পুরানো দলিলে ব্যবহৃত শব্দ: মং, গং, মিদং সাং

ড. মোহাম্মদ আমীন

পুরানো দলিলে ব্যবহৃত শব্দ: মং, গং, মিদং সাং

‘মং দশ হাজার টাকা’- এই বাক্যে ‘মং’ পদের অর্থ কী?
 
বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধান [প্রথম প্রকাশ ফেব্রুয়ারি ২০১৬] মতে: “মবলগ /মব্‌লগ্‌/  আরবি শব্দ। বিশেষণে এর অর্থ:  ১ নগদ। ২ মোট এবং  ক্রিয়াবিশেষণে সাকুল্যে, একুনে। বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত আরবি ফারসি উর্দু শব্দের অভিধান [সংকলন ও সম্পাদনা: ড. মোহাম্মদ হারুন রশিদ, বাংলা একাডেমি ঢাকা, প্রথম প্রকাশ: জ্যৈষ্ঠ ১৪২২/মে ২০১৫] লিখেছে: “মবলগ অর্থ বিশেষণে: ১. মোট; থোক। ২. নগদ। [আ. মবলগ مــبــلــغ]”
 
Bangla Academy Perso-Arabic Elements in Bengali (বাঙ্‌লায় ফারসী-আরবী উপাদান) [by Dr. Shaikh Ghulam Maqsud Hilali, First Published: January 1967, First Reprint: December 2002] বইটিতে লেখা হয়েছে: “মবলগ – [Ar. mablagh] sum; total; ready money; cash.
মবলগে – [see মবলগ; Beng. suff. ‘e’ -in; mablagh-i in Pers. sum of] in all; in the total; all told; sum of; amount of.”
 
অতএব, বর্ণিত  বাক্যে ‘মং’ শব্দের অর্থ: “মবলগ বা মোট।”
 
গং
 
‘গং’ হচ্ছে ‘গয়রহ’ শব্দের সংক্ষিপ্তরূপ, যার অর্থ ‘ইত্যাদি’, ‘প্রভৃতি’, ‘অন্যান্য’, ‘সহযোগীবৃন্দ’ ইত্যাদি; যেভাবে উল্লেখ করেছে আধুনিক বাংলা অভিধান এবং যা ইতোমধ্যে জনাব Hasan Mir সাহেব তাঁর মন্তব্যে উল্লেখ করেছেন। বর্তমানে সাধারণ লেখায় ‘গং’ শব্দটি ব্যবহার করা হয় না বললেই চলে। তবে দলিলে বা কোনো জমিতে লাগানো সাইনবোর্ডে ‘গং’ শব্দটি ব্যবহার করতে দেখা যায়। সেক্ষেত্রে আপনার উল্লেখ-করা বাক্যটি উদাহরণ হিসেবে উল্লেখ করা যায়। আপনার বাক্যটিতে ‘রাশেদ গং’ বলতে রাশেদের সঙ্গে অন্যান্যরাও আছে বোঝানো হয়েছে।
 
পুরানো দলিরপত্রে ব্যবহৃত শব্দ (বানানগুলো যেভাবে ব্যবহৃত হতো সেভালে দেওয়া হয়েছে।)
 
শব্দের অর্থ সাং = সাকিন, সাকিম। সাকিন বা সাকিম শব্দের অর্থ ঠিকানা, বাসস্থান।
 
গং = অন্যরা, সমূহ। অমুক [ব্যক্তিনাম] ও অন্যান্য বা তার সহযোগীগণ। যেমন: যদি লেখা থাকে আবদুল কাদের গং, তাহলে বুঝতে হবে যে আবদুল কাদেরের সঙ্গে আরও অনেকে আছেন।
 
মোং = মোকাম। এর অর্থ আবাস, বাসস্থান হলেও মূলত বাণিজ্য স্থান বা বিক্রয়কেন্দ্র বোঝাতেই এটি ব্যবহূত হয়
 
কিঃ = দফা, বার, ক্ষেপ এই অর্থেও ব্যবহৃত হয়
 
এজমালি/ইজমালি = যৌথ, সংযুক্ত, বহুজনের একত্রে। যেমন: এজমালি সম্পত্তি বলতে যৌথ মালিকাধীন সম্পত্তিকে বোঝায়।
 
কিত্তা/ কিতা = আববি ক্বত্বহ শব্দজাত। এর অর্থ অংশ, জমির ভাগ, পদ্ধতি।
 
ছানি = আরবি শব্দ, অর্থ দ্বিতীয়বার। পুনর্বিবেচনার প্রার্থনা।
যেমন: ছানি মামলা। ছোলেনামা = মীমাংসা, আপোষ/আপস। ছোলেনামা মানে আপস-মীমাংসাপত্র। জঃ = জমা। সাধারণ অর্থে জমা বলতে সঞ্চিত, রাশীকৃত, কিন্তু ভূমি আইন ও দলিল। এটি ভিন্ন অর্থ বহন করে। যেমন: জমা মানে পুঁজি, মোট, খাজনা, রাজস্ব, বার্ষিক কর [হাওলার বার্ষিক জমা ১০ টাকা]। আবার জমা ওয়াশিল এর অর্থ আয়-ব্যয়ের হিসাব। জমা ওয়াশিল বাকি মানে দেয় খাজনার কত আদায় বা লভ্য খাজনার কত আদায় হয়েছে এবং কত বাকি আছে তার হিসাব; জমা খারিজ অর্থ যৌথ খতিয়ানের জমা থেকে কোনো সহমালিক বা অংশীদারের আবেদনক্রমে তার অংশ আলাদা করে যে নতুন জমা ও খতিয়ান সৃষ্টি করা হয়।
 
খারিজ = সাধারণ অর্থে বাতিল করা হয়েছে এমন বোঝায়। ভূমি আইনে একজনের নাম থেকে অন্যজনের নামে জমির মালিকানা পরিবর্তন করে নেওয়াকে বোঝায়।
 
তমঃ = তমসুক। আরবি শব্দজাত, যার অর্থ দলিল, ঋণ-স্বীকারপত্র বা খত। অর্থাৎ কর্জ গ্রহীতা যে লিখিত পত্র, বিশেষত সরকারি স্ট্যাম্প বা কাগজমূলে কর্জদাতার কাছ থেকে টাকা ধার নেয়। বন্ধকী তমসুক মানে হলো বন্ধকনামা বা বন্ধকী বা বন্ধকী খত।
 
দং = দরুন, বাবদ, দখল। নিম = ফারসি শব্দ। এর অর্থ অল্প, অর্ধেক, অধস্তন বা অধীন ইত্যাদি।
 
নং = নম্বর বা সংখ্যা অর্থে বোঝানো হয়।
 
পঃ = পঞ্চম বা পাঁচের স্থানীয়।
 
পোঃ = পোস্ট অফিস বা ডাকঘর বোঝানো হয়।
 
মহঃ = মহকুমা। ব্রিটিশ আমলে জেলার একটি প্রশাসনিক অংশকেই মহকুমা বলা হতো।
 
মুসাবিদা = খসড়া তৈরি করা। মুসাবিদাকারক মানে যিনি দলিল লেখেন।
 
চৌঃ = চৌহদ্দি। চৌহদ্দি শব্দের অর্থ হচ্ছে চারধারের সীমানা।
 
তঃ/তপঃ = তফসিল, তহশিল।
 
তামাদি = ফারসি শব্দ। এর অর্থ নির্ধারিত সময়সীমা।
 
বিতং = বিস্তারিত বিবরণ, কৈফিয়ত, বৃত্তান্ত অর্থে ব্যবহৃত হয়।
 
মাং/ মাঃ = মারফত। মারফত মানে মাধ্যম, অর্থাৎ যার হাত দিয়ে বা মাধ্যমে আদান-প্রদান করা হয়।
 
সহঃ = সহকারী, যিনি কাজে সহযোগিতা করেন।
 
সুদিখত = একশ্রেণীর বন্ধকী দলিল।
 
হলফ = সত্য বলার জন্য যে শপথ করা হয়। হলফকারী মানে যিনি সত্যায়ন করেন
 
 
error: Content is protected !!