মাগি: মাগি শব্দের ইতিহাস এবং উৎপত্তি: বোদা ভোঁদা ও ভোদা

মাগি: মাগি শব্দের ইতিহাস এবং উৎপত্তি: বোদা ভোঁদা ও ভোদা

ড. মোহাম্মদ আমীন

মাগি, উত্থান মাগি

মাগি শব্দটি কোনো খারাপ শব্দ হিসেবে জন্ম নেয়নি। শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংস, বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সহ তখনকার অনেক নামীদামী লেখকরাই এ শব্দটি তাদের সাহিত্যে ব্যবহার করতেন। শব্দটি রবীন্দ্রযুগ থেকে সাহিত্যে প্রায় অচলিত হয়ে যায়। রাজশেখর বসুর চলন্তিকায় শব্দটি অশিষ্ট, কিন্তু মাগী বানানে। যদিও শব্দটি

পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

তদ্ভব যেকোনো ব্যুৎপত্তির দিক থেকে, আর তাই ই-কার ব্যবহার করাটাই রীতি। জ্ঞানেন্দ্রমোহনে আছে সংস্কৃত মাতৃগাম থেকে পালিতে মাতুগাম, সে থেকে প্রাকৃতে মাউগ্গাম, তা থেকে মাউগ, মাগু এবং মাগী (পুরনো বানানে)। রালফ লিলি টার্নারের ইন্দো-আর্য ভাষার তুলনামূলক অভিধানেও প্রায় একই ব্যুৎপত্তি। হরিচরণের মতে শব্দটি মাগ-এর সাথে ই যোগে নিষ্পন্ন, মাগ এসেছে মাউগ বা মাগু থেকে, মৈথিলিতে মৌগী বা মাগু দুইয়েরই অর্থ নারী। সুকুমার সেনের ব্যুৎপত্তি-সিদ্ধার্থে শব্দটি মার্গিতা থেকে, যার অর্থ মাগিবার জিনিস। ১৯৭৫ পূর্ববর্তী অসংখ্য বাংলা চলচ্চিত্রে মাগি শব্দটি আদুরে ডাক হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে !

বিশ শতকের মাঝামাঝি সময়েও কোনো কৃষক জমি থেকে ফিরে এসে উঠোনে বসে বউয়ের উদ্দেশ্যে হা‍ঁক ছাড়তেন,আমার মাগি কোথায় রে? বলাবাহুল্য, মাগি সম্বোধন তখন ছিলো অত্যন্ত আদরের। এখনো কিছু কিছু অঞ্চলে মাগি বলতে নারী, মহিলা বা স্ত্রী লিঙ্গদের বোঝানো হয়। তবে বেশিরভাগ মানুষই এখন এ শব্দটির দ্বারা পতিতা বা গণিকাদের বুঝেন। তবে গুগল ডিকশনারীর মতে, সেটা মাগি নয়, মাগী ! কালে কালে মাগি’র কী হাল হয়ে গেলো। এটা এখন একটা গালি…।

কথায় বলে, এক দেশের গালি, আরেক দেশের বুুলি। শুধু দেশ নয়, অঞ্চলভেদেও এমন দেখা যায়। কয়েক মাইল গেলেও শব্দের অর্থ-পরিবর্তন লক্ষ করা যায়। বাংলাদেশের অনেক গ্রাম এলাকায় ‘মহিলা’ শব্দের পরিবর্তে হরদম মাগি বলা হয়। এতে কেউ কিছু মনে করে না। আবার অন্য অঞ্চলে এটাকে গালি ও খারাপ স্বভাবের মেয়ে অর্থদ্যোতক মনে করা হয়। পুরানো অভিধানেও মাগি শব্দের অর্থ মেয়ে বলা আছে। বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানে বলা হয়েছে, বাংলা মাগি অর্থ: (অশিষ্ট) প্রাপ্তবয়স্ক স্ত্রীলোক, যৌনকর্মী। রবীন্দ্রনাথ লিখেছেন:

“তোমার কাছে এ বর মাগি

মরণ হতে যেন জাগি

গানের সুরে।

যেমনি নয়ন মেলি, যেন

মাতার স্তন্যসুধা-হেন

নবীন জীবন দেয় না পূরে।”

কবি আবদুল কাদির (১৯০৬-১৯৮৪ খ্রি. ) জয়যাত্রা কবিতায় লিখেছেন

“তোমার উত্থান মাগি ভবিষ্যৎ রয়ে প্রতীক্ষায়,

রুদ্ধ বাতায়ন পাশে শঙ্কিত আলোক শিহরায়।”

রবীন্দ্রনাথ আর কবি আবদুল কাদিরের মাগি যৌনকর্মী অর্থদ্যোতক মাগি নয়। এই মাগি অর্থ চাই, প্রার্থনা করি, অনুরোধ করি।

বোদা ভোঁদা ও ভোদা

বোদা দেশি শব্দ।বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানমতে, বাক্যে বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত বোদা শব্দের অর্থ স্বাদহীন, বিস্বাদ প্রভৃতি। স্থান-নাম বিশ্লেষণে

পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

অর্থ পাওয়া যায়— জ্ঞানী, বোদ্ধা, পণ্ডিত, ঈশ্বর, বোয়াল মাছ প্রভৃতি। এক্ষেত্রে বোদ্ধা’ বা জ্ঞানী’ শব্দ হতে ‘বোদা’ শব্দের উদ্ভব। যেমন: বুদ্ধ ছিলেন যুগের শ্রেষ্ঠ বোদা (জ্ঞানী, পণ্ডিত)। ঢাকার যানজট জীবনটাকে বোদা(বিস্বাদ) করে দিল। বোদা (বোয়াল মাছ) মাছটি ধরতে অনেক কষ্ট হয়েছে।

অনেকের মতো, ‘বোদা’ শব্দটি গৌতম বুদ্ধের সংক্ষিপ্ত নাম ‘বুদ্ধ’ শব্দের আঞ্চলিক রূপ। বাংলাদেশের পঞ্চগড় জেলায় বোদানামের একটি উপজেলা রয়েছে। বাংলা একাডেমি আধুনিক বাংলা অভিধানে ‘ভোদা বানানের কোনো শব্দ নেই। তবে ‘ভোঁদা’ বানানের একটি শব্দ আছে। অভিধানমতে, বাক্যে বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত দেশি ভোঁদা শব্দের অর্থ— স্থূলকায়, মোটা, মাংসল, স্থূলবুদ্ধি, বোকা, হাবাগোবা ইত্যাদি। যেমন: ভোঁদা (স্থুলকায়) ছেলেটির হাঁটতে কষ্ট হচ্ছে। ছেলেটি এত ভোঁদা(হাবাগোবা) যে, নিজের নামটিও ভালোভাবে বলতে পারে না।

পৌরাণিক শব্দের উৎস ও ক্রমবিবর্তন, ড. মোহাম্মদ আমীন,পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

কোথায় কী লিখবেন বাংলা বানান: প্রয়োগ অপপ্রয়োগ, . মোহাম্মদ আমীন,পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লি.

Leave a Comment

You cannot copy content of this page

poodleköpek ilanlarıankara gülüş tasarımıantika alanlarPlak alanlarantika eşya alanlarAntika mobilya alanlarAntika alan yerler
Casibomataşehir escortjojobetbetturkey