মুদ্রাদোষ : জ্বি স্যার : কৌতুকে কৌতুকে সয়লাব

জ্বি, স্যার

ড. মোহাম্মদ আমীন

মুদ্রাদোষে শুধু বিব্রত হতে হয় তা নয়, মারাত্মক বিপদও হতে পারে। এ যেমন মনসুর রাফি। ‘ক্ষমতা’ ও ‘নামতা’র লোভে শিক্ষকতার চাকরি ছেড়ে বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারে যোগ দিয়েছিলেন। আগে কোনো মুদ্রাদোষ ছিল না। প্রশাসনের চাকরিতে যোগদানের পর বসদের সঙ্গে কথায় কথায় ‘জ্বি স্যার’ বলতে বলতে ‘জ্বি স্যার’ এমনভাবে চেপে বসেছে— ‘জ্বি স্যার’ ছাড়া একটা বাক্যও বলতে পারেন না। ছেলে-মেয়ে, বউ, ড্রাইভার, কাজের বুয়া এমন কি পোষা কুকুরটার সঙ্গে কথোপকথনেও ‘জ্বি স্যার’ এসে যায়। কিছুদিন আগে একটি অর্থলগ্নীকারী প্রতিষ্ঠানের জিএম হিসেবে প্রেষণে বদলি হয়েছে তার।
একদিন খুব ভোরে ফোনের শব্দে ঘুম ভেঙে যায় জনাব মনসুর রাফির। এত ভোরে কেউ রিং করেন না। বিরক্তি নিয়ে রিসিভার নিলেন মনসুর রাফি। অপর প্রান্ত থেকে ভেসে এল ভরাট গলা : আমি জিএম বলছি।
জ্বি স্যার।
ঘুমোচ্ছিলেন বুঝি?
জ্বি স্যার।
অফিসে চুরি হয়েছে। অনেক টাকা উধাও। আপনি কি জানেন?
জ্বি স্যার।
আপনি কী চুরির খবর জানেন?
জ্বি স্যার।
কে চুরি করেছে তা কী ধারণা করতে পেরেছেন?
জ্বি স্যার, আমি তো সবদিকে সবসময় খেয়াল রাখি। সব কিছুতে আমার ধারণা আছে।
তা হলে চোরকে আপনি চিনেন?
জ্বি স্যার, আমি সবকিছু চিনি।
চুরির সঙ্গে আপনার তা হলে সম্পর্ক আছে?
জ্বি স্যার। থাকবে না মানে? আমি কি, স্যার যেমন তেমন অফিসার?
চোর এখন কোথায় জানেন?
জ্বি স্যার। আমি জানি না এমন কিছু নেই, স্যার। সবকিছু আমার জানা।
কী! কী বললেন? চুরিটা তাহলে আপনার গোচরে হয়েছে?
এবার হুঁশ আসে মনসুর রাফির : জ্বি স্যার, আমি কিছুই  দেখিনি।
এতক্ষণ কি তাহলে মিথ্যা বলছিলেন?
জ্বি স্যার।

আপনি কি মিথ্যুক?

জ্বি, স্যার।

[ ‘জ্বি’ শব্দের প্রমিত বানান ‘জি’, কিন্তু মনসুর রাফি সাহেব ‘বর্গীয়-জ’ বর্ণে শ্বাসাঘাত দিয়ে বলতেন, ‘জ্বি’}

 

সূত্র : রঙ্গরসে বাংলা বানান, ড. মোহাম্মদ আমীন, তৃণলতা প্রকাশনী।


তিলোত্তমা : বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/২

সাধারণ জ্ঞান সমগ্র/১

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন/১

বাংলা বানান কোথায় কী লিখবেন এবং কেন লিখবেন

কীভাবে হলো দেশের নাম

বাংলা ভাষার মজা, ড. মোহাম্মদ আমীন, পাঞ্জেরী পাবিলিকেশন্স লি.।

error: Content is protected !!