৃষ্ণ নগর বা কৃষ্ণ ভূমি ইংরেজিতে যাকে ব্ল্যাক ল্যান্ড বলা যায়। এ কৃষ্ণ ভূমি বলতে, সমৃদ্ধ এবং নিল নদের (Nile River) পলি-বিধৌত সঞ্চিত কালো মাটিকে নির্দেশ করা হয়েছে। যে মাটির উপর পৃথিবীর কৃষিকাজের সূচনার মাধ্যমে সভ্যতার সূত্রপাত ঘটে। মিশরীয় আদি ঐতিহ্য বলে যে, সভ্যতা ছিল খেমিত (Khemitরঃ) এবং অধিবাসী ও ভাষাকে বলা হতো খেমেতিয়ান (Khemitian)।
 
—————–

All Link

  1. বিসিএস প্রিলি থেকে ভাইভা কৃতকার্য কৌশল
  2. ড. মোহাম্মদ আমীনের লেখা বইয়ের তালিকা
  3. বাংলা সাহিত্যবিষয়ক লিংক
  4. বাংলাদেশ ও বাংলাদেশবিষয়ক সকল গুরুত্বপূর্ণ সাধারণজ্ঞান লিংক
  5. বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/১
  6. বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/২
  7. বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন /৩
  8. কীভাবে হলো দেশের নাম
  9. ইউরোপ মহাদেশ : ইতিহাস ও নামকরণ লিংক
  10. শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/১
  11. দৈনন্দিন বিজ্ঞান লিংক
  12. শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/২
  13. শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৩
  14. শুদ্ধ বানান চর্চা লিংক/৪
  15. কীভাবে হলো দেশের নাম
  16. সাধারণ জ্ঞান সমগ্র
  17. সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১
 
Language
error: Content is protected !!